চৌগাছার ঐতিহ্যবাহি বলুহ মেলা বন্ধে স্থানীয়দের লিখিত আবেদন!

0
325

বিশেষ প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছা হাজরাখানার ঐতিহ্যবাহি পীর বলুহ দেওয়ান মেলা বন্ধের জন্য পৃথকভাবে আবেদন জানিয়েছেন স্থানীয়রা।
গত ৪ সেপ্টেম্বর চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর হাজরাখানা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক এবং গত ২৮ আগস্ট মেলায় অশ্লীল নৃত্য, নোংরামি, চাঁদাবাজি, মারামারি বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনে গ্রামবাসীরা একটি গণসাক্ষরকৃত লিখিত আবেদন জমা দেন। এছাড়া স্থানীয় শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার কথা বিবেচনা করে অপর একটি লিখিত আবেদনে মেলাটি বন্ধের জোর দাবি জানিয়েছেন।
এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইরুফা সুলতানা বলেন, বিষয়গুলো তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য তিনজন কর্মকর্তাকে নিয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছিল। সেই তদন্ত রিপোর্ট গত সোমবারই ( ৫সেপ্টেম্বর) ডিসি স্যারের কাছে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলি জানায়, করোনা অতিমারির কারনে গত তিন বছর মেলা বন্ধ থাকলেও চলতি বছর স্থানীয় নারায়নপুর ইউপি চেয়ারম্যান শাহিনুর রহমান শাহিনকে সভাপতি এবং হাজরাখানা গ্রামের ইউপি সদস্য মনিরুজ্জামান মিলন সদস্য সচিব করে একটি কমিটি যশোরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) বরাবর মেলা অনুষ্ঠানের অনুমতি চেয়ে আবেদন করেন। আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে এক সপ্তাহের অনুমতি চাওয়া হয়েছে আবেদনে। আবেদনের প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসক চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে এ বিষয়ে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশনা দেন। নির্দেশনার আলোকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইরুফা সুলতানা চৌগাছা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, উপজেলা (প্রাথমিক) শিক্ষা কর্মকর্তা ও উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তার সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠন করে দেন।
তদন্ত কমিটির সদস্য উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম মোঃ রফিকুজ্জামান বলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে বিষয়টি নিয়ে গত ৪ সেপ্টেম্বর তদন্ত করা হয়। এসময় শুনানিকালে গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি মনিরুজ্জামান মিলন ও প্রধান শিক্ষকসহ অভিভাবক ও গ্রামবাসীদের সাথে কথা বলা হয়। এছাড়াও মেলার নামে মাদক ও জুয়া, চাঁদাবাজি, মারামারি, অশ্লীলতা বন্ধের জন্য বিদ্যালয়ের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক, গ্রামবাসীরা গণ স্বাক্ষরিত এবং অভিভাবকরা আলাদাভাবে তিনটি লিখিত আবেদন করেছেন। এসব বিষয় বিবেচনা করে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের শিক্ষার পরিবেশ রক্ষা, স্থানীয় গ্রামবাসীর বসবাসের পরিবেশ এবং চাঁদাবাজি, মারামারি, অশ্লীলতা ও মাদক সেবন থেকে যুব সমাজকে রক্ষার জন্য মেলা বন্ধ রাখা যেতে পারে বলে সুপারিশ করেছে তদন্ত কমিটি। তিনি বলেন এই প্রতিবেদন গত ৫ সেপ্টেম্বর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
স্থানীয়রা জানান, প্রতি বাংলা সনের ভাদ্রমাসের শেষ মঙ্গলবার উপজেলার নারায়নপুর ইউনিয়নের হাজরাখানা গ্রামে পীর বলুহ দেওয়ানের দরগাহ ঘিরে দীর্ঘ দিন ওরস শরীফ ও মেলা হয়ে আসছে। আগে মঙ্গলবার মেলার প্রধান দিন, বুধবার বউবাজার এবং বৃহস্পতিবার হতো ভাঙাবাজার। তবে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে মাজারকে কেন্দ্র করে চৌগাছা-মহেশপুর সড়কের হাজারাখানা পীর বলুহ দেওয়ান দাখিল মাদরাসা পর্যন্ত প্রায় তিন কিলোমিটার রাস্তার দুই ধার ঘেষে বৃহৎ আকারে মেলা শুরু হয়। ৭ থেকে ১৫ দিনব্যাপী জেলা প্রশাসকের অনুমতি নিয়ে এই মেলা অনুষ্ঠিত হতে থাকে। সাম্প্রতিকালে মেলাকে কেন্দ্র করে ব্যপক জুয়াখেলা, মাদকের বিকিকিনি, চাঁদাবাজি, মারামারি বেড়েই চলেছে। মেলার চলাকালিন আশেপাশের গ্রামগুলির নিন্মবর্ণের সংখ্যালঘু পরিবারগুলির মেয়েদের নিগৃহীত হওয়ার ঘটনাও ঘটে চলে নিরবে নিভৃতে। যদিও সম্মান এবং ভীতির কারনে মুখ খুলতে চাননা তারা। সর্বশেষ ২০০৯ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর রাতে মেলা থেকে ফিরে চৌগাছা বাজারে নৃশংসভাবে খুন হন তৎকালীন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পাশাপোল ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ইমামুল হাসান টুটুল। তাকে নির্মমভাবে বোমা মেরে ও গুলি করে উপজেলা আওয়ামীলীগের অফিসের পাশেই হত্যা করা হয়। এছাড়া ২০০৩ সালে মেলায় তৎকালীন বিএনপির নেতাদের আশ্রিত সন্ত্রাসীরা মেলায় ব্যপক বোমাবাজির ঘটনা ঘটায়। যাতে ঘটনাস্থলে ও পরবর্তীতে হাসপাতালে ৩জন নিহত হন। পরে বোমাবাজদের একজনও মারা যায়।