চৌগাছায় অবৈধভাবে বিক্রির আগে ওএমএসের ৫ বস্তা চাল আটক

0
100

রায়হান হোসেন,চৌগাছা (যশোর) সংবাদদাতা:

যশোরের চৌগাছায় ওএমএস’র ৫ বস্তা চাল অবৈধভাবে বিক্রির আগেই আটক করেছে স্থানীয় জনগন। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে উপজেলার কুঠিপাড়া মোড় থেকে বাজারে বিক্রির উদ্দেশ্যে পাঠানো ওএমএস ডিলার এসএম তবিবর রহমানের ৫বস্তা ওএমএস’র চাল ভ্যানসহ আটক করে স্থানীয়রা। ডিলার এসএম তবিবর রহমান উপজেলার চানপুর গ্রামের মরহুম হাজী মোর্তজ আলীর ছেলে এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এসএম হাবিবুর রহমানের আপন ছোট ভাই।
সেদিন সন্ধ্যায় এই ওএমএসের চাল আটকের সংবাদে চৌগাছা থানার এসআই এনামুল ঘটনাস্থলে উস্থিত হয়ে ভ্যান চালক ও ভ্যানসহ চালগুলো জব্দ করেন। এরকিছুক্ষন পরেই উপজেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা প্রকৌশলি এনামুল হক ও সহকারি কমিশনার (ভ’মি) কাফী বিন কবির ঘটনাস্থলে পৌছান। রাত ৯টার দিকে উপজেলা সহকারি উপ খাদ্য পরিদর্শক শাহিন আক্তার ঘটনাস্থলে এসে চাল গুলো ওএমএস’র চাল বলে নিশ্চিত করেন। চাল আটকের পর থেকেই স্থানীয় সাংবাদিকরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন।
ওই রাতেই ঘটনার সত্যতা যাচাই করতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রকৌশলি এনামুল হক,সহকারি কমিশনার (ভ’মি) কাফী বিন কবির, গোয়েন্দা পুলিশের এসআই বজলু, চৌগাছা থানার এসাআই এনামুল,এসআই রাজেশ,এএসআই সুমন,সহকারি উপখাদ্য পরিদর্শক শাহিন আক্তার ডিলার এসএম তবিবর রহমানের গুদামে অভিযান পরিচালনা করেন। সেখানে প্রায় ১ঘন্টা পরে ডিলার এসএম তবিবর রহমানের দুই ছেলে গুদামের চাবি নিয়ে হাজির হন। নির্বাহী কর্মকর্তা উপস্থিত সাংবাদিকদের সামনে ঘটনায় অভিযুক্ত জিমের কাছ থেকে মাষ্টার রোলের কাগজপত্র এবং যে বস্তায় ভরে চাল বাজারে পাঠানো হয়েছিল অনুরুপ আরো বস্তা সেই গুদাম থেকে জব্দ করেন।
জানাযায়, ওএমএস’র ডিলার এসএম তবিবর রহমানের ছোট ছেলে এসএম জিম বাবার এই ব্যবসা দেখাশুনা করেন। ট্যাগ অফিসার বাদেই গত দুই দিন ধরে তিনি ওএমএসের চাল বিক্রি করছেন। ট্যাগ অফিসার না থাকলে কিভাবে আপনি এই চাল বিক্রি করছেন নির্বাহী কর্মকর্তার এই প্রশ্নের কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি।
স্থানীয়রা জানিয়েছেন ঘটনার দিন বিভিন্ন গরীব অসহায় মানুষ এই ওএমএসের চাল কিনতে গেলে তাদেরকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। এরপরে সন্ধ্যার দিকে মাছের খাদ্যের বস্তায় ভরে ৫ বস্তা চাল বাজারে নিয়ে যাওয়ার তারা সেটিকে থামান। পরে ভ্যান চালকে সাথে কথা বলে নিশ্চিত হয়ে তারা থানা পুলিশকে খবর দেন। তবে ডিলারের ছেলে এসএম জিম জানান তিনি কোনো চাল ভ্যানে করে বাজারে পাঠাননি।
তবে আটককৃত ভ্যান চালক নবম শ্রেনীর ছাত্র হুসাইন বার বার দাবী করেন এই চাল এসএম জিমই নিজ মাথায় করে তার ভ্যানে উঠিয়ে বাজারের লতিফের আড়তে দিতে বলেছে।
এঘটনায় বুধবার ওএমএস ডিলার এসএম তবিবর রহমানের ডিলারশিপ বাতিল করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আশরাফুজ্জামান ।
ঘটনা তদন্ত কর্মকর্তা এসআই এনামুল জানিয়েছেন ভ্যান চালক হুসাইন ও অভিযুক্ত ডিলারের ছেলে এসএম জিমের জবানবন্দি নেওয়া হয়েছে। পরবর্তী সিদ্ধান্ত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিবেন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রকৌশলি এনামুল হক জানিয়েছেন,“ ঘটনার তদন্ত রিপোর্ট আসার পরেই যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
আটককৃত ভ্যান এবং ওএমএসের ৫ বস্তা চাল। ভ্যান চালককে জিজ্ঞাসা করছেন সহকারি কমিশনার (ভ’মি) কাফী বিন কবির।