চৌগাছায় করোনা আক্রান্তের জেরে ডিভাইন গার্মেন্টসে শ্রমিক বিক্ষোভ

0
510

জিয়াউর রহমান রিন্টুঃ

একদিকে করোনা মহামারি অন্য দিকে গার্মেন্টসের চাকুরি, কোনটা বাচানো জরুরি বা কোনটা তারা বেছে নেবেন বুঝতে পারছে না যশোরের চৌগাছার ডিভাইন গার্মেন্টসের শ্রমিকরা। এরমধ্যে মরার উপর খাড়ার ঘা’র মতো সেই গার্মেন্টসের এক সহকর্মী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে।
তাইতো তারা দাবী করেছেন গার্মেন্টসে কাজ করাতে হলে দিতে হবে পূর্ণ নিরাপত্তা। অন্যথায় কাজ বন্ধ। তবে এই মহামারীর সময়ে কাজ না করার কারনে শ্রমিকদেরকে চাকরিচ্যুত করা যাবে না। এসকল দাবী নিয়েই মঙ্গলবার বিকালে চৌগাছার ডিভাইন গার্মেন্টসে শ্রমিক বিক্ষোভ হয়েছে।
পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলামের অনুরোধে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফুলসারা ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদী মাসুদ চৌধুরী ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে শ্রমিকদেরকে নিবৃত করার চেষ্টা করেন। তখন গার্মেন্টস শ্রমিকরা কাজের জন্য পূর্ণ নিরাপত্তার ব্যবস্থার দাবী জানান অন্যথায় তারা কাজ করবেন না বলে উল্লেখ করেন। কিন্তু মহামারীর সময়ে কাজ না করার জন্য কাউকে চাকরিচ্যুত করতে পারবে গার্মেন্টস কর্তৃপক্ষ। তখন মাসুদ চৌধুরী গার্মেন্টস মালিক হাসানুজ্জামান রাহিনের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে তাদেরকে আশ্বস্ত করেন।
মঙ্গলবার গার্মেন্টসটিতে কর্মরত একজন নারী শ্রমিক করোনা পজেটিভ হওয়ার খবর আসার পর ডিভাইন গ্রুপের চৌগাছা ফ্যাশনের কর্মীরা ১ম শিফটের কাজ শেষে এই বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন।
সূত্র জানায় উপজেলার চৌগাছা সদর ইউনিয়নে ডিভাইন গ্রুপের ডিভাইন গার্মেন্টস ও চৌগাছা ফ্যাশন নামে দুটি ফ্যাক্টরী রয়েছে। দুটি ফ্যাক্টরীতে চৌগাছাসহ আশেপাশের কয়েকটি উপজেলার প্রায় ২ হাজার কর্মী কাজ করেন। সরকারি সাধারণ ছুটির পর দেশের অন্যান্য স্থানের মত চৌগাছার ফ্যাক্টরী দুটিও চালু করে গার্মেন্টস কর্তৃপক্ষ। অথচ করোনা রুগী সনাক্ত হওয়ায় ২৩ এপ্রিল থেকে গোটা চৌগাছা উপজেলা লকডাউনে রয়েছে। এবং ইাতমধ্যে উপজেলাতে ১১ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।
সূত্রমতে রোববার গার্মেন্টস দুটি খুলে দেয়ার পর প্রথমদিনেই কর্মীদের প্রবেশ পথে সবার স্কাণিং করানো হয়। এসময় চৌগাছা ফ্যাশনের একজন নারী ও একজন পুরুষ কর্মীর শরীরে তাপ থাকায় এবং ওই নারী কর্মীর কাশি থাকায় তদের গার্মেন্টসে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। পরে ওইদিনই ওই নারী কর্মী চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গেলে চিকিৎসকরা তার নমুনা সংগ্রহ করে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জিনোম সেন্টারে পাঠান। সেখানে সোমবার পরীক্ষায় ওই নারী কর্মীর করোনা পজেটিভ হয়। মঙ্গলবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ওই নারীর করোনা পজেটিভের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। একই সাথে গার্মেন্টস লকডাউন করতে হবে বলেও মতামত দেন তিনি।
রিপোর্ট আসার আগেই সকালে গার্মেন্টস কর্মীরা ফ্যাক্টরীতে প্রবেশ করায় ১ম শিফটে কাজ শেষে দুপুরে বাইরে বেরিয়ে তারা বিষয়টি জানতে পারেন। এরপর তারা ওই সকল দাবী তুলে বিক্ষোভ করেন। এসময় চৌগাছা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক অমেদুল ইসলাম, ডিভাইনের চৌগাছা অঞ্চলের ম্যানেজার হাদিউজ্জামান সাগর, গার্মেন্টস সেকশনের ম্যানেজার তারেক মোশারফ, সহকারী ম্যানেজার শরিফুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
এবিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফুলসারা ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদী মাসুদ চৌধুরী বলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অনুরোধে আমি ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। শ্রমিকদের আশ্বাস দিয়ে এসেছি। তবে মালিক হাসানুজ্জামান রাহিনের মোবাইল নম্বর না থাকায় তার সাথে কথা বলতে পারিনি। বিষয়টি আমি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানিয়েছি। তিনি পরবর্তী ব্যবস্থা নিবেন।
ডিভাইনের চৌগাছা অঞ্চল ম্যানেজার হাদিউজ্জামান সাগর বলেন গত রোববার আমাদের গার্মেন্টস খোলা হয়। এসময় ওই নারী কর্মীর কাশি ও হালকা জ্বর থাকায় তাকে ফ্যাক্টরীতে ঢুকতে দেয়া হয়নি। আমাদের ডাক্তার তাকে চিকিৎসা নিতে নির্দেশ দেন। এরপর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে তার নমুনা পাঠানো হলে তার নমুনা পজেটিভ আসে। পজেটিভ আসার পর তার সংস্পর্শে যারা এসেছিল এমন কর্মীদের ছুটি দেয়া হয়েছে। তবুও কিছু শ্রমিক বিশৃঙ্খলা করছিল।
এবিষয়ে চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলাম বলেন বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। গার্মেন্টস কর্তৃপক্ষকে কারখানা বন্ধ রাখার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। তারা যদি এরপরও গার্মেন্টস চালান তাহলে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকের সাথে পরামর্শ করে তাদের বিরুদ্ধে সরকারি ব্যবস্থা নেয়া হবে।