চৌগাছায় দল ক্ষমতায় থাকতেই সন্ত্রাসী হামলার শিকার হচ্ছেন পদধারি আওয়ামী লীগ নেতারা!

0
123

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় একের পর এক সন্ত্রাসী হামলার শিকার হচ্ছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের পদধারি নেতারা।
নিজ দলীয় সরকারের আমলে পদধারি নেতারা সন্ত্রাসী আক্রমনের শিকার হলেও আজ পর্যন্ত দৃষ্টান্তমূলক কোনো শাস্তি বা দলীয় কোনো কঠোর কর্মসূচি নেওয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন নেতারা।
সম্প্রতি ফারুক আহমেদ কবির নামে উপজেলা আওয়ামী লীগের এক নেতা সন্ত্রাসী হামলার শিকার হলে বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা শুরু হয়েছে।
জানাযায়, ৫ জানুয়ারি তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে নিজেদের প্রভাব বজায় রাখতে যশোর পুলিশের তালিকাভূক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী শামীম কবির ওরফে কিলার শামীম গ্রুপের সন্ত্রাসীরা উপজেলা আওয়ামী লীগের ৬৩ নং সদস্য ফারুক আহমেদ কবিরের উপর আক্রমন করে। কিছু না জেনেই হামলার শিকার হয়ে ফারুক আহমেদ কবির স্থানীয়দের সহযোগিতায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে নিজ বাড়িতে ফিরে যান। প্রান ভয়ে থানায় কোনো অভিযোগ করেননি তিনি।
এর আগে ২০১৩ সালে যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও ৩ নং সিংহঝুলি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান মিন্টুকে গুলি করে হত্যা করে এই কিলার শামীম ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী। একটি অস্ত্র মামলায় ১৭ বছর সাজাপ্রাপ্ত, ৫ টি হত্যাসহ ১৪ টি মামলার আসামী শামীম কবির ওরফে কিলার শামীম ও তার গ্রুপের হাতে ১৯৯৬ সালে মকবুল মেম্বর,বাওড় গার্ড শহিদুল,২০১২ সালে শিশু সৌরভও খুন হয়েছিল। এছাড়াও ২০১৭ সালে যশোর কোতয়ালী থানায় তার বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা আছে।
উল্লেখ্য ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার সন্ত্রাসী হামলায় মারাত্নক আহত হওয়া ছাড়াও প্রান হারিয়েছেন ৩ জন গুরুত্বপূর্ন ও জনপ্রিয় নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান। ২০০৯ সালে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও ২ নং পাশাপোল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইমামুল হাসান টুটুল, ২০১৩ সালে যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও ৩নং সিংহঝুলি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান মিন্টু এবং সর্বশেষ ২০১৬ সালে ২ নং পাশাপোল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কাশেম সন্ত্রাসীদের হাতে খুন হন। এছাড়া ২০১৫ সালে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক মাষ্টার সিরাজুল ইসলাম, ২০২১ সালে ১৪ আগষ্ট আওরঙ্গজেব চুন্নু সন্ত্রাসী হামলায় আহত হয়েছিলেন।
এসকল সন্ত্রাসী হামলার বিরুদ্ধে উপজেলা আওয়াী লীগের কোনো কর্মসূচি না থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেনে উপজেলা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন স্তরের নেতারা।
চৌগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রভাবশালি নেতা ও পৌর মেয়র নূর উদ্দিন আল মামুন হিমেল বলেন,“ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাতে কোনো কথাই বলা যায় না। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এসএম হাবিবুর রহমান সভাতে এমন গালিগালাজ শুরু করেন যে সেখানে কথা বলার কোনো পরিবেশ থাকে না। আমি একাধিকবার সভাপতিকে বিশ্রী ভাষায় গালাগালি করতে দেখেছি। শেষ যে মিটিং-এ আমি অংশগ্রহন করেছি সে মিটিংএ সহ-সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিয়াকে তিনি অকথ্য ভাষায় গালাগালি করেছিলেন।”
উপজেলা আওয়ামী লীগের অন্য এক প্রভাবশালি সদস্য ও উপজেলা চেয়ারম্যান ড.মুস্তানিছুর রহমান বললেন,“ এসকল বিষয়ে দলের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে। তিনি বলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির গালাগালির কারনে উপজেলা আওয়ামী লীগের মিটিং এর কোনো পরিবেশ থাকেনা।
প্রচার সম্পাদক সাহাবুদ্দিন আহমেদ চুনু বড় মিয়া বলেন,“এ সকল বিষয় নিয়ে প্রতিবাদ করা উচিত। আমরা এবার পার্টি মিটিং এ এসকল বিষয়ে আলোচনা করবো।”
সাংগঠনিক সম্পাদক সোহেল কবির বললেন,“এসকল বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের কোনো কর্মসূচি না থাকাটা দুঃখজনক।”
দপ্তর সম্পাদক মাহামুবুল আলম রিংকু জানালেন,“ কবির হোসেনের উপর হামলার ২দিন পরে সাধারন সম্পাদক তাকে দেখতে গিয়েছিলেন। এসকল বিষয় নিয়ে পার্টি মিটিংএ এবার আলোচনা হবে।”
সাধারন সম্পাদক মেহেদী মাসুদ চৌধূরী বললেন,“আমি কবিরকে দেখতে গিয়েছিলাম। তাকে আমি মামলাও করতে বলেছি।” মুঠো ফোনে কথা হলে কবিরের উপর হামলার কারন জানতে চাইলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এসএম হাবিবুর রহমান। তিনি আরো জিজ্ঞাষা করেন “কবিরকে কারা মেরেছে?”
যশোর-২ আসনের (চৌগাছা-ঝিকরগাছা) স্থানীয় সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর জেনারেল (অব) অধ্যাপক ডাক্তার নাসির উদ্দিন বলেন,“এসকল ঘটনায় দল আর পুলিশ কি করে? আমরা অতি দ্রুত বিভিন্ন ইউনিয়নে দলীয় কর্মসূচিতে এসকল বিষয় নিয়ে কথা বলবো বলেও জানান তিনি।
আওয়ামী লীগ নেতা কবিরের উপর হামলার বিষয়ে চৌগাছা থানার ওসি (তদন্ত) গোলাম কিবরিয়া বলেন,“ বিষয়টি আমি আপনার কাছ থেকেই প্রথম শুনছি। এছাড়া এবিষয়ে কেউ থানায় কোনো অভিযোগ করেননি বলেও জানান তিনি।