চৌগাছার পাতিবিলা ইউনিয়ন-কে হচ্ছেন আগামী চেয়ারম্যান??

0
1987

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছা উপজেলার ৭নং ইউনিয়নটির নাম পাতিবিলা ইউনিয়ন। জেলার ভৌগলিক অবস্থানে ৮নং হাকিমপুর, ৭নং পাতিবিলা এবং ৬নং জগদিশপুর ইউনিয়নগুলো ঝিনাইদহ জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার সাথে যুক্ত। ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত (চৌগাছা থানা গঠনের পূর্বে) এই ৩ ইউনিয়ন ঝিনাইদহ জেলার কালিগঞ্জ থানার অর্ন্তভূক্ত ছিল। আর বর্তমান এ ইউনিয়নগুলোর সম্বন্ময়েই সেসময় ছিল পাতিবিলা ইউনিয়ন।

১৯৪৯ সাল থেকেই এই পাতিবিলা ইউনিয়ন ছিল মুসলিম লীগের নিয়ন্ত্রনে। তৎকালীন মুসলিম লীগ নেতা ও পরবর্তীতে শান্তি কমিটির পাতিবিলা ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট মরহুম শাজাহান মিয়ার বাড়ি এই ইউনিয়নের পাতিবিলা গ্রামে। মুসলিম লীগের ব্যাপক আধিপত্যের কারনে কোন সময়ই আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক অবস্থান তেমন মজবুত ছিলনা এ ইউনিয়নে। স্বাধীনতার পরেও দীর্ঘদিন নিষিদ্ধ ঘোষিত কমিউনিষ্ট পার্টির আঞ্চলিক নেতারা এ অঞ্চলগুলো নিয়ন্ত্রন করেছেন। সে সকল কারনেই এসকল অঞ্চলে বিএনপির প্রভাব সবসময়ই বেশি বলেই নিশ্চিত করেছেনন চৌগাছা উপজেলা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতারা।

প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ি সর্বদাই (হাকিমপুর ও পাতিবিলা) এই দুই ইউনিয়নে চেয়ারম্যানের চেয়ারটি আওয়ামী বিরোধীদের দখলেই থেকেছে। তবে ২০১১ সালে পাতিবিলা ইউনিয়নে বর্তমান উপজেলা আওয়ামী লীগের জেষ্ঠ্য সহ-সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিয়া দলীয়ভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচীত হয়েছিলেন। কিন্তু ২০১৬ সালে তিনিই আবার নৌকা প্রতিক নিয়ে ধানের শীষ প্রতিকের আতাউর রহমান লালের কাছে পরাজিত হয়েছেন। তার আপন বড় ভাই ফরিদুল ইসলাম উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের তালিকাভূক্ত প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত অস্ত্রধারি কুখ্যাত রাজাকার,জানিয়েছেন বীর মুক্তিযোদ্ধারা। শহিদুল ইসলাম মিয়া নিজেও একথা স্বীকার করেছেন। তবে দীর্ঘ দিন তিনি আওয়ামী রাজনীতিতে সক্রিয়। এবারও তিনি পাতিবিলা ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশি।

গত নির্বাচনে (২০১৬ সালের ইউনিয়ন নির্বাচন) ফেল করার কারন এবং তার আপন বড় ভাই সম্বন্ধে বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে উপজেলা আওয়ামী লীগের এই জেষ্ঠ্য সহ-সভাপতি বলেন, আমি পারিবারিকভাবে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে জড়িত। তবে গত নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার কারন হিসেবে উপজেলা পরিষদের নৌকা প্রতিকের নির্বাচীত বর্তমান চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ ড.মোস্তানিছুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী যুব লীগের আহ্বায়ক ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান দেবাশীষ মিশ্র জয়, জেলা পরিষদ সদস্য ও আওয়ামী লীগ নেতা দেওয়ান তৌহিদুর রহমানসহ বেশ কিছু নেতা এবং সাবেক সাংসদ এ্যাড.মনিরুল ইসলাম মনিরের বিরোধীতাকে দায়ি করলেন তিনি।

স্বাধীনতা যুদ্ধে নিজের বড় ভায়ের রাজাকারে যোগদানের বিষয়ে শহিদুল ইসলাম বলেন, স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় আমার চাচা মরহুম শাজাহান মিয়া এবং মরহুম আলি আকবর স্যার ছিলেন সে সময়কার চৌগাছার শান্তি কমিটির সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক। আর ইউনিয়ন শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন আনারুল ইসলাম শান্তি। তাদের চাপে বিশেষ করে মরহুম শাজাহান মিয়ার চাপের কাছে নত হয়েই আমার মরহুম পিতা আবুল হোসেন মিয়া ওরফে শুকুর মিয়া আমার বড় ভাই ফরিদুল ইসলামকে রাজাকার বাহিনীতে পাঠাতেন বাধ্য হয়েছিলেন। সে ক্যাম্প থেকে আমার ভাই পরে পালিয়ে এসেছিল। এবং আমার বাবা আওয়ামী লীগের রাজনীতি করতেন।

শহিদুল ইসলাম মিয়ার এ কথাটির সত্যতা মিলল না উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এসএম হাবিবুর রহমানের বক্তব্যে। এই বীর মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী লীগ নেতা বলেন,শহিদুল মিয়ার ভাই রাজাকার হিসেবে চৌগাছাতেই রিক্রুট হয়েছিল। এবং ট্রেনিং শেষে খুলনার শিরমনির কোন এক জুট মিলে ছিল। তার বাবা আওয়ামী লীগ করতো কিনা জানানেই।

বীর মুক্তিযোদ্ধা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মাষ্টার শাহাজাহান কবির বলেন,শহিদুল মিয়া আগে আন্ডার গ্রাউন্ড পার্টি করতো। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার দু’এক বছর আগে সে আওয়ামী লীগে যোগদান করেছে। আর তার বাবা আওয়ামী লীগের কর্মী ছিলেন বলে কোনো ইতিহাস আমার জানা নেই।

২০১৬ সালের নির্বাচনে শহিদুল মিয়ার পরাজিত হওয়ার অভিযোগ সম্বন্ধে জানতে চাইলে যশোর-২ (চৌগাছা-ঝিকরগাছা) আসনের সাবেক সাংসদ ও যশোর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক এ্যাড.মনিরুল ইসলাম মনির হাসতে হাসতে প্রশ্ন করেন,আমি বা আমার পরিবারের কেউ কখোনা নৌকার বিরুদ্ধে ভোট করেছি বলে কেউ বলতে পারবে??

বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ ড.মোস্তানিছুর রহমান বলেন,আমি কোথাও নৌকা প্রতিকের নির্বাচনে বিরোধীতা করিনি। আর তিনি যদি অভিযোগ দিয়েই থাকেন তবে তা প্রমান করা উচিৎ বলে মনে করেন তিনি।

জেলা পরষিদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা দেওয়ান তৌহিদুর রহমান বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠ হওয়ায় এবং জনগন তাকে ভোট না দেওয়ায় তিনি ফেল করেছেন।

উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান দেবাশীষ মিশ্র জয় বলেন, আমি ছাত্রলীগে ৬ বছর এবং উপজেলা যুবলীগে ১৮ বছর দায়িত্ব পালন করছি। গত ইউনিয়ন নির্বাচনে পাতিবিলা ইউনিয়নের কোথাও যদি নৌকার বিরুদ্ধে ভোট করেছি প্রমানিত হয় বা কেউ প্রমান করতে পারে তবে যা শাস্তি হয় মাথা পেতে নেবো।

(অব) অধ্যক্ষ জাহিদুর রহমান ছিলেন পাতিবিলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি (১৯৯৬ থেকে ২০১৩ )। বর্তমান চৌগাছা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্বে থাকা অধ্যক্ষ জাহিদুর রহমানকে শহিদুল ইসলাম মিয়ার ভাই ফরিদুল ইসলামের রাজাকারে যোগদানের বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, সে সময়ে কাউকে কি জোর করে রাজাকারের ট্রেনিং’এ পাঠানো গিয়েছিল বা রাজাকার কি জোর করে বানানো সম্ভব? আমার বাবাকেও যুদ্ধের সময় অনেক চাপ দেওয়া হয়েছিল। তারপরেও তো আমার বড় ভাই মরহুম রাশিদুর রহমান মুকুল মুক্তিযুদ্ধে গিয়েছিলেন।

তৎকালিন ইউনিয়ন শান্তি কমিটির সভাপতি বা চেয়ারম্যান হিসেবে যে নামটি শহিদুল মিয়া বলেছেন সেটি সত্য না। সেসময় পাতিবিলা ইউনিয়ন শান্তি কমিটির সভাপতি বা চেয়ারম্যান ছিলেন শহিদুল মিয়ার আত্নীয় ( সম্পর্কে দাদা) মরহুম শাজাহান মিয়া। শাহাজান মিয়ার ছেলে মন্টু মিয়া এবং ভাই ফরিদুল ইসলাম ছিলেন প্রশিক্ষন প্রাপ্ত অস্ত্রধারি রাজাকার। জানালেন ১৯৭০ সালের আওয়ামী লীগের ভোটার হিসেবে পরিচিত এবং ১৯৮২ সালের পাতিবিলা ইউনিয়নের পুরতান এবং নতুন ৭নং ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের মেম্বর হিসেবে নির্বাচিত জালাল উদ্দিন (৬৭)।

মুক্তিযুদ্ধকালিন ইতিহাস জানতে কথা হয় ১৯৭১‘র স্বাধীনতা যুদ্ধে একাধিকবার সন্মুখযুদ্ধে অংশগ্রহনকারি,ভারতে উচ্চতর প্রশিক্ষন প্রাপ্ত,বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে।

তাদের মধ্যে একজন চৌগাছা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা ডাক্তার নুর হোসেন বলেন, শাজাহান মিয়ার ছেলে মন্টু মিয়া এবং শহিদুল মিয়ার ভাই ফরিদ তালিকাভূক্ত এবং প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত অস্ত্রধারি রাজাকার ছিলেন। ১৯৭১ সালে যুদ্ধ চলাকালিন সময়ে জুন/জুলাই মাসে রাজাকার মন্টু এবং ফরিদকে ধরতে তাদের পাতিবিলা বাড়িতে অভিযান চালিয়েছিলাম। সে রাতে কুখ্যাত রাজাকার মন্টু ও ফরিদকে না পেয়ে তাদের মা,বাবাসহ সকলকে স্বাধীন বাংলাদেশের শপথ পাঠ করিয়েছিলাম বলছিলেন অন্যজন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা ঐক্য পরিষদের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সালাম।

উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক ও পাতিবিলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মাষ্টার তারিকুল ইসলাম এবার মনোনয়ন চাইবেন। সম্পর্কে তিনি শহিদুল ইসলাম মিয়ার ভাগ্নে। ছাত্রলীগ ও যুবলীগে ১৭ বছর রাজনীতি শেষে হয়েছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি (২০১৪-২০১৯)। বর্তমানে তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন।

দলীয় মনোনয়ন দৌড়ে থাকা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক মোহাম্মদ আবু জাফরের নাম বেশ জোরেশোরেই শোনা যাচ্ছে। ১৯৯৪ সালের যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য হিসেবে রাজনীতিতে সক্রিয় অংশগ্রহনকারি আবু জাফর ১৯৯৬ সাল থেকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। পরবর্তীতে দলীয় গ্রুপিং’এর কারনে ২০১৪ সালে দলীয় পদ হারিয়েছেন । দু’দুবার ইউনিয়ন মেম্বর হিসেবে দায়িত্ব পালনকারি এ নেতা ইউনিয়ন আওয়ামী নেতা কর্মীদের সাথে কাজ করে চলেছেন।

পাতিবিলা ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সভাপতি আনোয়ার হোসেন মিলনও এবার দলীয় মনোনয় প্রত্যাশি। পারিবারিকভাবে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে জড়িত এ যুবনেতা দীর্ঘদিন ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন।

পাতিবিলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নাজিউর রহমান দুদু মনোনয়ন দৌড়ে শহিদুল ইসলাম মিয়া ও তার কমিটির সভাপতি এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক মাষ্টার তারিকুল ইসলাম ছাড়া অন্য কোনো নাম বলতে নারাজ। কিন্তু বিভিন্ন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সম্পাদক এবং ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সম্পাদকের মতে শহিদুল ইসলাম মিয়া, মাষ্টার তারিকুল ইসলাম, আবু জাফর এবং যুবলীগ নেতা মিলনের নামই দলীয় মনোনয়ন দৌড়ে থাকতে পারে।

এদিকে ইউনিয়নের প্রতিটি ওয়ার্ডের সভাপতি সাধারন সম্পাদকসহ তৃনমুলের সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রার্থীদের নাম বাছাই করতে আগ্রহী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক ও পাতিবিলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের এখোনো দায়িত্বে থাকা সভাপতি মাষ্টার তারিকুল ইসলাম।

তবে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এসএম হাবিবুর রহমান বলেন,“ দলের মধ্যে যারা দীর্ঘদিন রাজনীতি করছে এবং যোগ্য ইউনিয়ন চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে দলীয় মনোনয়নের জন্য তাদের নাম পাঠানো হবে।

ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির যুগ্ম-আহ্বায়ক আতাউর রহমান লাল এবারও বিএনপির কঠিন প্রার্থী। ইউনিয়ন চেয়ারম্যান নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে আগ্রহী ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাবেক সাধারন সম্পাদক,পরবর্তি ভারপ্রাপ্ত সভাপতি (২০০১-২০১৩/ ২০১৩-২০১৪) ইঞ্জিনিয়ার (বিএসসি) রাজু আহমদ। এদিকে দলীয় প্রতিকে ইউনিয়ন নির্বাচন না করার দলীয় সিদ্ধান্তটি স্মরন করিয়ে দিলে বিএনপির এই দু’নেতা বলেন,দল যদি নির্বাচনে না আসে তবে আমরা নির্বাচন করবো না।

এক দিকে আওয়ামী লীগের ইউনিয়নে সাংগঠনিক দূর্বলতা পাশাপাশি মুসলিম লীগের রেশ ধরে অদ্যবধি বিএনপির শক্ত অবস্থান। সেই হিসেবে নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন ঘোষনার পরেই উপজেলা এবং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও সকল অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের একাত্নতা ঘোষনা করে কাধে কাধ মিলিয়ে কাজ করা অন্যদিকে বিএনপির ভোটে অংশগ্রহন করা না করার উপরেই নির্ভর করছে আগামী দিনের দলীয় বা ব্যক্তি চেয়ারম্যানের ভাগ্য।