চৌগাছায় ট্রাক চালকের রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার

0
316

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় আহাদ আলী (৪২) নামে এক ট্রাক চালকের রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার হয়েছে।বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে দুর্গাবরকাঠি গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে তার লাশ উদ্ধার হয়।
তিনি উপজেলার ১নং ফুলসারা ইউনিয়নের দুর্গাবরকাঠি গ্রামের মৃত আব্দুস সাত্তারের ছেলে। এক ছেলে ও এক মেয়ের জনক আহাদ আলী প্রস্টেট ক্যান্সারে ভুগছিলেন বলে স্বজনরা জানিয়েছেন। নিহতের বুকে ধারালো কোন কিছু দিয়ে আঘাতের ক্ষত ছিল বলে নিশ্চিত করেছেন যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলাল হুসাইন। তার একটি হাতেও কিছুটা ক্ষত ছিল বলে জানা গেছে। এসব থেকে স্থানীয়রা ধারনা করছেন তিনি খুন হয়েছেন।
সংবাদ পেয়ে যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ‘ক’ সার্কেল বেলাল হুসাইন, ডিবি, পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই), চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজসহ পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে যান। পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে পাঠিয়েছে। এ রিপোর্ট লেখার সময়ে দুপুর পৌনে ১টায়ও পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে অবস্থান করছিলেন এবং নিহতের স্ত্রী ও ছেলেকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করছিলেন।
পুলিশ জানায় ময়নাতদন্ত ছাড়া বলা যাচ্ছে না এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা বা স্বাভাবিক মৃত্যু। নিহতের স্ত্রী ও স্বজনদের উদ্ধৃতি দিয়ে পুলিশ আরও জানায়, নিজের বসত ঘরের একটি কক্ষে আহাদ আলী, একটিতে তার কিশোর ছেলে এবং অপর কক্ষে তার স্ত্রী ও শিশু মেয়ে ঘুমাতো। তার স্ত্রী জানিয়েছেন তারা বন্ধ দরজা খুলে তার লাশ উদ্ধার করেছেন।
নিহতের স্বজন ও স্থানীয়রা জানিয়েছেন নিহতের স্ত্রী তাদের জানিয়েছেন ঘরের বন্ধ দরজা খুলে তার লাশ উদ্ধার করেছে। তবে ঘরের জানালা গুলি ইট-সিমেন্ট দিয়ে গেথে দেয়া থাকায় বাইরের কেউ এসে হত্যা করে দরজা ভিতর থেকে বন্ধ করে রেখে যাওয়া প্রায় অসম্ভব।
নিহতের ভাতিজা রানা, বলেন আজ (বৃহস্পতিবার) সকালে আমার যে চাচা মারা গেছে উনার মেয়ে আছে ছোট ১০/১২ বছর বয়স। আমি শুয়ে আছি, সে দৌড়ে এসে আমার আব্বার ডেকে বলছে, ‘চাচা আমার আব্বা মারা গেছে।’ তখন আমি দৌড়ে আসি আমার বাবা ছিল মাঠে। চাচার ঘরে গিয়ে দেখি চাচা তার শোবার খাটের (চৌকি) সাথে ঠেস দিয়ে বসানো,আমার চাচি তাকে ধরে রেখেছেন। আমার চাচাতো ভাইও সেখানে ছিল। আমি কয়েকবার তাকে ডেকে বলি চাচা আপনার কি হচ্ছে? কিন্তু তিনি কোন সাড়া দেননি। পরে আমার এক চাচতো ভাই আর আমার মা থেকে হাত ধরে দেখে যে উনি আর নেই (মারা গেছেন)। তিনি বলেন প্রায় ৬/৭ মাস ধরে উনার প্র¯্রাবের থলিতে ক্যন্সার ধরা পড়ে। খুব ধীরে ধীরে হাটা চলা করতেন। কোন কাজ করতে পারতেন না। রানা আরও জানান এর আগে তিনি ট্রাক চালাতেন। ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলা শ্রমিক ইউনিয়নের তিনি সদস্য ছিলেন।
নিহতের ভাই আবেদ আলী বলেন আমি একটু দূরে অন্য পাড়ায় থাকি। সংবাদ পেয়ে দৌড়ে আসি। শুনি আমার ভাই মারা গেছে। দেখি বাইরে (লাশ) বের করা রয়েছে। কান্নাকাটি করছি, এসময় লোকজনে দেখায় ওই দেখ ফুটো (ক্ষত) করাও রয়েছে। তখন ঢেকে রাখা চাদর উঠিয়ে দেখি তার বুকে ছুরি মারার মত দাগ রয়েছে। সেখান থেকে রক্ত বের হয়েছে।
স্থানীয়রা জানান, বুধবার রাত দশটার দিকে আহাদ আলী গ্রামের মোড়ের চায়ের দোকান থেকে চা-বিস্কুট খেয়ে বাড়িতে যান। এরপর বৃহস্পতিবার সকালে তারা জানতে পারেন আবেদ আলী তার ঘরের মধ্যে মারা গেছেন। তবে তার মৃতদেহে রক্ত দেখে স্থানীয়রা পুলিশে সংবাদ দিলে পুলিশ এসে লাশটি হেফাজতে নেয় এবং পরে ময়না তদন্তের জন্য যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপতালে পাঠায়।
যশোর জেলা পুলিশের ক’ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলাল হুসাইন ঘটনাস্থলে সাংবাদিকদের জানান ময়না তদন্ত ছাড়া এখনো বলা যাচ্ছে না এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা। নিহতের বুকে ধারালো কিছু দিয়ে আঘাতের ক্ষত রয়েছে বলেও তিনি নিশ্চিত করেছেন।
চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন এ বিষয়ে মামলার প্রস্ততি চলছে।