চৌগাছায় চলছে লাখ লাখ টাকার জুয়ার আসর! নিঃস্ব হচ্ছে মধ্যবিত্ত খেটে খাওয়া মানুষ

0
95

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় নিত্য দিনের জুয়ার আসরে নিঃস্ব হচ্ছে খেটে খাওয়া মানুষজন। বিনা পরিশ্রমে টাকা উপার্জন করতে গিয়ে দিনশেষে সর্বশান্ত হচ্ছে এলাকার খেটে খাওয়া। নিত্যদিন বাড়ছে সাংসারিক অশান্তি। সেই জুয়া খেলার সাথে চলে মাদকের কারবার। সেই কারনে নষ্ট হেেচ্ছ গ্রামের বসবাসের পরিবেশ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা, দুজন ইউপি সদস্য,উপজেলা ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা,একজন গ্রাম পুলিশসহ স্থানীয়রা জানিয়েছেন, উপজেলার সুখপুকুরিয়া ইউনিয়নের ১নং নগরবর্নী ওয়ার্ডের দূর্গাপুর মান্দারতলা পাড়ার দক্ষিন পাশের বুড়োর বীলের মাঝখানে ইদ্রিসের ঘরে প্রতিদিন বসে এই জুয়ার আসর। স্থানটি চৌগাছা উপজেলার শেষ প্রান্ত। এরপরেই ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর উপজেলার শুরু। স্থানীয়দের দাবী ওখানে ৩০/৪০ লাখ টাকার জুয়া খেলা হয়। দূর্গাপুর গ্রামের রওশনের ছেলে মখলেসুর রহমান কনু, মৃত আসাদুলের ছেলে সন্টু,মৃত শাহাদতের ছেলে মুক্তাররা সেই জুয়ার আসরটি পরিচালনা করেন। আর ভাড়া হিসেবে প্রতিদিন ইদ্রিসকে ৫০০/১০০০ টাকা দেওয়া হয়। আবার গ্রামের স্থানীয় পাহারাদার যুবকদের প্রত্যেকদিন ১০/১৫ হাজার টাকা করে দেওয়া হয় বলেও জানান তারা।

আসরটি মাঝে মাঝে নারায়নপুরের চাদপাড়া গ্রামে আবার কখনো মহেশপুর উপজেলার এলাকাতেও বসে থাকে বলেও অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা। দীর্ঘ দিনের এই জুয়ার আসর সম্পর্কে ইউনিয়নের অনেকে জানেন। পুড়াপাড়া বাজারের একজন ইউপি সদস্য জানালেন দূর্গাপুরের কালাম আগে ওই জুয়ার আসর চালাত এখন হাত বদল হয়েছে বলে শুনেছি। দিনের ১১টা বাজলেই বিভিন্ন ধরনের বাইরের এলাকার মানুষের ভীড় জমতে দেখা যায়। পরে তাদেরকে ডুঙ্গায় (তাল গাছের তৈরি এক ধরনের জলযান) করে তাদেরকে সেখানে নিয়ে যাওয়া হয়। আর পাহারায় থাকে ১০/১৫ জন। চারিদিকে পানি দিয়ে আবৃত জুয়ার আসরটি। তাই ইচ্ছা করলেই সেখানে পৌছাতে পারেনা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। তবে এ ঘটনা দু’থানার পুলিশ এমনকি একজন সাংবাদিককেও বলেছিলাম কিন্ত তাতে কোনো লাভ হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন ওই বীর মুক্তিযোদ্ধা।
বীর মুক্তিযোদ্ধা আক্ষেপ করে বলেন,গ্রামটা শেষ হয়ে গেল,মানুষগুলো নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছে। এই জন্য কি যুদ্ধ করেছিলাম। সর্বশেষ তিনি এই প্রতিনিধিকে বলেন আপনি কি আমাকে পুলিশ সুপারের ফোন নাম্বারটা দিতে পারেন??
এদিকে যার ঘরে জুয়ার আসরটি বসে বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা দূর্গাপুর গ্রামের আইনবির ছেলে সেই ইদ্রিস (০১৭২৬-৬৫০২৬০) বললেন,ওখানে লাখ লাখ টাকার জুয়া খেলা হয়না। তবে ওরা নাইন কার্ড খেলে বলে শুনেছি। আপনি নাকি প্রত্যেকদিন ৫০০/১০০০ টাকা ভাড়া পেয়ে থাকেন উত্তরে তিনি বলেন কথাটি সঠিক না। তবে আমি দিনের বেলা ওখানে যেতে পারিনা বলে রাত্রে যায়।
এ বিষয়ে চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ বলেন, ঘটনাটি আমি জানতাম না । আপনার কাছ থেকে শুনলাম। তবে এর বিরুদ্ধে যথাযত পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে বলেও জানালেন ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ।