চৌগাছায় এক্সরে মেশিন কেনায় দূর্নীতির ঘটনায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দু’জনকে শোকজ করলেন টিএইচও

0
500

জিয়াউর রহমান রিন্টু

 
চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পোর্টএবল এক্সরে মেশিন কেনায় চমক লাগানো সেই দূর্নীতির ঘটনায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দুজন কর্মচারিকে শোকজ (কারন দর্শানো) করেছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা.লুৎফুন্নাহার লাকি।
শনিবার বেলা ১২ টার সময় ষ্টোরকিপার ইমরান হোসেন ও মেডিকেল ট্যাকনোলজিষ্ট (এক্সরে অপারেটর) জাহাঙ্গির আলমকে কারন দর্শানোর চিঠি বাহক দিয়ে হাতে হাতে পৌছে দেওয়া হয়। কারন দর্শানোর চিঠি পেয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন তারা । চিঠিতে তাদেরকে (এক কর্ম দিবস) রবিবারের মধ্যে জবাব দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছেন চিঠি প্রাপ্তরা।
উল্লেখ্য চৌগাছা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে আরো অত্যাধুনিক করতে উপজেলার এডিবির ২০১৯-২০ অর্থ বছরের বরাদ্দ থেকে সাড়ে ৩ লাখ মূল্যের একটি পোর্টএবল এক্সরে মেশিন কেনার জন্য উপজেলা থেকে বরাদ্দ দেওয়া হয়। দরপত্রের মাধ্যমে আরকে এন্টারপ্রাইজ ২৯ জুন সেই এক্সরে মেশিনটি হাসপাতালে সরবারহ করেন। সেদিন আরকে এনন্টার প্রাইজের মালিক কবির হোসেন এক্সরে মেশিনটি হাসপাতালে সরবরাহ করলেও কোন কাগজপত্র দেননি বলেই জানান ষ্টোরকিপার ইমরান হোসেন।
পরের দিন ৩০ জুন কবির হোসেন সেই এক্সরে মেশিনটি হাসপাতালে চালু করেন। তখন সেখানে মেডিকেল ট্যাকনোলজিষ্ট (এক্সরে অপারেটর) জাহাঙ্গির আলম ছিলেন বলেও জানান জাহাঙ্গির। পরবর্তীতে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা.লুৎফুন্নাহার সেই সরবরাহকারি প্রতিষ্ঠানকে মেশিন বুঝে নেওয়ার প্রত্যয় দেন।
কিন্তু ২ জুন যশোর-২ (চৌগাছা-ঝিকরগাছা) আসনের এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর জেনারেল (অব) অধ্যাপক ডাক্তার নাসির উদ্দিন হাসপাতাল পরিদর্শনে নতুন ক্রয়কৃত পোর্টএবল এক্সরে মেশিনটি মোটেও নতুন নয় বলে জানান। এবং কেনো একটি পুরাতন মেশিনকে রং করে নতুন বলে চালিয়ে দেওয়া হয়েছে সে বিষয়টি তদন্ত করে উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলামকেও নির্দেশ দিয়েছিলে এমপি নাসির উদ্দিন।