চৌগাছায় সন্ত্রাসী হামলা ও পুলিশের হুমকির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলনের পরের দিনই থানায় মামলা দায়ের

0
333

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় সন্ত্রাসী হামলা ও পুলিশি হুমকির প্রতিবাদে সংবাদ সন্মেলনের পরের দিনই পুলিশি তদন্তে প্রকৃত ঘটনার সত্যতা মিলেছে। বৃহস্পতিবার সংবাদ সন্মেলনের খবর ভোরের কাগজসহ বিভিন্ন সংবাদপত্রে ফলাও করে প্রচার হওয়ার পরেই ঘটনা তদন্তে আসেন চৌগাছা থানার এসআই বজলু,এসআই গিয়াস ও এএসআই ইমদাদ। তদন্ত শেষে ২২ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সন্ত্রাসী হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় অভিযুক্ত ৪ জনের নাম উল্লেখ করে চৌগাছা থানায় একটি মামলাও দায়ের করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজীব। মামলা নং-৩০। তবে পুলিশি তদন্ত শেষে মামলা রুজু হলেও এখনো ভাংচুরের ঘটনা মানতে রাজি না চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজীব। তিনি বলেন ভাংচুরের ঘটনা যে কেউ সাজাতে পারে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার পরে নারায়নপুর ইউনিয়নের বাদে খানপুর গ্রামে সরেজমিন ঘটনা তদন্তে যান চৌগাছা প্রেসক্লাবের সভাপতি ও ভোরের কাগজের প্রতিনিধি জিয়াউর রহমান রিন্টু,সম্পাদক প্রভাষক অমেদুল ইসলাম, দপ্তর সম্পাদক ও দৈনিক প্রতিদিনের কথা’র ফিরোজ হোসেন, আমাদের সময়’র আজিজুর রহমানসহ বেশ কয়েকজন সাংবাদিক। তদন্তকালে কথা হয় ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য বাবুল আক্তার, ভূক্তভোগির নিকটতম প্রতিবেশি নজরুল ইসলাম, ফজলুর রহমানসহ অন্যান্য প্রতিবেশিদের সাথে। এসময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন সন্ত্রাসীদের প্রতিরোধে এগিয়ে আসা ও তাদের হাতে আহত হওয়া জামাল হোসেন। উপস্থিত সকলেই লিপিকা সুলতানার (৫৫) বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলা,বাড়ি ভাংচুর ও পুলিশি হুমকির কথা সাংবাদিকদের কাছে তুলে ধরেন।
উল্লেখ্য গত ১৯ অক্টোবর সোমবার তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাত ১০টার পরে অতর্কিত ঘরে ঢুকে লিপিকা সুলতানা (৫৫) নামে এক বৃদ্ধা নারী ও রিয়াদ হোসেন নামে তার ছেলেকে মারধর ও তাদের বাড়ির আসবাবপত্র ভাংচুর করে দূর্বৃত্তরা। ঘটনার পর ওই পরিবারের পক্ষ থেকে জাতীয় পরিষেবা ৯৯৯ ফোন করা হয়। পরে চৌগাছা থানা পুলিশের এসআই কাওসার গিয়ে উল্টো তাদেরই হুমকি দেয় ‘আপনারা ওদের (সন্ত্রাসীদের) সাথে আর গোলযোগ করবেন না। ওরা আপনাদের আর মারবে না। আর আপনারা কেউ বাড়াবাড়ি করবেন না। তাহলে কিন্তু সমস্যা আছে।’
এমন অভিযোগে গত বুধবার দুপরে চৌগাছা প্রেসক্লাবে ওই নারী সংবাদ সম্মেলন করে সাংবাদিকদের কাছে জানতে চান ৯৯৯ এ পুলিশ সাহায্য নেয়া কি আমার অপরাধ হয়েছে। আর আমার বাড়ি ভাংচুর, লুটপাট এবং আমাকে ও আমার ছেলেকে মারধরের ঘটনা তদন্তে এসআই কাওসারের সন্ত্রাসীদের পক্ষে অবস্থানের কারণ কি? এসময় তার সাথে ছোট ছেলে রিয়াদ হোসেন উপস্থিত ছিলেন।