চৌগাছায় নৌকা প্রতিকের প্রচার গাড়িতে হামলা ও ভাংচুরের অভিযোগ!

0
385

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোর চৌগাছার ২নং পাশাপোল ইউনিয়নে নৌকা প্রতিকের প্রচারনা গাড়িতে (ইজি বাইক) হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। ওই ইউনিয়নের আনারস প্রতিকের বিদ্রোহী প্রার্থী শাহিনুর রহমান শাহিন ও তার সমর্থকরা এই হামলা চালিয়েছেন বলেই অভিযোগ করেছেন নৌকা প্রতিকের মনোনিত প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অবায়দুল ইসলাম সবুজ ও স্থানীয়রা। ৫নভেম্বর সন্ধ্যার দিকে ইউনিয়নের মালিগাতি কমিনিটি ক্লিনিকের কাছে এই ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছেন চালক আলী হাসান ও সহযোগি শাহিনুর রহমান।

তবে প্রচার গাড়িটি ভাংচুর করা হয়নি বলে জানিয়েছেন স্থানীয় দশপাকিয়া পুলিশ ফাড়ির আইসি এসআই শাহ জলিলুর রহমান।
প্রচার গাড়িটির চালক আলী হাসান জানিয়েছেন, শুক্রবার মাগরিবের আজানের কিছুক্ষন আগে আমি ইউনিয়নের মালিগাতি বাজার থেকে রানীয়ালির দিকে যাচ্ছিলাম। পথিমধ্যে রানীয়ালি স্কুল পার হয়ে আনারস প্রতিকের মিছিলের পিছনে পড়ি। কিছুক্ষন পরে যখন মিছিলটি পার হচ্ছি তখনই আনারস প্রতিকের প্রার্থীসহ মিছিলের লোকজন আমার গাড়িটি ঘিরে ধরে। তারা আমার গাড়িটির সামনের গ্লাস ভেঙ্গে ফেলে আর পিছনের কভার ছিড়ে ফেলে। হামলার সময় তারা নৌকা প্রতিকের বিরুদ্ধে বিশ্রি ভাষায় গালমন্দ করে। পরে পুলিশ এসে আমকে চেয়ারম্যান বাড়ির মোড় পর্যন্ত দিয়ে যায়।
এদিকে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অবায়দুল ইসলাম সবুজসহ স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন যে,দশপাকিয়া পুলিশ ফাড়ির আইসি এসআই শাহ জলিলুর রহমান নৌকা প্রতিকের বিরুদ্ধে কাজ করছেন। এই জন্যে তিনি থানায় বদলি হওয়ার পরেও সেখানে যোগদান করেননি।
হামলার ঘটনায় চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল সবুজ বললেন আমি প্রথমে শুনেছি নৌকা প্রতিকের প্রচার গাড়িটি (ইজি বাইক) ভাংচুর করা হয়নি। এখন শুনছি ভাংচুর করা হয়েছে। দশপাকিয়া ফাড়ির আইসি শাহ জলিলুর রহমানের বদলির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন তার বদলি হয়েছিল পরে শারিরিক অসুস্থতার কারনে কর্তৃপক্ষ সেটি বাতিল করেছেন। নৌকা প্রতিকের বিরুদ্ধে আইসির প্রচারনার অভিযোগের বিষয়টি জানতে চাইলে ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ বলেন,“ আমার কাছে কেউ এ ধরনের অভিযোগ করেননি। তাছাড়া কতো রকম অভিযোগতো শোনা যায়। তবে অভিযোগ অবশ্যই সুনির্দিষ্ট হতে হবে। আর পেশাদারিত্বের বাইরে কেউ কিছু করতে পারেনা বলেও মন্তব্য করেন চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ।
অপরদিকে এই বিদ্রোহী প্রার্থী শাহিনুের রহমান শাহিনের বিরুদ্ধে ২০১৬ সালে নৌকা প্রতিকের প্রথম নির্বাচীত চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আবুল কাশেম হত্যাসহ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর অত্যানির্যাতনের অভিযোগে মামলা আছে। শাহিন আবুল কাশেম হত্যা মামলার ১৬৪ ধারা ও চার্জশিটভূক্ত আসামী বলেই জানিয়েছেন মরহুমের ছেলে সোহাগ হোসেন। এছাড়া এই শাহিন ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান থাকাকালিন সময়ে তার অত্যাচারে ১৬২টি হিন্দু পরিবার দেশ ছেড়ে চলে গেছেন বলেও অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা।
ইউনিয়নের নৌকা প্রতিকের প্রার্থী অবায়দুল ইসলাম সবুজ বলেন,সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর অত্যাচার ও তাদের দেশ ছেড়ে চলে যাওয়ার ঘটানায় সেসময় মানব বন্ধন হয়েছে। শাহিনসহ ৭জনের নাম উল্লেখসহ আরো অজ্ঞাত ১০/১৫ জনের নামে মামলাও হয়েছিল। সে ঘটনায় বাংলাদেশ হিন্দু বৈদ্ধ ঐক্য পরিষদের সভাপতি রানা দাশগুপ্তসহ তৎকালিন যশোর জেলা প্রশাসন ও পুলিশ সুপার ঘটনাস্থল পরদির্শন করেছিলেন। এবং পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান (পিপিএম,বিপি এম বার) এই শাহিনুর রহমান শাহিনকে গ্রেফতারের জন্য পুরষ্কার ঘোষনা করেছিলেন।
আবারো সেই শাহিন বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে সংখ্যালঘু এলাকায় ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করছে এবং তাদেরকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে চলেছে। এই হিন্দু অধ্যুষিত এলাকার বাসিন্দারা যাতে নিরাপদে ভোট দিতে যেতে পারে তার জন্যে যথাযত কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন অবায়দুল ইসলাম সবুজ।
এসকল বিষয়ে জানতে সাবেক চেয়ারম্যান ও বর্তমান বিদ্রোহী প্রার্থী শাহিনুর রহমান শাহিনকে ৫নভেম্বর রাত ৯.৪৯ মিনিটে তার মুঠোফোনে (০১৭৫৫৮৯০৬৬৬) কল করা হলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়।