চৌগাছায় জামাত সেক্রেটারি নবনির্মিত ভবনের ইট পড়ে মেয়ে নিহত ও মা আহত

0
150

বিশেষ প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় জামাতের সেক্রেটারির নব নির্মিত ৪তলা ভবনের ইট পড়ে শ্রীয়া বালা (৭) নামে এক শিশু নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় তার মা বুলি বালাও আহত হয়েছেন।

শনিবার সকাল আনুমানিক ১০টার দিকে উপজেলার পৌর শহরের বিএনপি অধ্যুষিত মাইক্রো স্ট্যান্ড নামক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
নিহত শ্রেয়া বালা গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার শংকর বালার মেয়ে এবং চৌগাছার রাগিব আহসান নিহাল আইডিয়াল স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেনীর ছাত্রী। বর্তমানে তারা চৌগাছা পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের এসকে মজুমদারের বাড়িতে ভাড়া থাকেন।
ভবনটির পাশের ব্যবসায়িিএবং ঘটনার প্রত্যক্ষ্যদর্শী শাহাবুদ্দিন জানান, সকাল আনুমানিক দশটার দিকে শ্রেয়া প্রাইভেট পড়া শেষে মায়ের হাত ধরে মাইক্রোস্ট্যান্ডের জামাতের পৌর সেক্রেটারি জিল্লুর রহমানের বাড়ির পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন। এমন সময় ঐবাড়ি থেকে প্রায় ২০/২৫টি ইট তাদের মাথার উপরে এসে পড়ে। সাথে সাথে মা,মেয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন।

তখন স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে শ্রেয়ার অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে রেফার করেন। যশোর চিকিৎসাধীন অবস্থায় বেলা আনুমানিক সাড়ে ১১টার দিকে শ্রেয়ার মৃত্য হয়। মৃত্যুর বিষয়টি কর্তব্যরত চিকিৎসক সহকারি অধ্যাপক ডা.মোসফেকুর রহিম নিশ্চিত করেছেন।
উল্লেখ্য এই মাইক্রোস্ট্যান্ড এলাকাটি একটি ব্যবসায়িক ও জনবহুল রাজনৈতিক এলাকা। মাইক্রোচালক তরিকুল বলেন ৭/৮ দিন আগে আমার গাড়ির উপরেও ইট পড়েছিল। সেসময় তাকে বললেও কোনো কাজ হয়নি। শ্রমিক নেতা ফুরকান বলেন, বিভিন্ন সময়ে আমাদের বিভিন্ন গাড়ির উপরে ইট,বালি,সিমেন্ট পড়ে। সে সময়ও তাকে আমরা বলেছি। কিন্তু তিনি কারো কথা শোনেননি।
শিশু শ্রেয়ার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে ক্ষোভের সাথে চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ জিজ্ঞাসা করেন, যেকোনো ভবন নির্মানের সময় জন সাধারনরে জানমালের নিরাপত্তা দেখার দায় কাদের??
ভবন নির্মানের বিষয়ে চৌগাছা পৌর মেয়র নূর উদ্দিন আল মামুন হিমেল বলেন, এই ব্যক্তিকে আমি নিজে কয়েকবার ডেকে নিয়ে সাবধানতা অবলম্বন করতে অনুরোধ করেছি। একবার তার বাড়ি নির্মান বন্ধ করেছিলাম। সর্বশেষ তাকে বিল্ডিং কোড মেনে বাড়ি নির্মান করতে বলেছি। কিন্তু তিনি কোনো কথাই মানেন না।
স্থানীয়রা জানালেন এই জামাত নেতাকে তার ভবন নির্মানের সময় জনসাধারনের নিরাপত্তার জন্য সাবধানতা অবলম্বন করতে বার বার অনুরোধ করা হয়েছে। আক্ষেপ করে অন্য এক জামাত নেতা বলেন, তাকে সাবধানতার বিষয়ে অসংখ্য বার অনুরোধ করেও কোনো কাজ হয়নি। লোকটা একটু বেয়াদপ টাইপের।
যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে এই প্রতিবেদেকরে কাছে জামাত সেক্রেটারি জিল্লুর রহমানও বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তিনি বলেন শ্রমিকদের কাজের সময় এই দূর্ঘটনা ঘটেছে। তাহলে এই দায় কার প্রশ্নের জবাবে তিনি কোনো উত্তর দেননি। কিছুক্ষন পরে শ্রেয়ার মৃত্যুর খবর শুনে পালিয়ে যান তিনি।