চৌগাছায় জালিয়াতির মাধ্যমে মৎস্যজীবি সমিতি গঠন! ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ

0
101

বিশেষ প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় জাল জালিয়াতির মাধ্যমে একটি মৎস্যজীবি সংগঠন করা হয়েছে বলে সমিতির সদস্যরাই অভিযোগ করেছেন।
এ বিষয়ে পবন কুমার নামে একজন মৎস্যজীবি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন।
২৮ মার্চ মঙ্গলবার দুপুর ২টা দিকে চৌগাছা সদর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের দীঘলসিংহ গ্রামের মৎস্যজীবিরা স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসে এসে অভিযোগ করেন যে, ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম তাদেরকে মিথ্যা কথা বলে মৎস্যজীবি কার্ড নিয়ে ফেরৎ দিচ্ছেন না।
এসময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসে লস্করপুর জলমহাল ইজারা সংক্রান্ত একটি সভা চলছিল। এবং উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ ড.মোস্তানিছুর রহমানসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও সাংবাদিকবৃন্দ সেখানে উপস্থিত ছিলেন।
পরে এক লিখিত অভিযোগে ওই গ্রামের একজন মৎস্যজীবি পবন কুমার বলেন, ৫/৬ মাস আগে আমাদের ইউপি মেম্বর বায়োজিদ হোসেন কাঠু আমার অনুপস্থিতিতে আমার বাড়িতে যেয়ে আমার স্ত্রীকে বলেন,চেয়ারম্যান সাহেব আপনাদের জেলেদের মধ্যে ১০জনকে চাউল দিবেন। এজন্য তাদের মৎস্য কার্ড লাগবে। এই বলে তিনি ১০ জনের মৎস্যজীবি কার্ড নিয়ে যান। কিছুদিন পরে জানতে পারি চেয়ারম্যঅন তার ব্যক্তিস্বার্থ চরিতার্থের জন্য জালিয়াতির মাধ্যমে ওই কার্ড দিয়ে একটি মৎস্যজীবি সংগঠনের পায়তারা করছেন। আমরা তৎক্ষনাৎ বিষয়টি আমাদের মেম্বর সাহেবকে জানায় এবং আমাদের মৎস্যজীবি কার্ড ফেরৎ চায়। সেই থেকে মেম্বর বায়োজিদসহ আমরা চেয়ারম্যান কাশেমের কাছে আমাদের মৎস্যজীবি কার্ড ফেরৎ চাচ্ছি কিন্তু তিনি কিছুতেই কার্ডগুলো দিচ্ছেন না। বিষয়গুলো নিশ্চিত করে ওই ইউপি মেম্বর বায়োজিদ হোসেন কাঠু বলেন, চেয়ারম্যান মিথ্যা কথা বলে আমার মাধ্যমে কার্ডগুলো নিয়েছেন। সেই থেকে তার কাছে আমি কার্ডগুলো চাচ্ছি কিন্তু তিনি দিতে পারবেননা বলে জানিয়ে দিয়েছেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে চেয়ারম্যান আবুল কাশেম বলেন, এসকল অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবী করেন। তিনি বলেন, তারা যদি সমিতি নাই করবে তবে সমিতির রেজিষ্টারে স্বাক্ষর করলো কেনো??
এ বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযোগকারি পবন কুমার বলেন, চেয়ারম্যান যে সমিতি করবে তা আমরা জানতাম না। পরে একদিন আমাদের উপজেলায় ডেকে নিয়েনিয়েগিয়ে কি একটা খাতায় সই করতে বললেন। আমরা ভাল মনে সই করলাম। ওটা কিসেরে খাতা প্রশ্নের জবাবে তিনি বললেন আমরা জানিনা।
অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইরুফা সুলতানা বলেন, সঠিক তদন্ত স্বাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।