চৌগাছায় করোনা সনাক্তদের চ্যালঞ্জ! পরীক্ষার জন্য ফের পাঠানো হলো নমুনা

0
581

বিশেষ প্রতিনিধিঃ

চ্যালেঞ্জ জানিয়েছেন যশোরের চৌগাছায় করোনাা পজিটিভ নারী ও কিশোরের পরিবার।
ওই দুই পরিবারের সদস্যদের করোনা পরীক্ষার জন্য নমুুুুনা সংগ্রহ করতে গেলে এই চ্যালেঞ্জ করা হয়।
যার কারনে ও্রই আক্রান্ত দুজনের পরিবারের অন্যান্যদের নমুনার সাথে ফের আক্রান্তদুজনেরও নমুনা নিতে বাধ্য হলেন নমুনা সংগ্রহকারি চিকিৎসকদল। এবং পরিবারের অন্যান্যদের সাথে আক্রান্তদের নমুনা পুনরায় পরীক্ষার জন্য যশোর বিজ্ঞান ও পুযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠানো হয়েছে।নমুনা গ্রহণ করতে যাওয়া মেডিকেল অফিসার ডা.উত্তম কুমার এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. নাহিদ সিরাজ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
বুধবার দুপুর একটার দিকে করোনা সনাক্ত হওয়া কিশোরের বাড়িতে প্রথম নমুনা সংগ্রহ করতে যান মেডিকেল অফিসার ডা. উত্তম কুমার, ল্যাব টেকনিশিয়ান গোলাম কিবরিয়া, স্বাস্থ্য সহকারী রফিকুল ইসলাম ও এ্যাম্বুলেন্স চালক মোঃ আলম। এসময় পরিবারের সদস্যদের নমুনা নিতে চাইলে কিশোর স্কুল ছাত্রের মা চ্যালেঞ্জ করেন আমার ছেলে করোনা আক্রান্ত নন। একপর্যায়ে তিনি শর্ত দেন ছেলের নমুনা আবার পাঠানো হলে তিনি পরিবারের অন্যদের নমুনা দেবেন। পরে মেডিকেল টিমের সদস্যরা তাদের সবার নমুনা সংগ্রহ করেন। এরপর বিকাল তিনটার দিকে আক্রান্ত শনাক্ত নারীর বাড়ি পৌর এলাকার পাঁচনমনা গ্রামে যায় মেডিকেল টিমের সদস্যরা। সেখানেও প্রায় একই ধরনের বাধা আসে। তিনি দাবি করেন আমার তো কোন উপসর্গ নেই। পরে সেখান থেকেও আক্রান্ত সনাক্ত নারীসহ পরিবারের তিনজনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এছাড়া আক্রান্ত সনাক্ত কিশোরের সংস্পর্শ আশা চৌগাছা হাসপাতালের সামনের একটি ফার্মেসি মালিকেরও নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে।
যোগাযোগ করা হলে ওই কিশোরের মা মোবাইল ফোনে বলেন,আমার ছেলের কোন ধরনের উপসর্গ নেই।সেদিন সরকারি স্যালাইন আনার জন্য হাসপাতালে গেলে তারা জোর করে নমুনা পাঠায়। আজ সকালে ফোন দিয়ে বলে আমার ছেলে করোনা আক্রান্ত।তিনি আরো বলেন,বুধবার তারা নমুনা সংগ্রহে এলে আমি তাদের বলেছি আমার ছেলের নমুনা ফের নিতে হবে। না হলে আমরা কারোর নমুনাই দেব না। পরে ছেলের নমুনাসহ সবার নমুনা নিয়েছে।তিনি বলেন ওর বাবা মারা গেছে দির্ঘদিন।আমি ছেলেক একটি ফার্মেসি দোকান দিয়ে দেব বলে হাসপাতালের সামনের একটি দোকানে ব্যবসা শেখার জন্য রেখেছি। দুদিন সেখানে গেছে। এছাড়া কোথাও যায় নি। আমি আমার চাকরির ওখানে অনেকের কাগজপত্র নাড়াচাড়া করি। অনেক ধরনের রোগী আসে। আল্লাহই ভালো জানেন কিভাবে কি হলো।
অন্যদিকে আক্রান্ত সনাক্ত নারীর ছেলে মোবাইলে জানান মার সামন্য গলায় ব্যাথা ও জ্বর ছিল। একারনে হাপাতালে গেলে তার নমুনা পাঠিয়েদেন। বুধবার সকালে আমাকে হাসপাতাল ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে ফোন দিয়ে জানানো হয় যে আমার মা করোনা পজেটিভ। তিনি বলেন আমার মা ৩/৪ দিন আগে মুড়ি ভেজেছিলেন। তখন শরীর ঘামার পর একটু গলা ব্যাথা ও জ্বর দেখা দেয়। এছাড়া আমার পায়ের একটা শিরা তিনদিন আগে কেটে গিয়ে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়। সেদিন থেকে আমার একটু জ্বর রয়েছে। আমি নাপা ট্যাবলেট খাচ্ছি। বাবা ট্রাক চালালেও এখন গাড়ি বন্ধ থাকায় বাড়িতেই থাকেন। আমাদের রাজহাসের জন্য ঘাস আনতে মাঠে যাওয়া ছাড়া কোথাও যান না। আমি ঢাকায় লেখাপড়া করি। প্রায় চল্লিশদিন আগে ঢাকা থেকে এসেছি। এরপর আর যায়নি। বাড়িতেই আছি। কিভাবে কি হলো বুঝতে পারছি না।
এবিষয়ে নমুনা সংগ্রহ করতে যাওয়া চিকিৎসক ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা.উত্তম কুমার বলেন,হ্যা আবারো তাদের নমুনা পাঠানো হয়েছে। এটা কি রোগীর পরিবারের চ্যালেঞ্জ ছিল প্রশ্নে তিনি বলেন অনেকটাই তেমন।
হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা.নাহিদ সিরাজ নমুনা পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন। সনাক্তের প্রথম দিনেই আবার নমুনা পাঠাতে হবে এমন নিয়ম নেই। তবুও রোগী ও পরিবারের সন্দেহের কারনেই পরিবারের অন্যদের সাথে সনাক্ত দুজনের নমুনা আবারো পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে।
এর আগে মঙ্গলবার চৌগাছা থেকে চারজনের নমুনা যশোর সিভিল সার্জন অফিসের মাধ্যমে যবিপ্রবিতে পাঠানো হয়। বুধবার সকাল ওই চারজনের মধ্য থেক এক নারী (৩৭) ও এক কিশোর স্কুল ছাত্রের (১৩) রিপোর্ট করোনা পজেটিভ আসে। তাদের বাড়ি পৌরসভার মধ্যে হওয়ায় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বুধবার বিকেল থেকে পরবর্তী ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত চৌগাছা পৌর এলাকা লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। একইসকথে মেডিকেল ইমার্জেন্সি ছাড়া পরবর্তী ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত চৌগাছা উপজেলায় সকল অটোরিকশা, ভ্যানসহ যেকোন ধরনের যানবাহনে মানুষ পরিবহন বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে জরুরি পন্য পরিবহন স্বাভাবিক থাকবে বলেও জানানো হয়েছে।