চৌগাছায় আবারো কিলার শামীমের সন্ত্রাসী হামলা! থানায় অভিযোগ

0
89

বিশেষ প্রতিনিধি

মানুষ খুন থেকে শুরু করে ভয়ঙ্করসব সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে সর্বদা শীর্ষে যশোরের চৌগাছার শামীম কবির ওরফে কিলার শামীম (৪৫)।
শামীম উপজেলার জাহাঙ্গীরপুর গ্রামের মৃত শামসুল হকের ছেলে। ।
১৭ বছর সাজাসহ ৬টি খুন, অস্ত্রসহ ১৪ টি মামলা নিয়ে পুলিশের তালিকায় শীর্ষ সন্ত্রাসী কিলার শামীম সব সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ধরাছোয়ার বাইরে।

মূর্তিমান আতঙ্ক কিলার শামীম ও তার সঙ্গী ইয়াসিন গত ২৪ নভেম্বর সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলার জাহাঙ্গীরপুর গ্রামের পূর্বপাড়ায় আব্দুল নামে এক যুবকের উপর শর্টগান দিয়ে গুলি চালায়।
গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে আব্দুলের লুঙ্গি ছিড়ে বেরিয়ে যায়।

আব্দুল একই গ্রামের সোলেমানের ছেলে। পরে গ্রামবাসিরা অস্ত্রসহ শামীম ও তার সঙ্গী ইয়াসিনকে ধরে বেদম পিটুনি দেয়। মার খেয়ে শামীম ও ইয়াসিন মটর সাইকেল ফেলে পালিয়ে যায়।


এ ঘটনায় ২৫ নভেম্বর আব্দুল বাদি হয়ে কিলার শামীম ও ইয়াসিনকে অভিযুক্ত করে চৌগাছা থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন।

পুলিশ রাতেই ঘটনাস্থল থেকে ২টি বন্দুকের গুলির খোসা, একটি মটর সাইকেল, অর্ধেক বোতল মদ আলামত হিসেবে জব্দ করেছে বলে গ্রামবাসিরা জানিয়েছেন।
উল্লেখ্য ২০১৩ সালে ২৬ সেপ্টেম্বর যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও চৌগাছার সিংঝুলি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান মিন্টুকে প্রকাশ্য দিবালোকে শত লোকের সামনে শর্টগান দিয়ে গুলি করে হত্যা করে এই কিলার শামীম।

সেই থেকে গত দশ বছর ধরে সেই অবৈধ শর্টগান দিয়ে একের পর এক ভয়ঙ্কর সব সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করে চলেছে শামীম। ২৪ অক্টোবর ২০২০ কলেজ ছাত্র রায়হানকে শর্টগান ঠেকিয়ে অপহরন, চলতি বছর ৯ ফেব্রুয়ারি জগন্নাথপুর গ্রামে একজনকে শর্টগান দিয়ে হুমকি দেয় শামীম। এপ্রিল মাসে স্ত্রী-কন্যার সম্ভ্রম বাচাতে বাড়ি ছেড়ে পলাতক জাহাঙ্গীরপুর গ্রামের কাঠ মিস্ত্রি আখতারুল জানিয়েছিলেন, তাদেরকে ভয় দেখাতে শর্ট দিয়ে গুলি ছুড়তো কিলার শামীম। তার কিছুদিন আগে রাতে একই গ্রামের এক হিন্দু প্রবাসির স্ত্রীকে ভয় দেখাতেও শর্টগান দিয়ে আকাশে গুলি ছুড়েছিল শামীম। এছাড়া গত ২১ নভেম্বর বুধবার রাতে মাতাল অবস্থায় নিজ বাড়ির মধ্যে শর্টগান দিয়ে বাতাসে গুলি ছোড়ে এই সন্ত্রাসী। কিন্তু আজ পর্যন্ত সেই শর্টগান উদ্ধার করতে পারেনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনী।
জানাযায়,১৯৯৬ সালে মকবুল এবং ১৯৯৯ সালে শহিদুলকে কুপিয়ে ও গুলি করে খুন করে শামীম ও তার বাহিনী। এরপরেই খুনি হিসেবে আত্নপ্রকাশ করে শামীম কবির।


এরপরে ২০০৪ সালে শামীম গরীবপুর গ্রামের মান্নানকে ভারতে নিয়ে খুন করে গুম করে।

২০১২ সালে গরীবপুর গ্রামের শিশু সৌরভকে অপহরন করে হত্যা করে শামীম ও তার বাহিনী।

২০১৬ সালে ১৯ মার্চ যশোর সাত মাইলে কুখ্যাত খুনি মোখলেসুর রহমান নান্নুর সাথে বিএনপি নেতা ইদ্রিসকে খুনের নেতৃত্বে ছিল কিলার শামীম। সে ঘটনায় চিনতে না পারায় তার বিরুদ্ধে মামলা হয়নি।
সর্বশেষ ২০১৭ সালে ১১ জানুয়ারি যশোর কোতয়ালী থানায় তার বিরুদ্ধে একটি হত্যা ও অস্ত্র মামলা হয়। ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের পরে ভারত থেকে দেশে ফেরে শামীম। নিজ গ্রামে ফিরে মা বাবার সামনে এক মেয়েকে ধর্ষনের চেষ্টা করলে সে তার বালিশের নীচে লুকিয়ে রাখা দা দিয়ে তার মুখের বা পাশের্^ কোপ মারে। সে ঘটনায় শামীম দীর্ঘ দিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিল। তবে তার মুখের সেই কাটা দাগ আজো বিদ্যমান। বিভিন্ন খুন ও সন্ত্রাসী মামলায় দীর্ঘ দিন ভারতে লুকিয়ে থাকা শামীম ভারতের বনগা,বয়রা,বাগদা অঞ্চলে বিভিন্ন হত্যাকান্ডে অংশ নিয়েও আলোচিত হয়েছিল। বনগা অঞ্চলের শীর্ষ সন্ত্রাসী বলয়-সাত্তারের শেল্টারে থাকাবস্থায় এসকল খুনের মিশনে অংশ নেয় শামীম।
সর্বশেষ ২০১৯ সালের জাতীয় নির্বাচনের পরে স্থানীয় আওয়ামী নেতাদের সরাসরি মদদে নিম্ন আদলতে আত্নসমার্পন করে উচ্চ আদালত থেকে জামিনে এসে আবারো সন্ত্রাসী কর্মকান্ড শুরু করে শামীম। সম্প্রতি এই সস্ত্রাসীকে সামাজিক মাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে উজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারন সম্পাদকের ছবির সাথে তার ছবি দিয়ে ব্যানার ফেস্টুন প্রচার করছে তার বাহিনীর সদস্যরা।

সেখানে তাকে ৩নং সিংহঝুলি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে প্রচার করা হলেও তাকে সিংহঝুলি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়নি বলে জানিয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মেহেদী মাসুদ চৌধূরী।
এতো ক্ষমতা থাকা কিলার শামীম গত শুক্রবার যেনো হঠাৎ করেই ক্ষমতা হারিয়েছে। শুক্রবারের সন্ত্রাসী হামলার খবর শুনেই চৌগাছা থানার নবাগত ওসি ইকবাল বাহার চৌধূরি নিজে পুলিশ বহর নিয়ে ঘটনাস্থলে হাজির হয়ে অভিযান শুরু করেন। এই প্রথম কোনো ওসি এই সন্ত্রাসী ধরতে অভিযান চালালেন। তবে তিনি পৌছানোর আগেই পালিয়ে যায় কিলার শামীম।
এ বিষয়ে চৌগাছা থানার ওসি ইকবাল বাহার চৌধূরি বলেন অভিযোগ পেয়েছি এবং সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত আছে।