চৌগাছায় গৃহবধূর মৃত্যু। পিতার অভিযোগ মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে।

0
351

জিয়াউর রহমান রিন্টু

যশোরের চৌগাছায় নার্গিস খাতুন (২২) নামে এক গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত নার্গিস উপজেলার পাশাপোল ইউনিয়নের বুড়িন্দিয়া গ্রামের মিঠু হোসেনের (২৭) স্ত্রী এবং এক সন্তানের জননী। একই উপজেলার সুখপুকুরিয়া ইউনিয়নের বল্লভপুর(মাধবপুরপাড়া)গ্রামের সিদ্দিকুর রহমানের মেয়ে নার্গিস। তিনি তার মেয়ের মৃত্যু নিয়ে অভিযোগ করে বলেন আমার মেয়েকে হত্যা করে ঘরের আড়ার সাথে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছিল। 
পাশাপোল ইউপি চেয়ারম্যান অবায়দুল ইসলাম সবুজ বলেন তার স্বামীর অন্য একটি মেয়ের সাথে পরকীয়ার সম্পর্ক ছিল বলেই শুনলাম।
তবে মেয়ের বাবা বলছেন নার্গিসকে প্রায়ই টাকার জন্য মেয়ের শাইশুড়ি আর জামাই মিলে মারেেধার করতো।জামাইয়ের অন্য কোনো মেয়েল সাথে সম্পর্ক ছিলনা জানিয়ে তিনি বলেন,“শৃধু টাকার জন্যেই আমার মেয়েটাকে মেরে ফেলেছে।
রবিবার বেলা সাড়ে দশটার দিকে মেয়ে তার মাকে ঘরের আড়ায় ঝুলতে দেখে।তখনই লোকজানাজানি হলে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ লাশটি উদ্ধারের করে বিকাল পাঁচটার দিকে ময়নাতদন্তের জন্য যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয় । ময়না তদন্ত শেষে লাশ নিয়ে মেয়েটির চাচা মোস্তাফা কামাল সুখপুকুরিয়া তার বাপের বাড়িতে নিয়ে যান। চাচা মোস্তফা বলেন,নার্গিস আত্নহত্যাই করেছে। আপনি কিভাবে জানলেন প্রশ্নের জবাবে বলেন ডাক্তার বলেছে।
মেয়েটির পিতা সিদ্দিকুর রহমান বলেন শনিবার বেলা ১১টার দিকে মোবাইল ফোনে সংবাদ পেয়ে মেয়ের বাড়িতে গিয়ে দেখি আমার মেয়ের লাশ শুইয়ে রাখা। কিন্তু নাতনীকে আমাদের কাছে দেইনি। তিনি আরো জানান পাঁচ বছর আগে উপজেলার বুড়িন্দিয়া গ্রামের মিজানুর রহমানের ছেলে মিঠু হোসেনের সাথে তার মেয়ের বিয়ে হয়। তাদের সংসারে দুই/আড়াই বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। মেয়ের সংসারে কলহ ছিল। তিনি বলেন মেয়ে প্রায়ই বলত বাবা ‘আমার সংসারের গোলমাল আছে। আমার কপালে এটা ছিল। একসময় ঠিক হয়ে যাবে। তোমরা চিন্তা করোনা।  এখনতো মা’ই আমার চলে গেল।’ তিনি বলেন শনিবার সন্ধ্যায় এলাকায় ঝড় হয়। আমি ঝড়ের পরে মেয়েকে ফোন দিয়ে ভালমন্দ জানতে চাই। সে ফোনে কথা না বলে তার মেয়ের কাছে দিয়ে দেয়। আমার নাতনি আমাকে বলে নানা আমাদের ভাত রান্না করেনি।
মেয়েটির শ্বশুর মিজানুর রহমান মোবাইল ফোনে বলেন ‘সে আতœহত্যা করেছে। দুধের শিশুকে নিজেদের কাছে রেখে দিয়েছেন কেন? জবাবে তিনি বলেন মেম্বার মিমাংশা করে দিয়েছে তাই নাতীকে রেখে দিয়েছি। ওই ফোনেই কথা হয় ইউপি মেম্বার আশরাফুলের সাথে। তিনি বলেন আমি শুনেছি,নার্গিস আত্মহত্যা করেছে। 
দশপাকিয়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক মোশারফ হোসেন বলেন, লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছিল। ময়নাতদন্ত শেষে লাশ তার চাচার কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। এখন রিপোর্ট ছাড়া কিছুই বলা যাচ্ছে না।