চৌগাছার খুনিদের পরবর্তী টার্গেট কাশেম চেয়ারম্যান ?? থানায় জিডি

0
91

বিশেষ প্রতিনিধি

যশোর চৌগাছায় বেড়গোবিন্দপুর বাওড় সরকারি মৎস্য প্রকল্পকে ঘিরে আবারো একজন ইউনিয়ন চেয়ারম্যানকে খুনি সন্ত্রাসীরা হত্যার হুমকি দিয়েছে।

১আগষ্ট ৫নং চৌগাছা সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল কাশেমকে তার ব্যবহ্নত মুঠো ফোনে (০১৭১১-৫৭৮৮৬৫ নাম্বারে) কল এই হত্যার হুমকি দেয় পুলিশের তালিকাভূক্ত খুনি ও সন্ত্রাসী ইউনুস আলী ও ইমরান হোসেন। এ ঘটনায় ২ আগষ্ট চেয়ারম্যান কাশেম তাদের নামে চৌগাছা থানায় একটি সাধারন ডায়েরি (জিডি) করেছেন।



অভিযুক্ত ইউনুস আলী লস্করপুর গ্রামের মৃত সিরাজের ছেলে ও হত্যা মাদকসহ ৫টি মামলার আসামী এবং ইমরান হোসেন মনমথপুর গ্রামের পান্নুর ছেলে ও একটি হত্যা, মাদক, ডাকাতিসহ ১৪টি মামলার আসামী।

জিডির বিষয়টি চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ নিশ্চিত করেছেন।
জিডিতে লিখিতভাবে চেয়ারম্যান কাশেম বলেছেন, ১আগষ্ট রাতে আমার মুঠোফোনে ইউনুস লস্করপুর নামে সেভ করা ০১৭৯৬-৪৪১৮৮৭ নং নাম্বার থেকে কল করে ইউনুছ আলী নিজে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে। সে বলে,“তুই বেড়গোবিন্দপুর বাওড় ও ডায়নার বিল নিয়ে আমার ক্ষতি করছিস। আমরা বিল ম্যানেজারের কাছ থেকে লিজ নিয়ে করে খাচ্ছি, তাতে তোর সমস্যা কি” বলেই মুখ খিস্তি করে,“ এবার কিন্তু তোকে গুলি করে খুন করে ফেলবো” বলে হুমকি দেয়। এমন সময় ইউনুসের সাথে ইমরান হোসেনও বিশ্রি ভাষায় খিস্তি করে বলে,“তোর ভাই মিন্টুকে যেভাবে গুলি করে মারা হয়েছে তোকেও সেই ভাবে মেরে ফেলা হবে”।
উল্লেখ্য এই বাওড়ের বর্তমান ব্যবস্থাপক রিয়াজউদ্দিন কিলার শামীম, সন্ত্রাসী ইমরান ওইউনুসসহ অন্যান্যদের কাছে বাওড় ও বিলকে অবৈধভাবে লিজ দিয়েছেন। এবিষয়ে চেয়ারম্যান কাশেম শুরু থেকেই বিরোধীতা করে আসছেন। গতকালও (দুপুর সাড়ে ৩টার দিকে) চেয়ারম্যান কাশেম মৎস্য অধিদপ্তরের প্রকল্প পরিচালকের (পিডি যশোর) কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ করেছেন এবং সেদির রাতেই তাকে হুমকি দেয়া হলো। তিনি প্রশ্ন করেন,“আমি পিডির কাছে অভিযোগ করলাম গোপনে,সেটা সন্ত্রাসীরা জানলো কিভাবে??”
জানাযায় সম্প্রতি এই বাওড় ও বিলের বিভিন্ন দূর্নীতি নিয়ে ব্যবস্থাপক রিয়াজ উদ্দিনসহ অবৈধ বিল দখলদার কিলার শামীম,ইমরান,ইউনুসসহ অন্যান্যদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সংবাদপত্রে সংবাদ প্রকাশ হয়। সেই সংবাদে ক্ষুদ্ধ হয়ে ওই সন্ত্রাসী ইমরান, ইব্রাহিম, মিঠুনসহসহ অন্যান্যরা রায়হান হোসেন নামে একজন সাংবাদিককে লাঞ্চিত করে। সে ঘটনায়ও থানায় জিডি কার হলেও আজ পর্যন্ত সন্ত্রাসীরা বহাল তবিয়তেই তাদের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে।
এরআগে এই বাওড়কে কেন্দ্র করে ২০১৩ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর উপজেলার শীর্ষ এক নেতার সরাসরি ইন্ধনে শীর্ষ সন্ত্রাসী কিলার শামীম ও তার বাহিনী দিনের বেলা শত শত লোকের সামনে যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও ৩নং সিংহঝুলি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান মিন্টুকে গুলি করে হত্যা করে। সেবারও মিন্টু হত্যার আগে কিলার শামীম তাকে মুঠোফোনে হত্যার হুমকি দিয়েছিল এবং মিন্টুও থানায় জিডি করেছিলেন।
আবারো কি সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটতে চলেছে ?? কারন এবারো সেই বেড়গোবিন্দপুর বাওড় ও ডায়নার বিল নিয়ে চৌগাছা সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, উপজেলা মৎস্যজীবি লীগের আহ্বায়ক এবং চৌগাছা সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আবুল কাশেমকে খুনি ইমরান ও ইউনুস (যাদের বিলের ব্যবসায়িক পার্টনার সেই শীর্ষ সন্ত্রাসী কিলার শামীম) হত্যার হুমকি দিল।
এরআগেও এই উপজেলায় আওয়ামী সরকারের আমলেই ৩জন জনপ্রিয় জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক গুরুত্বপূর্ন নেতা যারা সকলেই আওয়ামী লীগের মনোনীত ইউনিয়ন চেয়ারম্যান থাকাবস্থায় দলীয় গ্রুপিং এর কারনে খুন হয়েছেন। এবং তাদের খুনের সেই স্বঘোষিত খুনিরা উপজেলাতে প্রকাশ্যে আওয়ামী রাজনীতিতেই সক্রিয়।
তাই অনেকে আশঙ্কা করেন,“ তবে কি সেই শহীদদের তালিকার পরবর্তী টার্গেট শহীদ চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান মিন্টুর চাচাত ভাই ও সদর ইউনিয়নের নৌকা প্রতিকের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম ???