চৌগাছায় টিকা নিতে চরম ভোগান্তিতে শিক্ষার্থীরা! মার‌পি‌টে একজন আহত !

0
197

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় টিকা নিতে গিয়ে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে স্কুল শিক্ষার্থীদের। শনিবার উপজেলা পরিষদ হল রুমে টিকা দিতে গিয়ে শিক্ষার্থীদের এই ভোগান্তিতে পড়তে হয়। এ সময় চৌগাছা শাহাদৎ পাইলট মাধ‌্যমি‌কের শিক্ষার্থী‌দের মার‌পি‌টে চৌগাছা কা‌মিল মাদ্রাসার ছাত্র আবু মুছা না‌মে দশম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীর মাথা কে‌টে যায়।
টিকা পৌছাতে দেরি হওয়া, বিদ্যালয়গুলির শিক্ষকদের অবহেলা এবং উপজেলা শিক্ষা অফিসের ব্যর্থতায় শিক্ষার্থীরা এই ভোগান্তিতে পড়েন বলে অভিযোগ করেছেন অভিভাবকরা। তাঁরা বলেন এভাবে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে বিশৃঙ্খল পরিবেশে টিকা দেয়া হলে শিক্ষার্থীদের সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
উপজেলার সব থেকে সুরক্ষিত এলাকা উপজেলা পরিষদ চত্বরে কয়েক হাজার শিক্ষার্থী একসাথে টিকা নিতে প্রবেশ করায় এই বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হলেও শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কোন ব্যবস্থা রাখা হয়নি।
জানা গেছে, গত ১২ জানুয়ারী থেকে চৌগাছায় শিক্ষার্থীদের ফাইজারের টিকা দেয়া শুরু হয়। অনিবার্য কারন দেখিয়ে ১৩ জানুয়ারী টিকা দেয়া বন্ধ রেখে ১৫ জানুয়ারী একদিনে ৪ হাজার শিক্ষার্থীকে টিকা দেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়।
কথা ছিল ১৫ তারিখেই যাদের টিকা দেয়ার কথা, সেসব শিক্ষার্থীদের আগে টিকা দেয়া হবে। এরপর যাদের ১৩ তারিখে টিকা দেয়ার কথা ছিল তাঁদের টিকা দেয়া হবে। কিন্তু সকাল ৭টার মধ্যেই শহরের সরকারি শাহাদৎ পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রায় এক হাজার শিক্ষার্থী উপজেলা পরিষদ চত্বরে চলে আসে। সব মিলিয়ে কয়েক হাজার শিক্ষার্থীর ভিড় জমে যায়। এতে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়।
প্রত‌্যক্ষদ‌র্শি ক‌য়েকজন সংবাদক‌র্মি ও শিক্ষক জানান চৌগাছা উপ‌জেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইরুফা সুলতানা দুইবার এ ভি‌ড়ের মধ‌্যদি‌য়ে গা‌ড়ি‌তে ক‌রে যাতায়াত কর‌লেও তি‌নি কোন পদ‌ক্ষেপ গ্রহণ ক‌রেন‌নি। অপর‌দি‌কে বা‌ইরে মারামা‌রি পর্যন্ত সংঘ‌টিত হ‌লেও এক‌টিবা‌রের জন‌্য বা‌হি‌রে এসে কথা ব‌লেন‌নি উপ‌জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম মো: র‌ফিকুজ্জামান।
চৌগাছা কা‌মিল মাদ্রাসার একজন শিক্ষক ব‌লেন আমা‌দের একজন ছাত্রকে শাহদৎ পাইলট মাধ‌্যমিক বিদ‌্যাল‌য়ের শিক্ষার্থীরা মে‌রে মাথা কে‌টে দি‌লেও কতৃপ‌ক্ষের কেউ দু:খপ্রকাশ পর্যন্ত ক‌রে‌নি। আহত শিক্ষার্থী আবু মুছার পিতা ক্ষোভ প্রকাশ ক‌রে ব‌লেন আমার ছে‌লে টিকা দি‌তে গি‌য়ে আজ মাথা কে‌টে আহত হ‌য়ে বা‌ড়ি ফি‌রে‌ছে। তি‌নি আ‌রো ব‌লেন যা‌দের অব‌হেলার কার‌নে এ প‌রি‌স্থি‌তি তৈরী হ‌য়ে‌ছে তা‌দের এ দা‌য়িত্ব থে‌কে অব‌্যহ‌তি দেওয়া হোক।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিভিন্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষক জানান, শিডিউল ভঙ্গ করে তাঁদের প্রায় এক হাজার শিক্ষার্থী সকাল সাড়ে সাতটার সময় উপজেলা পরিষদ চত্বরে চলে আসে। অথচ এই শিক্ষার্থীদের নিয়ন্ত্রণ করার জন্য বিদ্যালয়টির কোন শিক্ষক সেখানে ছিলেন না। ফলে শিক্ষার্থীরা বিশৃঙ্খল পরিবেশের সৃষ্টি করে। তাঁরা ধাক্কাধাক্কি, চিৎকার, চেচামেচি করে পরিবেশ উত্তপ্ত করে তোলে। এতে দুর দুরান্ত থেকে আগত শিক্ষার্থীরা চরম ভোগান্তিতে পড়ে।
অনেক শিক্ষার্থী সকাল সাতটায় উপজেলা পরিষদে আসলেও দুপুর দুইটা পর্যন্ত টিকা নিতে পারে নি।
চৌগাছা মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাস্টার কামাল আহমেদ বলেন, যশোর সিভিল সার্জন অফিস থেকে সকাল সাড়ে সাতটায় টিকা দেয়ার কথা থাকলেও দেয়া হয়েছে পৌনে নয়টায়। চৌগাছায় এনে টিকা দেয়া শুরু হয়েছে সকাল দশটা থেকে। আগে থেকেই সকাল আটটা থেকে শিডিউল থাকায় দুই ঘন্টায় যেসব শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়ার কথা ছিল তাঁরাসহ অন্যরা একসাথে এসে যাওয়ায় এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম মোঃ রফিকুজ্জামান বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আছে, সমস্যা হবে না। তিনি আরও বলেন সকাল ৮টায় টিকা আসার কথা ছিল কিন্তু এসেছে ১০টায়। এছাড়া সরকারি শাহাদৎ পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা কাগজপত্র উল্টাপাল্টা করে রাখার কারনে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। সামনে এমন বিশৃঙ্খলা আর হবে না বলে আশা করছি।