করোনায় আক্রান্ত চৌগাছার সন্মুখসারির করোনা যোদ্ধা আলম

0
59

নিজস্ব প্রতিনিধি

মানব কল্যানে সর্বত্র অংশগ্রহন তার। কখনো রোগীকে বাচাতে এ্যাম্বুলেন্সের সাইরেন বাজিয়ে দ্রুত ছুটে চলা আবার কখনো করোনায় নিহত ব্যক্তির সৎকারে সে। কখনো করোনায় আক্রান্তের নমুনা সংগ্রহে আবার কখনো সেই রোগীর বাড়িতে ঔষধ হাতে। করোনা মহামারির শুরু থেকে এভাবেই যশোরের চৌগাছা উপজেলাতে করোনার সন্মুখযোদ্ধার খ্যাতি অর্জন করেছেন এ্যাম্বুলেন্স চালক আলম। পুরো নাম আলমগীর হোসেন আলম।
আলম উপজেলার পাশাপোল ইউনিয়নের রঘুনাথপুর গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম রবিউল ইসলাম ও ফরিদা পারভিনের ছেলে। পুরো নাম আলমগীর হোসেন আলম। পেশায় তিনি চৌগাছা ৫০ শয্যা মডেল হাসপাতালের এ্যাম্বুলেন্স চালক।
কিন্তু গত রবিবারের করোনা পরীক্ষায় পজেটিভ হয়েছেন তিনি। চিকিৎসকের পরামর্শে নিজ বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন করোনা যুদ্ধের এই সন্মুখযোদ্ধা।
করোনা মহামারির শুরু থেকেই যেকজন করোনা যুদ্ধে সন্মুখভাগে থেকেছেন আলম তাদের মধ্যে অন্যতম। আলমের যুদ্ধটা ২০২০ সালের ৩ এপ্রিল থেকেই শুরু হয়।
প্রাথমিক স্তরে যখন সকলেই করোনা ভয়ে ভীত তখন উপজেলার বাড়ি বাড়ি ঘুরে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য যবিপ্রবি ল্যাবে পৌছানোসহ,রোগীদের বাড়ি গিয়ে ঔষধ পৌছানো,তাদের খবর নেওয়া সকল কাজই নিষ্ঠার সাথে করেছেন তিনি। তারমধ্যে হাসপাতালের কাজে ছুটেছেন চৌগাছা থেকে যশোর বা ঢাকা আবার রাতারাতি ঢাকা থেকে ফিরেছেন যশোর হয়ে চৌগাছায়। গেল বছরেই জাতীয় এবং স্থানীয় বিভিন্ন গনমাধ্যমের (টিভি এবং সংবাদপত্র) সংবাদের শিরনাম হয়েছেন এই করোনা যোদ্ধা। সেই থেকে উপজেলাসহ দেশের মানুষের কাছে তিনি এ্যাম্বুলেন্স চালক আলমের চেয়ে করোনাযোদ্ধা আলম হিসেবেই বেশি পরিচিত।
শুধুমাত্র হাসপাতালের কাজেই নয়,করোনার দ্বিতীয় ঢেউ বা সেকেন্ড ওয়েভ শুরু হলে আবারো আলমের নামটি সামনে আসে। শুধু পেশাগত দায়িত্ব নয় সাথে মায়ের নির্দেশে এবার নিজেকে বিলিয়ে দিলেন মানবতার সেবায়।
করোনায় মৃতদেরকে যখন আপনজনেরাই ফেলে পালিয়ে যাচ্ছে তখন উপজেলাতে “অগ্রযাত্রা” নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সেই মৃতদের সৎকারের দায়িত্ব কাধে তুলে নেন। পেশাগত দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি আলমও যোগদেন মৃতদের সৎকারে। করোনায় মৃতরা নিজ পরিবারের কাছে অছুত হলেও এই আলমই তাকে ব্যাগে ভরে সৎকারে নিয়ে যাচ্ছেন।
মাত্র কয়েক দিন আগে একজন হিন্দু বৃদ্ধার করোনায় মৃত্য হয়। মৃত্যুর পরেও তার লাশ চৌগাছা হাসপাতালে ৪ ঘন্টা পড়েছিল। ছেলে মেয়ে,ভাই স্বজনরা যখন কেউ এলানা তখন অগ্রযাত্রার সভাপতি হাসিব,সম্পাদক জাহিদ হাসানসহ আলমরা সেই লাশ শ্মশানে নিয়ে সৎকার করেন।
রাতদিন নেই, মায়ের নির্দেশে করোনা যুদ্ধে আলম যেন ক্লান্তিহীন। অবশেষে সেই আলমের যুদ্ধকে সাময়িকভাবে থামিয়ে দিয়েছে করোনার আগ্রাসন।
রবিবারে করোনা পজেটিভের ফলাফল আসার পরে কথা হলো আলমের সাথে। একটু চিন্তিতমুখে আলম জানালো করোনায় আক্রান্তের কথা।
এক কন্যা সন্তানের পিতা আলম তার সন্তানকে গবেষক বানাতে চান। বললেন,“ দেশের স্বাধীনতার জন্য বাবা যুদ্ধ করেছেন। আমিও দেশের স্বার্থে করোনা যুদ্ধে শেষ পর্যন্ত আছি।”