চৌগাছার শীর্ষ সন্ত্রাসীর দখলে সরকারি বিল! রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে সরকার

0
238

নিজস্ব প্রতিনিধ

যশোরের চৌগাছার সরকারি বিল এখন শীর্ষ সন্ত্রাসী শামীম কবির ওরফে কিলার শামীমের দখলে। বিলটি দীর্ঘদিন দখলে রেখে মাছ চাষ করলেও দেখার যেন কেউ নেই।
বাওড়ের এক অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজশে বেড়গোবিন্দপুর বাওড়ের ডায়নার বিল নামক বিলটিতে এখনো মাছ চাষ করে চলেছে শামীম কবির ওরফে কিলার শামীম। তাতে সরকার রাজস্ব বঞ্চিত হলেও বাওড়ের এক শ্রেনীর কর্মর্তাসহ লাখ লাখ টাকা মুনাফা লুটে নিচ্ছে এই শীর্ষ সন্ত্রাসী। শুধুতাই নয় সরকারি জলমহাল রীতিকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে পাশেই আরো একটি বিল (গরীবপুর ডায়নার বিল জল মহাল) অন্য মৎস্য চাষী সমিতির নামে যশোর ডিসি অফিস থেকে লিজ নিয়ে সেখানেও মাছ চাষ করছে এই সন্ত্রাসী জানিয়েছেন স্থানীয়রা।
৫টি হত্যা, ১৭ বছর জেলসহ ডজনেরও বেশি মামলার আসামী এই সন্ত্রাসী প্রশাসনকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে বর্তমানে প্রকাশ্যে বাহিনী নিয়ে ঘুরে বেড়ায় সে। সরকারি বিল দখল করে মাছ চাষ,বালি উত্তোলন,মাদক সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রন,সন্ত্রাসী হামলাসহ নানাবিধ সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে জড়িত এই কিলার শামীম। শামীম কবির ওরফে কিলার শামীম সিংহঝুলী ইউনিয়নের জাহাঙ্গীরপুর গ্রামের মৃত সামসুল হকের ছেলে।
বর্তমান বাওড় ম্যানেজার রিয়াজউদ্দিন জানিয়েছেন, এই বাওড়ে দীর্ঘদিন ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করা ইমদাদ হোসেনের কারসাজিতে বেড়গোবিন্দপুর বাওড় ও বাওড় সংলগ্ন ডায়নার বিলটি স্থানীয়রা মাছ চাষ করে আসছে। সরকারি কোনো লিজ ঘোষনা ছাড়াই সম্পূর্ন অবৈধভাবে যশোর পুলিশের তালিকাভূক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী কিলার শামীম বেড়গোবিন্দপুর বাওড়েরর বিলটিতে মাছ চাষ করায় রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে সরকার। স্থানীয়রা বলছেন সরকারের লক্ষ্যমাত্র অর্জিত না হলেও এক শ্রেনীর কর্মকর্তা ও মৎস্য ব্যবসায়ির রীতিমত পকেট ভারি হচ্ছে ।
যশোরের চৌগাছাসহ বিভিন্ন জেলার ৬টি বাওড় ও একটি বিলের দায়িত্বে থাকা প্রকল্প পরিচালক মোশারফ হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন,“বেড়গোবিন্দপুর বাওড়ের অংশ ডায়নার বিলটির আয়তন ৩১ হেক্টর। সেখানে একটি লেক (১৯ একর) বেশকয়েকটি পুকুর মিলিয়ে ডায়নার বিল। বেড়গোবিন্দপুর বাওড় ও ডায়নার বিল মিলিয়েই সরকারি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়।
“তাহলে সেই বিল কিভাবে অন্যরা চাষ করেন” প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন,আমি প্রকল্প পরিচালক হিসেবে ১মাস দায়িত্ব নিয়েছে। সরকারি এই বাওড় বা বিল কেউ লিজ দিতে বা নিতে পারেনা। এখানে সরকারিভাবে ছাড়া অন্যকারো মাছ চাষ সম্পূর্ন অবৈধ। তবে গত বাওড় ম্যানেজার (ইমদাদ হোসেন, তিনি ইতিমধ্যে এলপিআরে আছেন) কারসাজি করে এই কাজ করেছেন। তাতে করে তিনি ২০১৯-২০ অর্থ বছরের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে পারেননি। এবং এই কারনে তাকে সরকারি লক্ষ্যমাত্রার ৪৫ লাখ টাকা নিজস্বভাবে পরিশোধ করতে হবে। তবে ইতিমধ্যে কিছু টাকা পরিশোধ করেছেন ইমদাদ হোসেন এবং এখনো ৩৮/৩৯ লাখ টাকা বাকি আছে। সরকারের এই টাকা তাকে অবশ্যই পরিশোধ করতে হবে। না হলে তিনি অন্য সমস্যায় পড়বেন।
চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ বলেন,এ সম্বন্ধে আমার জানা নেই।