চৌগাছার হাকিমপুর ইউনিয়নে কোন দলের প্রার্থী হচ্ছেন আগামী চেয়ারম্যান ??

0
1077

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় বেশ জোরেশোরে শুরু হয়েছে ইউনিয়ন নির্বাচনের প্রচারনা।
বেশ কিছুদিন আগে থেকে শুরু হলেও সম্প্রতি বিভিন্ন ইউনিয়নে প্রার্থীদের প্রচারনার ব্যাপকতা রীতিমতো প্রতিযোগিতায় রুপ নিয়েছে।

উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে ৮নং হাকিমপুর ইউনিয়নটি বরাবরই বিএনপি এবং জামাতের দখলে। স্বাধীনতার পর শুধুমাত্র ১৯৯৭ সালেই মরহুম আজিজুর রহমান বিএনপির এজাজুল হক হরা মিয়া এবং আওয়ামী বিদ্রোহী প্রার্থী তারিক মোহাম্মদ তরিকুল ইসলামকে হারিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচীত হয়েছিলেন।

বিগত ১০ বছর উপজেলা বিএনপির সাবেক দপ্তর সম্পাদক ও বর্তমান উপজেলা বিএনপির যুগ্ম-আহ্বায়ক মাসুদুল হাসান এই ইউনিয়নের নির্বাচীত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

২০১৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকাবস্থায়ও নৌকা প্রতিকের চেয়ারম্যান প্রার্থী বর্তমান উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হাফিজুর রহমানকে পরাজিত করেই চেয়ারম্যান নির্বাচীত হয়েছিলেন হাসান।

এবার এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেতে প্রায় ৭/৮ জন প্রার্থী দৌড়ঝাপ শুরু করেছেন। এই দৌড় ঝাপের মধ্যে গতবারের বিদ্রোহী প্রার্থীদের পাশাপাশি আছেন দলীয় কর্মী হত্যা মামলার আসামীসহ আওয়ামী লীগের নতুন মুখ।

চৌগাছা উপজেলার ২০১৬ সালে ৪ঠা জুন ইউনিয়ন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

স্থানীয় নেতাদের মতে জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহ বা আগে পরে চৌগাছা উপজেলার ইউনিয়ন গুলোর নির্বাচন হতে পারে। জনপ্রিয়তা যাচাই এবং স্থানীয় রাজনীতি ও গ্রুপিং’র কারনে এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নির্বাচনে জয় আকাশ কুসুম কল্পনা হয়ে দাড়িয়েছে বলেই অভিযোগ করেছেন স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি,সাধারন সম্পাদকসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

তবে গতবারের বিদ্রোহী প্রার্থীদের ইউনিয়নে মনোনয়ন দেবেনা দল, এ সংক্রান্ত খবর বিভিন্ন মাধ্যম থেকে জানা গেলেও বিদ্রোহীদের নাম পাঠানো হবে কিনা প্রশ্নের উত্তরে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মেহেদী মাসুদ চৌধূরী বলেন দলের কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুয়ায়ি কাজ করা হবে। তবে যেহেতু এখনো তফসিল ঘোষনা হয়নি এবং এখনো কেন্দ্র থেকে কোনো নির্দেশনা আসেনি তাই আগাম মন্তব্য করা যাচ্ছেনা।

ইতিমধ্যে ইউনিয়ন নির্বাচনে দলীয় প্রতিকে চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে আগ্রহ প্রকাশ করে দৌড়ঝাপ করছেন গতবারের নৌকা প্রতিক প্রাপ্ত উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাফিজুর রহমান। গত নির্বাচনে নৌকা প্রতিক পেয়ে পরাজিত হাফিজুর রহমান বললেন,শুধুমাত্র দলীয় গ্রুপিং এর কারনেই গতবার আমি ফেল করেছিলাম।
মনোনয়ন চাইবেন দলীয় কর্মী হত্যা মামলায় অভিযুক্ত (২০১৪ সালের ফজলু হত্যাকান্ড) উপজেলা আওয়ামী লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক মাষ্টার তসলিমুর রহমান মনোনয়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। নিজেকে জনপ্রিয় করতে রাজনীতির মাঠে রয়েছেন তিনি।

উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য মামুন কবির মনোনয়নের জন্য ছুটছেন ইউনিয়নের সকল নেতৃবৃন্দ ও ভোটারদের বাড়ি বাড়ি। ইউনিয়ন সদরের তারুন্যের পছন্দ এ নেতাও মনোনয়ন প্রত্যাশি।

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মাহফিজুর রহমান ডেভিড একজন ভাল মানুষ। ২৭ বছর ধরে ঢাকাতে অবস্থান করলেও এবার ইউনিয়নের দলীয় মনোনয়ন প্রার্থী।

মনোনয়ন প্রত্যাশি সাবেক ছাত্রলীগ নেতা প্রভাষক রফিকুল ইসলাম গতবার নৌকা প্রতিকের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হলেও কোনো ভোটারের কাছে ভোট চাননি বলে দাবী করেছেন।

আছেন সাবেক উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা তারিক মোহাম্মদ। মনোনয় পেলে তিনি নির্বাচীত হবেন বলে দাবী করেন।

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আখতারুজ্জামান মিলন বলেন, যেসকল নেতারা স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে সাথে পাশে থাকে তাদেরই মনোনয়ন পাওয়া উচিত। তাই চুড়ান্ত মনোনয়ন যুদ্ধটি হাফিজুর রহমান, মামুন কবির এবং মাষ্টার তসলিমের মধ্যেই হওয়া উচিত বলে মনে করছেন তিনি।

তবে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশি যারাই আছেন তাদের বিপক্ষে শক্ত প্রতিপক্ষ হিসেবে শক্ত অবস্থানে দাড়িয়ে আছেন বিএনপির বর্তমান চেয়ারম্যান মাসুদুল হাসান।

ইউনিয়ন নির্বাচনে দলীয় প্রতিকে ভোট না করার বিএনপির দলীয় সিদ্ধান্ত শেষ পর্যন্ত কোন দিকে যাবে তার উপরই এই মাসুদুল হাসানের নির্বাচনে জয় পরাজয় নির্ভর করছে বলে মনে করছেন স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

বিএনপির এ নেতাকে পরাজিত করে নৌকার বিজয় ছিনিয়ে আনতে উপজেলা এবং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও সকল সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দের এক কাতারে কাধে কাধ মিলিয়ে কাজ করার কোন বিকল্প নেই বলেই জানিয়েছেন চৌগাছার হাকিমপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।