চৌগাছায় ইউনিয়ন ভোটে কদর বেড়েছে জামাত-বিএনপির নেতা কর্মীদের!

0
351

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় ইউনিয়ন ভোটকে কেন্দ্র করে কদর বেড়েছে জামাতে ইসলামের নেতাকর্মীদের। ফুরফুরে মেজাজে ভোটের মাঠে সক্রিয় আছেন বিএনপির নেতাকর্মীরাও। নির্বাচনী প্রচারে জামাত বিএনপির নেতা কর্মীদের সরব ভূমিকাও তাই চোখে পড়ার মতো। বিভিন্ন ইউনিয়নের ভোট জরিপে এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের বক্তব্যেও তেমনটাই ফুটে উঠেছে।
আগামী ১১ নভেম্বর সারাদেশে দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে থাকছে চৌগাছা উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন। উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে ইতিমধ্যে ১নং ফুলসারা ও ৫নং চৌগাছা সদর ইউনিয়নে নৌকা প্রতিকের প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় জয়লাভ করেছেন। ৬নং জগদিশপুর ইউনিয়নে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক ও নৌকা প্রতিকের প্রার্থী তবিবুর রহমান খান নির্বাচন থেকে সরে দাড়িয়ে আপন ভায়ের ছেলে উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ও বিদ্রোহী প্রার্থী ঘোড়া প্রতিকের আজাদুর রহমান খানকে সমর্থন করেছেন। বাকি ৮টি ইউনিয়নের মধ্যে শুধুমাত্র ৭নং পাতিবিলা এবং ৮নং হাকিমপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতিকের বিরুদ্ধে শক্ত স্বতন্ত্র (বিএনপি) প্রার্থী থাকলেও অন্যান্য ইউনিয়নে নৌকা প্রতিকের বিরুদ্ধে নিজ দলের বিদ্রোহী প্রার্থীরাই শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী।
এসকল বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিষয়ে কিছুদিন আগে উপজেলা আওয়ালীগের এক সভায় নির্বাচন থেকে সরে না দাড়ালে বহিস্কারের হুমকি দিয়েছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারা। তারপরওে থেমে নেই বিদ্রোহী প্রার্থীরা। বরং দুএকটি ছোটখাট সহিংস ঘটনা ছাড়া বেশ উৎসব মুখর পরিবেশেই এগিয়ে চলেছে নির্বাচনী প্রচারনা।
বিভিন্ন সূত্র বলছে, ইউনিয়নে নৌকা প্রতিকের বিরুদ্ধে ভোট করার জন্য ইতিমধ্যে উপজেলা জামাত ও বিএনপির নেতৃবৃন্দ তৃনমুলের নেতাকর্মীদের নির্দেশ দিয়েছেন। সে মোতাবেক মঙ্গলবার বিকালে উপজেলা সদরে জামাতের একটি বৈঠক হয়েছে বলেও জানাগেছে। বৈঠকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন উপজেলা জামাতের আমির গোলাম মোর্শেদ। তবে বৈঠকটি শুধুমাত্র সাংগঠনিক কাজের জন্য, নির্বাচনের জন্য না বলেও দাবী করেছেন তিনি। তিনি আরো বলেন, ভাল লোককে ভোট দিতে বলা হয়েছে। তার মধ্যে কি নৌকা প্রতিকের প্রার্থীরা আছেন উত্তরে তিনি বলেন অনেকের আত্নীয় স্বজন বা প্রতিবেশি নৌকার প্রার্থী থাকতে পারে। তারা ভাল মনে করলে তাকে ভোট দেবে। তবে উপজেলা জামাতের কোনো নেতা নির্বাচনে জড়িত নেই বলেও দাবী করেন গোলাম মোর্শেদ।
অন্যদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অন্য এক জামাত নেতা বললেন,“নৌকা প্রতিকের বিরুদ্ধে না, যে ইউনিয়নের যে অবস্থা সেটি বুঝেই ইউনিয়ন নেতাকর্মীদের কাজ করতে অনুরোধ করা হয়েছে”।
উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক জহুরুল ইসলাম জানিয়েছেন,“যেহেতু আমাদের দল নির্বাচনে অংশগ্রহন করছেনা,সেহেতু দলীয় ব্যানারে বা সাংগঠনিকভাবে নির্বাচনে সক্রিয় হওয়ার সুযোগ নেই। তবে যে সকল ইউনিয়নে বিএনপির নেতারা স্বতন্ত্র ভাবে নির্বাচন করছেন সেখানে ব্যক্তিগত সম্পর্কের মানুষজনকে তাদের জন্যে কাজ করতে অনুরোধ করছি”।
অন্যদিকে উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে একাধিক মেম্বর প্রার্থী এবং প্রায় সকলেই আওয়ামী ঘরনার হওয়ার সুযোগে নিজেদেরকে সুসংগঠিত করে নৌকা ডুবাতে সক্রিয় হয়েছে জামাত-বিএনপি বলছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারা।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হুমায়ুন কবির সোহেল বলেন, উপজেলার সবকটি ইউনিয়নে জামাত-বিএনপির সক্রিয় অবস্থান চোখে পড়ার মতো। মূলত স্থানীয় মেম্বর প্রার্থীদে ঘাড়ে ভর করেই তারা নৌকার বিরুদ্ধে সক্রিয়। তবে কোনো কানো ইউনিয়নে বিদ্রোহী বা স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষেও কাজ করে চলেছে জামাত বিএনপির নেতা কর্মীরা।
উপজেলা আওয়ামী লীগের অন্য সাংগঠনিক সম্পাদক ও ২নং পাশাপোল ইউনিয়নের নৌকা প্রতিকের প্রার্থী অবায়দুল ইসলাম সবুজ বললেন,“আমার ইউনিয়নের জামাত-বিএনপির নেতা কর্মীরা এখনো কারো পক্ষে সক্রিয় হয়নি।
উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মাহাবুবুল আলম রিংকু বলেন শুধুমাত্র নির্বাচনী কৌশলের কারনেই জামাত বিএনপির মাঠ পর্যায়ের কিছু কর্মী সমর্থকরা নির্বাচনী মাঠে সক্রিয় রয়েছে। তবে ৮নং হাকিমপুর ও ৭নং পাতিবিলা ইউনিয়নে বিএনপির প্রার্থী থাকায় সেখানে নির্বাচনে সক্রিয় আছে উপজেলা বিএনপি ও জামাতের বেশ কিছু নেতা। বাকি ইউনিয়নের বেশ কয়েকটিতে এলাকা ভিত্তিক জামাতবিএনপির সম্পৃক্ততা থাকলেও উপজেলা পর্যায়ের নেতাদের অংশগ্রহন তেমন চোখে পড়ছেনা।
তবে এই ইউনিয়ন ভোটে জামাত বিএনপির ভোট যে বেশিরভাগই নৌকা প্রতিকের বিপক্ষে পড়বে তা মোটামুটি নিশ্চিত করেছেন নির্বাচনে অংশ নেওয়া মাঠ পর্যায়ের নৌকার নেতাকর্মীরা। এবং সেই ভোটেই প্রার্থীদের জয় পরাজয়ও অনেকটা নির্ভর করছে। তাই কদর বেড়েছে জামাত-বিএনপির নেতাকর্মীদের বলেই মনে করছেন তারা।