চৌগাছায় একজন নির্মান শ্রমিকের মৃত্যু নিয়ে ধ্রুম্রজালের সৃষ্টি

0
248

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছার হাকিমপুর ইউনিয়নের হাজিপুর গ্রামে শওকত খা (৫৫) নামে একজন নির্মান শ্রমিকের মৃত্য নিয়ে ধ্রুম্রজালের সৃষ্টি হয়েছে। নিহতের পরিবার এটাকে ইট মেরে হত্যার দাবী করলেও প্রত্যক্ষদর্শী,স্থানীয়রা এবং পুলিশ বলছে ঘটনা অন্যরকম।
শনিবার সকাল সাড়ে ১২টার দিকে ওই গ্রামের রাস্তায় এই ঘটনা ঘটেছে বলে ভূক্তভোগি পরিবার দাবী করেছেন। নিহত শওকত খা হাকিমপুর ইউনিয়নের হাজিপুর গ্রামের মৃত খিরাম খার ছেলে।
স্থানীয়রা এবং পুলিশ সূত্রে জানাগেছে,“শওকত খাকে ইট মারার ঘটনা ঘটেনি। বরংচো নিহতের ছেলেরা এসে ওই স্থানে উত্তেজনা সৃষ্টি করেছে”।
এদিন দুপুর ২টা ২ মিনিটে চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা.আরিফ জানিয়েছিলেন, শওকত খা নামে একজনকে (ব্রট ডেথ) আনা হয়েছে। পরে ৩টা ৩৭ মিনিটে অন্য আরও একজন কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা.আব্দুল্লাহ আল মামুন বললেন,“১২টা ৪০ মিনিটে শওকত খাকে (ব্রট ডেথ) হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর কারন সম্বন্ধে তিনি বলেন,“ এ ক্ষেত্রে ময়না তদন্তের রিপোর্ট ছাড়া মৃত্যুর কারন বলা যায়না।”
এদিকে ওই গ্রামের বাসিন্দা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য কামরুজ্জামান লাল্টু জানিয়েছেন,“শওকত খা আগে থেকেই অসুস্থ ছিল। তিনি মাঝে মাঝেই অসুস্থ হয়ে পড়তেন।”
তবে ঘটনার সময় নিহতের ছোট ছেলে শাওন (৮) তার সাথে ছিল বলে দাবী করেছেন। শাওন এবং নিহতের স্ত্রী সালেহা (৪৩) এই প্রতিদেকের সামনে শওকত খাকে হেলিকপ্টার মার্কার মহিলা মেম্বর প্রার্থী পলি আর তার ছেলে ইমরান ইট মেরেছে বলে দাবী করেছেন।
এদিকে যার বাড়িতে ঘটনা বলে নিহতের পরিবার দাবী করছেন সেই সেলিম মোল্লা বলেন,“আমার বাড়িতে কোনো গ্যানজাম বা ইট মারামারি হয়নি। শওকত খা আর পলি দুই জনই দুজনকে গালাগালি করেছিল। পরে শওকত খা আর কাজ করবে না বলে বাড়ি চলে যান।
ঘটনার বিষয়ে চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ জানিয়েছেন তদন্ত চলছে। তদন্ত অনুযায়ি আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।