চৌগাছার সেই ডি.এম.সি.ইউ মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে গাছ আত্মসাতের অভিযোগ

0
157

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় সংসদ সদস্যের ডিও লেটার এবং স্বাক্ষর জালিয়াতি করে ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠনের উদ্যোগ নেয়া সেই মাদরাসা অধ্যক্ষ স্থানীয় একটি পত্রিকায় পত্রিবাদ দিয়ে নিজের অপকর্ম ঢাকার চেষ্টা করছেন।
এদিকে অধ্যক্ষ মাওলানা হাফিজুর রহমানের বিরুদ্ধে মাদরাসার ৫টি বড় মেহগনি গাছ অবৈধভাবে কেটে বিক্রি করে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। মাদরাসার জমিদাতা ও অভিভাবক সদস্যরা এসব অভিযোগ করেছেন।
মাদরাসায় জমিদাতা শাহাজান আলী, এলাকাবাসী আবু তাহের, ইসমাইল হোসেন, শুরুজ আলী, হবিবর রহমান জানান ‘মাদরাসার শ্রেণি কক্ষের বেঞ্চ ও অফিসের আসবাবপত্র তৈরির কথা বলে অবৈধভাবে দুই ধাপে পুরাতন মূল্যবান পাঁচটি মেহগনি কাটা হয়েছে। সেগুলো অধ্যক্ষ হাফিজুর রহমান নিজেই আত্মসাৎ করেছেন। তাঁরা বলেন মাদরাসার সভাপতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে থাকেন বলে অধ্যক্ষ সব সময় তাঁর অনিয়মের বিষয়ে সভাপতির অনুমতি আছে বলে বলে থাকেন।
জগদীশপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি শরিফুল ইসলাম বলেন, মদরাসার অধ্যক্ষ হাফিজুর রহমান সবসময় সরকারি দলের লোক। নিজের কোনো দল নেই। আগে তিনি বিএনপি জামায়াতের কর্মী ছিলেন। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর আওয়ামী লীগের কর্মী সেজে স্থানীয় এক নেতার সহযোগিতায় নানা অনিয়ম করে আসছেন।
অভিযোগের বিষয়ে অধ্যক্ষ মাওলানা হাফিজুর রহমান মুঠোফোনে বলেন, প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের জন্য গাছগুলো কাটা হয়েছে। গাছ বিক্রির নীতিমালা মানা হয়নি বিষয়ে তনি উত্তেজিত হয়ে বলেন, মাদরাসার ফার্নিচার তৈরির জন্য ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতিকে জানিয়ে গাছ কাটা হয়েছে। এখানে নীতিমালা কি হবে?
গাছ আত্মসাতের বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার আবুল কালাম মাঃ রফিকুজ্জামান বলেন, মাদরাসাটির গাছ কাটার ব্যপারে আমাকে জানানো হয়নি। নীতিমালার বাইরে গিয়ে গাছ কাটার কোনো নিয়ম নেই বলেও জানান তিনি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইরুফা সুলতানা বলেন, অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে কমিটি গঠনের জন্য এমপি সাহেবের স্বাক্ষর ও চাহিদাপত্র জালিয়াতির অভিযোগ পেয়েছি। সে বিষয়ে অধ্যক্ষ হাফিজুর রহমানকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে আসতে বলা হয়েছে। গাছ বিক্রির বিষয়ে তিনি বলেন, বিষয়টি খোঁজ খবর নিয়ে অনিয়ম পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
উপজেলার দক্ষিণসাগর-মাড়ুয়া-চারাবাড়ি ইউনাইটেড (ডিএমসিইউ) আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা হাফিজুর রহমান এমপির ডিওলেটার ও স্বাক্ষর জালিয়াতি করে মাদরাসার ব্যবস্থাপনা কমিটিতে নিজের পছন্দের ব্যক্তিকে সভাপতি ও সদস্যদের নাম প্রস্তাব করে বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডে অনুমোদনের জন্য জমা দেয়ার বিষয়টি ফাঁস হয়ে পড়ায় সংসদ সদস্য তাঁর বিরুদ্ধে জালিয়াতির অভিযোগে ব্যবস্থা নেয়ার উদ্যোগ নেন। বিষয়টি বিভিন্ন স্থানীয় ও জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশ হলে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।
ব্যবস্থাপনা কমিটিতে মাদরাসা অধ্যক্ষ তাঁর পছন্দের ব্যক্তি মার্কিনযুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক তবিবর রহমান খানকে সভাপতির পদে প্রস্তাব করেন। সদস্য পদেও অধক্ষের অনুগতদের নাম দেয়া হয়। অথচ অভিযোগ রয়েছে কমিটিতে মাদরাসাটির জমিদাতা সদস্যের নামও বাদ দেওয়া হয়।
স্থানীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর জেনারেল (অব.) অধাপক ডাক্তার নাসির উদ্দিন বলেন, ‘যে এডহক কমিটি রয়েছে তাঁর জন্য ডিও দিয়েছিলাম। সে কমিটির মেয়াদ ২০২২ সালের জানুয়ারীতে শেষ হবে। নতুন কমিটির সভাপতির জন্য নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান মাষ্টার সিরাজুল ইসলামকে ডিও দেয়ার পরও তাঁকে বাদ দিয়ে আমার ডিও এবং স্বাক্ষর জালিয়াতি করে কমিটি জমা দেন। মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডে আমি খোঁজ নিয়ে বিষয়টি জানতে পারি। বিষয়টি নিয়ে পত্রপত্রিকায় বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশের পর ওই অধ্যক্ষ স্থানীয় একটি পত্রিকায় প্রতিবাদ দিয়েছেন বলে শুনেছি। যা তাঁর নির্লজ মিথ্যাচারের আরেকটি উদাহরণ। গাছ কেটে নেয়ার বিষয়ে সংসদ সদস্য বলেন এ বিষয়টিও শুনেছি। ওই অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে আরও অনেক অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে। দ্রুতই তাঁর বিরুদ্ধে সকল বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।
তবে মাদরাসাটির ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও জগদীশপুর ইউপির বিদায়ী চেয়ারম্যান তবিবর রহমান খান মার্কিনযুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করায় তাঁর বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।