চিকুনগুনিয়ার সতর্কবার্তা

0
263

রাজধানীতে ব্যাপক আকারে চিকুনগুনিয়া ছড়াইয়া পড়ার পর প্রায় দুইমাস অতিক্রান্ত হইতে চলিয়াছে। কিন্তু কিছুতেই উদ্বেগমুক্ত হওয়া যাইতেছে না। বরং বিশেষজ্ঞরা এই মর্মে সতর্কবার্তা উচ্চারণ করিয়াছেন যে, আগামী সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ইহার প্রকোপ অব্যাহত থাকিবে এবং কমপক্ষে ১৮ লক্ষ মানুষ এই রোগে আক্রান্ত হইতে পারে। সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) করা তিনটি জরিপের উপর ভিত্তি করিয়া এই আশঙ্কা করা হইতেছে। এই আশঙ্কা যে অমূলক নহে তাহার যথেষ্ট প্রমাণও রহিয়াছে। বেসরকারি জরিপে দেখা গিয়াছে যে, এক বাড়িতে দুইজন—ক্ষেত্রবিশেষে পুরা পরিবারই চিকুনগুনিয়ায় ভুগিয়াছে বা ভুগিতেছে। আমাদের পারিপার্শ্বিক অভিজ্ঞতার সাক্ষ্যও ভিন্ন নহে। এমনকি চেনা পরিমণ্ডলেও প্রায় প্রতিদিনই কেউ না কেউ আক্রান্ত হইবার খবর পাওয়া যাইতেছে। পাশাপাশি, আইইডিসিআর কর্তৃপক্ষ নিশ্চিত করিয়াছেন যে রাজধানীর বাহিরে অন্তত চারটি জেলায়—বগুড়া, নরসিংদী, গোপালগঞ্জ ও গাজীপুরে—চিকুনগুনিয়ার রোগী শনাক্ত হইয়াছে। বিদ্যমান উদ্বেগকে আরো তীব্র করিয়া তুলিয়াছে ডেঙ্গুর চোখ রাঙানি। জানা যায়, প্রতি মাসেই ঢাকা ও চট্টগ্রামের সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালগুলিতে ভর্তি ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বাড়িতেছে। তন্মধ্যে দুইজনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করিয়াছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট শাখা।

ইহাতে অবশ্য বিস্মিত হইবার কিছু নাই। কারণ চিকুনগুনিয়া ও ডেঙ্গুর বাহক অভিন্ন। চিকুনগুনিয়ার বিস্তৃতিই বলিয়া দিতেছে যে, এডিস মশা রাজধানীর প্রায় সর্বত্রই সদম্ভে বিরাজমান। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, চিকুনগুনিয়ার তুলনায় অধিকতর বিপজ্জনক হওয়া সত্ত্বেও প্রাণঘাতী ডেঙ্গুর বিস্তার সাফল্যের সহিত রুখিয়া দেওয়া সম্ভব হইয়াছিল এবং তাহা অদ্যাবধি নিয়ন্ত্রণেও রহিয়াছে। প্রশ্ন উঠা স্বাভাবিক যে, চিকুনগুনিয়ার ক্ষেত্রে ইহার ব্যত্যয় ঘটিল কেন? ইহা লইয়া ইতোমধ্যে বিস্তর জল ঘোলা হইয়াছে। অতএব, নূতন করিয়া কাউকে দোষারোপ না করিয়া স্বীকার করিয়া লওয়া উচিত যে, ইহা আমাদের সম্মিলিত ব্যর্থতা। যে-কারণেই হউক না কেন, সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষই যথাসময়ে যথোচিত কাজটি করেন নাই কিংবা করিতে পারেন নাই। তবে স্বস্তির বিষয় হইল, শত্রু চিহ্নিত করা আছে। এখন সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষের দায়িত্ব হইল, যত দ্রুত সম্ভব তাহা নির্মূল করা। এই কাজটি যে সহজ নহে—তাহাও সুবিদিত। কারণ এডিস মশা মূলত গৃহজাত ও গৃহবাসী। বাড়ির ভিতরে জমিয়া থাকা পরিষ্কার পানিতেই সে বংশ বিস্তার করিয়া থাকে। অতএব, নাগরিকদের শুধু সচেতন হইলেই চলিবে না, একই সঙ্গে তত্পরও হইতে হইবে। এডিস মশা যাহাতে বংশবিস্তার করিতে না পারে তাহা যেমন নিশ্চিত করিতে হইবে, তেমনি মশার কামড় হইতেও সতর্ক থাকিতে হইবে। সেই সঙ্গে ঘরে ও বাহিরে যুগপত্ অব্যাহত রাখিতে হইবে মশকনিধন কার্যক্রম। এই ক্ষেত্রে ঘরের উপর দায় চাপাইয়া সিটি কর্পোরেশনের যেমন বসিয়া থাকিবার উপায় নাই, তেমনি কর্পোরেশনের উপর দায় চাপাইয়া নাগরিকদের নিষ্ক্রিয়তাও আত্মঘাতী হইতে বাধ্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here