চৌগাছায় সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের জন্যেই অপরাধী এলাকা হিসেবে চিহ্নিত সদর ইউনিয়নের তিন ওয়ার্ড

0
1257

নিজস্ব প্রতিনিধি

একর পর এক সন্ত্রাসী হামলা ঘটে চলেছে যশোরের চৌগাছা উপজেলার সদর ইউনিয়নের বেড়গোবিন্দপুর গ্রামে।
২০১৯ সালের উপজেলা নির্বাচনের পর থেকে গত ২১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ৮২ বছরের বৃদ্ধাসহ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এবং একজন যুবক মারাত্নক সন্ত্রাসী হামলার শিকারসহ প্রায় ডজনের বেশি মানুষ সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছেন চৌগাছা ইউনিয়নের এই ওয়ার্ডগুলোতে। মামলা হয়েছে একাধিক।
আধিপত্য বিস্তারসহ বিভিন্ন ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রায় সময়ই এই গ্রামগুলো (মনমথপুর,চানপুর এবং বেড়গোবিন্দপুর) উত্তেজিত থাকে। এসকল কারনেই সদর ইউনিয়নের এই তিনটি ওয়ার্ড বিশেষ অপরাধী এলাকা (ক্রাইম জোন) বলছিলেন চৌগাছা থানায় কর্তব্যরত এসআই বজলুর রহমান। চিহ্নিত ওয়ার্ডগুলো হচ্ছে ৫ নং মনমথপুর,৬ এবং ৭ নং বেড়গোবিন্দপুর গ্রাম।
প্রায় ৪০/৪২ বছর আগে পুনে নামে একজন আওয়ামী কর্মীকে হত্যার মধ্য দিয়েই অশান্ত হয়ে উঠে এই বেড়গোবিন্দপুর গ্রাম জানিয়েছেন স্থানীয়রা। বিভিন্ন সময়ে বাওড়ের মাছ ব্যবসাকে কেন্দ্র করে কখনো বা রাজনৈতিক কারনে অশান্ত থাকে এই গ্রাম।
বিড়ালে হাসের বাচ্চা নিয়ে যাওয়াকে কেন্দ্র করেও এই গ্রামে গোলযোগ হয়। এছাড়া কোনো কারন ছাড়াও অশান্ত হয়ে উঠা বেড়গোবিন্দপুর গ্রামের দুটি ওয়ার্ড গত উপজেলা নির্বাচনের পর থেকে অশান্ত হয়ে আছে। এ গ্রামে সন্ত্রাসী হামলায় একের পর এক আহত হচ্ছেন বৃদ্ধা, ক্ষমাতাসীন রাজনৈতিক নেতা এবং কর্মীরা। সর্বশেষ ২১ ফেব্রুয়ারি মহব্বত নামে এক যুবক সন্ত্রাসী হামলায় মারাত্নক আহত হয়ে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
বর্তমান প্রেক্ষাপটে যেকোন সময় এ গ্রামগুলোতে বিশেষ করে বেড়গোবিন্দপুর গ্রামের দুটি ওয়ার্ডে যে কেউ বড় ধরনের সন্ত্রাসী হামলার শিকার হতে পারেন ঘটতে পারে প্রানহানী জানিয়েছেন স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধা ও প্রবীনরা।
ভৌগলিক অবস্থানে উপজেলার বিখ্যাত বেড়গোবিন্দপুর বাওড় দিয়ে ঘিরে রাখা গ্রামটি তিনভাগে পরিচিত (পূর্ব,পশ্চিম ও মাঝের পাড়া) । গ্রামের মাঝ বরাবর একটি মাত্র ব্রিজ, সেটি পার হয়েই উপজেলা সদরে যাতায়াত করতে হয় গ্রামবাসিদের। ব্রিজ পার হয়ে চৌগাছা পৌরসভার চানপুর ও সদর ইউনিয়নের মনমথপুর গ্রামের ভিতর দিয়েই তাদের যাওয়া আসা। এজন্য এই দুটি গ্রাম সর্বদাই বেড়গোবিন্দপুর গ্রামের উপরে কর্তৃত্ব করে আসছে। যেকারনে এই চানপুর ও মনমথপুর গ্রামের নেতাদের গ্রুপেই গ্রুপিং হয় এ গ্রামে।
সরেজমিন তদন্তে কথা হয় পূর্বপাড়ার ৬নং ওয়ার্ডের আনছার আলী (৯০), জুনাব আলী (৮০),শাহাজান আলী (৭০), মিলন (৪২), জাকির আলী পশ্চিম পাড়ার ইকবাল হোসেন (৭০), রমজান আলী (৫৮) রবিউল বিশ্বাস (৬৩),আনিছুর রহমান (৬৮),মিজানুর রহমান (৬৮),আজিজুর রহমান (৫৬),৭নং ওয়ার্ডের মেম্বর জাহাঙ্গির আলম,ওয়াজেদ বিশ্বাস (৬০),শফিকুল ইসলাম (৫৫),রোকন (৫০) এবং মাঝের পাড়ার মাহাবুবুল আলম (৭৮), মোদ্দাসিরুল আলম (৫৯) এবং সন্ত্রাসী হামলায় আহত মাসুদা বেগম (৮২)সহ শতাধিক গ্রামবাসির সাথে।
তাদের বক্তব্য থেকে জানা যায়, বেড়গোবিন্দপুর গ্রামে ১৯৮০ সালে সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়া হত্যার পরের দিন খুন হন পুনে নামে একজন আওয়ামী কর্মী। সেই থেকে গ্রামবাসীরা স্থানীয়ভাবে দুটি গ্রুপে বিভক্ত। প্রথমটি সর্দারদের একটি অংশ নিয়ে বিশ্বাস গ্রুপ এবং সর্দারদের বাকি অংশকে সাথে নিয়ে মোল্লে মল্লিক গ্রুপ। গোষ্ঠিগত অবস্থানে পূর্বপাড়ায় সর্দার, পশ্চিম পাড়ায় বিশ্বাস ও মাঝের পাড়ায় মোল্লে মল্লিক গোষ্ঠির অবস্থান।
বিএনপির আমলে এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলেন বিএম হাবিব নামে একজন বিএনপি নেতা। তখন এই ওয়ার্ডের মেম্বর ছিলেন আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এসএম হাবিবুর রহমান। পরবর্তীতে তিনি এই ইউনিয়ন ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানও নির্বাচীত হয়েছিলেন।
বীর মুক্তিযোদ্ধা এসএম হাবিবুর রহমানকে চেয়ারম্যান বানানোর দাবীদার সাবেক ন্যাপ নেতা মাহাবুবুল আলম জানিয়েছেন শুধুমাত্র নৌকা প্রতিকে উপজেলা ভোট করার কারনেই গ্রামের সহিংসতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই গ্রামে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এসএম হাবিবের একচ্ছত্র আধিপত্য ছিল। কিন্ত গত উপজেলা নির্বাচনে তিনি দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে আনারস প্রতিকে ভোট করেন। স্থানীয় ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সাবেক উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলামসহ বিশ্বাসরা আনারস প্রতিকে এবং মোল্লে মল্লিকরা নৌকা প্রতিকে ভাগ হয়ে নির্বাচন করেন।
নৌকার পোষ্টার ঝুলানোকে কেন্দ্র করে ভোটের কয়েকদিন আগে মোল্লা গ্রুপের লোকজনকে মারধর করে বিশ্বাস গ্রুপ। সেই নির্বাচনে বেড়গোবিন্দপুর গ্রামে আবারো দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়েন আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা। ভোটের আগে পোষ্টার ভোটের পরের দিন মোল্লা গ্রুপের ৮২ বছরের মাসুদা বেগমকে তার নিজ বাড়িতে নৌকায় ভোট দেওয়ার অপরাধে সাবল দিয়ে পিটিয়ে পা ভেঙ্গে দেয় বিশ্বাস গ্রুপের সন্ত্রাসীরা। সেদিন মোল্লে মল্লিক গ্রুপের হাতে মার খায় বিশ্বাস গ্রুপের লোকজন।
২ এপ্রিল আবারো হামলার শিকার হয় বিশ্বাস গ্রুপ। সেদিন হামলায় রুনু নামে বিশ্বাস গ্রুপের একজনের হাত ভাঙ্গে।
২০২০ সালে ১০ জুলাই মোল্লে মল্লিক গ্রুপের সন্ত্রাসী হামলায় উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইব্রাহীম হোসেইন মারাত্নক আহত হয়ে এখনো চিকিৎসাধীন। এসকল ঘটনায় মোল্লে মল্লিক গ্রুপের বিরুদ্ধে প্রায় ৪/৫টি মামলা আছে। সবশেষ গত ২১ ফ্রেব্রুয়ারি আছরের পরে মোল্লে মল্লিক গ্রুপের মহব্বত নামে এক যুবক সন্ত্রাসী হামলায় আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। সে ঘটনায় থানায় অভিযোগ দেওয়া হলেও এখনো মামলা রেকর্ড হয়নি।
শুধূমাত্র আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিশ্বাস গ্রুপ এখন কোনঠাসা হলেও মামলার ভারে নুয্য মোল্লে মল্লিক গ্রুপ।
দিনে দিনে রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট পরিবর্তন হয়ে দীর্ঘদিন দেশ পরিচালনায় আওয়ামী লীগ। সেসময়ে যারা বিএনপি নেতা বা কর্মী ছিলেন তাদের মধ্যে অনেকে এখন আওয়ামী লীগের নেতা বা কর্মী। তারাই সকল ঝামেলার কারন বলেই জানিয়েছেন স্থানীয় সকলেই।
তবে এককভাবে আওয়ামী লীগে ঢ়ুকে পড়া বিএনপি কর্মীদের দোষারোপ করা হলেও,বেড়গোবিন্দপুর গ্রাম আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক গ্রুপিং এর কারনেই উত্তেজিত বলেই জানিয়েছেন সাধারন গ্রামবাসিরা।
জানতে চাইলে সকল গ্রুপিং এবং ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে সদর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম বলেন গত উপজেলার নির্বাচনকে কেন্দ্র করেই ৬ ও ৭ নং ওয়ার্ডে উত্তেজনা, হামলা মামলা বৃদ্ধি পেয়েছে। এ যাবৎ প্রায় ডজনেরও বেশি মানুষ সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছেন। এসকল কিছুর পিছনে স্থানীয় আওয়ামী লীগে বিএনপির প্রবেশ ও তাদের অংশগ্রহনকে দায়ি করেন তিনি। রফিকুল বলেন ওই দুই ওয়ার্ডকে শান্ত করে জনজীবনে স্বস্তি ফিরিয়ে আনতে আমি সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছি।
জানতে চাইলে চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ বলেন, পরিস্থিতি জানতে আজ সকালে (শুক্রবার) আমি বেড়গোবিন্দপুর গ্রামে গিয়েছিলাম। পূর্ব,পশ্চিম ও মাঝের পাড়ার সকলের কথা শুনেছি। এলাকায় শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে সকলকেই অনুরোধ করেছি। দুষ্টু (সন্ত্রাসী) লোকের সংখ্যা কম। কাজেই স্থানীয়ভাবে সকলের সহযোগিতা পেলেই খারাপ লোকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা সম্ভব। তবে কেউই আইনের উর্দ্ধে না। ওই গ্রামের শান্তিপ্রিয় নিরীহ জনগনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আমরা কাজ করছি।