চৌগাছায় অনিয়মের অভিযোগে বিসিআইসি’র তিন ডিলারশিপ বাতিলের সুপারিশ

0
359

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় ধারাবাহিক অনিয়ম ও কৃষি বিভাগের নির্দেশনা না মেনে অতিরিক্ত মূল্যে সার বিক্রিসহ বিভিন্ন অভিযোগে উপজেলা ফার্টিলাইজারি অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও উপজোলা বিএনপির ১নং যুগ্ম-আহবায়ক ও সিংহঝুলী ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ইউনূচ আলী দফাদারের মালিকানাধীন মেসার্স ইউনূচ আলীসহ উপজেলার তিন বিসিআইসি সারের ডিলারশিপ বাতিলের সুপারিশ করেছে উপজেলা সার ও বীজ মনিটরিং কমিটি।
উপজেলা বিএনপির এই নেতা গত ওয়ান ইলেভেনের সময়েও অতিরিক্ত মূল্যে সার বিক্রির অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়ে জেল খেটেছিলেন ।
বাতিলের সুপারিশকৃত অন্য দুই ডিলার হলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও পাতিবিলা ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান সহিদুল ইসলাম মিয়ার মালিকানাধীন মেসার্স ফরিদুল ইসলাম এবং বিএনপি নেতা আতিকুর রহমান লেন্টুর মালিকানাধীন মেসার্স শয়ন ট্রেডার্স।
মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত উপজেলা সার ও বীজ মনিটরিং কমিটির মিটিংয়ে এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। পরে বিকেলে মিটিংয়ের সিদ্ধান্ত প্রকাশ পেলে উপজেলাব্যাপি আলোড়ন সৃষ্টি হয়।
এরআগে কৃত্রিম সার সংকট দেখিয়ে উপজেলায় বিভিন্ন সার সরকারি মূল্যের চেয়ে ৮/১০ টাকা অতিরিক্ত মূল্যে সার বিক্রি করছেন ডিলাররা শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হলে অভিযানে নামে কৃষি বিভাগ। তখন একজন সার ডিলারসহ কয়েকজন খুচরা বিক্রেতাকে ভ্রাম্যমান আদালত চালিয়ে জরিমানা আদায় করা হয়।
এদের মধ্যে শয়ন ট্রেডার্সের বিরুদ্ধে উত্তোলনকৃত সার গুদামে না এনে উপজেলার বাইরে বিক্রি করে দেয়া, অতিরিক্ত মূল্যে সার বিক্রি, মূল্য তালিকা না টাঙানোসহ ধারাবাহিকভাবে কৃষি বিভাগের নির্দশনা না মানার অভিযোগ রয়েছে। গত ২০ আগস্ট ১৭ মেট্রিকটন ডিএপি সার উত্তোলন করার আগমনি বার্তা দিয়েও সার গুদামে না তোলায় তার বিক্রয়কেন্দ্র বন্ধ করে দেয়া হয়। ১৭ সেপ্টেম্বর অতিরিক্ত মূল্যে সার বিক্রির অভিযোগে ভ্রাম্যমান আদালত জরিমানা করলেও তিনি নিবৃত্ত হননি। এছাড়া ইউনূচ আলী ও ফরিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে পর্যাপ্ত সার ধারণক্ষমতা সম্পন্ন (৫০ মেট্রিকটন) গুদাম না থাাকা, খুচরা বিক্রয়কেন্দ্র না থাকা, উত্তোলনকৃত সার গুদামে না এনে অন্যত্র বিক্রি করে দেয়া, ধারাবাহিকভাবে কৃষি বিভাগের নির্দেশনা না মানাসহ বিভিন্ন গুরুতর অভিযোগ রয়েছে।
উপজেলা সার ও বীজ মনিটরিং কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রকৌশলী এম. এনামুল হক এর সভাপতিত্বে মঙ্গলবার দুপুরে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে ছিলেন কমিটির উপদেষ্টা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ ড. মোস্তানিছুর রহমান, মাসুদ চৌধুরী, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক দেবাশীষ মিশ্র জয়, উপজেলা নারী ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের মহিলা সম্পাদক নাজনীন নাহার পপি, কমিটির সদস্য সচিব ও উপজেলা কৃষি অফিসার এম রইচ উদ্দিন, মনিটরিং কমিটির সদস্য উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফুলসারা ইউপি চেয়ারম্যান এবং উপজেলা ফার্টিলাইজারি অ্যাসোশিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুন, উপজেলা মৎস্য অফিসার এসএম শাহ্জাহান সিরাজ, সমবায় অফিসার এম ছালাহউদ্দিন, উপজেলা ফার্টিলাইজারি অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও উপজেলা বিএনপি ১নং যুগ্মআহবায়ক ইউনূচ আলী, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম, চৌগাছা প্রেসক্লাবের সভাপতি জিয়াউর রহমান রিন্টু, সাধারণ সম্পাদক অমেদুল ইসলাম প্রমুখ।
এ বিষয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রকৌশলী এম. এনামুল হক বলেন মিটিংয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গুরুতর অভিযুক্ত তিনজন ডিলারের ডিলারশিপ বাতিলের জন্য জেলা সার ও বীজ মনিটরিং কমিটির কাছে সুপারিশ পাঠানো হবে। এর বাইরেও জেলা কমিটি ইচ্ছা করলে অন্য অভিযুক্তদের বিষয়েও স্বপ্রণোদিত হয়ে ব্যবস্থা নিতে পারেন। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রইচ উদ্দিন বলেন উপজেলা সার ও বীজ মনিটরিং নীতিমালা অনুযায়ী উপজেলা সার ও বীজ মনিটরিং কমিটির মিটিংয়ের সিদ্ধান্ত রেজুলেশন আকারে জেলা সার ও বীজ মনিটরিং কমিটিতে পাঠানো হবে। জেলা সার ও বীজ মনিটরিং কমিটির মিটিংয়ে সিদ্ধান্ত নিয়ে ডিলারশিপ বাতিলের সিদ্ধান্ত বহাল থাকলে বিসিআইসির নিকট পাঠাবেন। এরপর বিসিআইসি ডিলারশিপ বাতিল করবেন। তবে এক্ষেত্রে জেলা সার ও বীজ মনিটরিং কমিটি অধিকতর তদন্তও করতে পারেন।