চৌগাছার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজের ৫টি মিশন

0
867

নিজস্ব প্রতিনিধি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পুলিশ প্রধান বেনজীর আহমেদের (বিপিএম বার) ৫টি নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে নিজের কাছে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ যশোরের চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ।
গত ১৪ ফেব্রুয়ারি চৌগাছা পৌর নির্বাচনে খুলনা বিভাগের ডিআইজি ড.খ মহিদ উদ্দিনের (বিপিএম,বার) নির্দেশে যশোর জেলার পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়াদ্দারের (বিপিএম,বার) (পিপিএম) পরিচালনায় এবং অতিরিক্তি পুলিশ সুপার গোলাম রব্বানি শেখ এর (পিপিএম) নেতৃত্বে চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজসহ দায়িত্ব প্রাপ্ত সকল পুলিশ সদস্যই যেন সেই বার্তাই দিলেন ।
সেই সূত্র ধরেই গত রবিবার নির্বাচন উত্তর এবং আগামী দিনের চৌগাছার আইনশৃঙ্খলা ও পুলিশিং কর্মকান্ড নিয়ে কথা হয় ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজের সাথে। এ প্রতিনিধিকে তিনি জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত পুলিশের মহাপরিচালক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদের (বিপিএম বার) নির্দেশে খুলনা বিভাগীয় ডিআইজি ড.খ মহিদ উদ্দিনের (বিপিএম বার) তত্বাবধায়নের এবং যশোরের পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়াদ্দার (বিপিএম,বার) (পিপিএম) এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গোলাম রব্বানী শেখ (পিপিএম) এর নেতৃত্ত্বে দূর্নীতিমুক্ত পুলিশিং ব্যবস্থা,মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স,অযথা জনসাধারন হয়রানি বন্ধ,বিট পুলিশিং কার্যক্রম এবং পুলিশের কল্যানে ভাল কাজ কার এই ৫টি মিশন বাস্তবায়ন করতে চায়।
ওসি সবুজ বলেন, সাধারন জনগনের বন্ধু এবং অপরাধীদের আতঙ্কের নাম পুলিশ। তবে সাধারন জনগন এবং পুলিশের মাঝে যে বাধাটি এতাদিন পুলিশি কর্মকান্ডকে বিতর্কিত করতো সেটির নাম “দালালি”। আমার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে এবং সহযোগিতায় ইতিমধ্যে আমার থানাকে দালাল মুক্ত করতে পেরেছি বলে বিশ্বাস করি। কোনো ভূক্তভোগিকে অযথা হয়রানি করা,জিডি বা অভিযোগ করতে টাকা নেওয়া এবং ভ’ক্তভোগিদের ত্বরিৎ পুলিশি সাহায্য পেতে যা যা পদক্ষেপ গ্রহনকরা প্রয়োজন আমরা সেটি করছি।
সীমান্তবর্তী উপজেলাতে মাদক চোরাচালান, অস্ত্র ব্যবসা ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডকে কতোটুকু নিয়ন্ত্রন করতে পারবেন প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান, মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধে কোনো আপস নেই। বক্তব্যটির সত্যতা প্রকাশ পায় গত এক মাসের মাদক বিরোধী অভিযানের ফলাফলে। গত ২৮ জানুয়ারি জোগদানের পর হতে গত এক মাসে ৪০৭ পিস ফেন্সিডিল, ৯ কেজি ৭৫০ গ্রাম গাজা, ৫৫ পিস ইয়াবা, ৪ বোতল বিদেশি মদ এবং ১০ লিটার চোলাই মদ উদ্ধার করেছে চৌগাছা থানা পুলিশ। এসকল ঘটনায় ৩২টি মাদক মামলায় ৩৬জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়াও ৮০জন ওয়ারেন্টভূক্ত আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
এছাড়াও উপজেলাতে বিভিন্ন ইউনিয়নে বাওড় কেন্দ্রিক কিছু সমস্যা আছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব এবং সাধারন জনসাধারনের সহযোগিতায় সেগুলোরও সমাধান করার চেষ্টা অব্যহত আছে। আগামী দিনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুললে ছাত্রছাত্রীদের সাথে,মসজিদে, হাটে বাজারে ব্যাপক প্রচারের মাধ্যমে জন সচেতনতা তৈরি করতে চেষ্টা করবো। জন সম্পৃক্ততা বৃদ্ধি পেলেই আইনশৃঙ্খলা বজায় থাকবে এবং জনগনের জীবনে শান্তি আসবে বলেই আমি বিশ্বাস করি। ইতিমধ্যে তিনি উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের মসজিদে ধর্মপ্রান মুসল্লি ও স্থানীয় জনসাধারনের সাথে মতবিনিময় করেছেন বলেও জানিয়েছেন।
উপজেলার সর্বস্তরের জনগনের কাছে অপরাধীদের বিরুদ্ধে সঠিক তথ্য চাওয়ার সাথে সাথে কাউকে নিজ প্রয়োজনে ষড়যন্ত্রে না জড়াতে হুশিয়ার করেছেন চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ।