চৌগাছায় পুলিশ পরিচয়ে কলেজ ছাত্রকে বাড়ি থেকে উঠিয়ে হাত পা ভেঙ্গে দিল শীর্ষ সন্ত্রাসী কিলার শামীম

0
187

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় পুলিশ পরিচয়ে রায়হান (১৯) নামে একজন কলেজ ছাত্রকে নিজ বাড়ি থেকে দরজা ভেঙ্গে উঠিয়ে নিয়ে হাতপা ভেঙ্গে দিয়েছে পুলিশের তালিকাভূক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী শামীম কবির ওরফে কিলার শামীম ও তার বাহিনী। খবর পেয়ে ওই রাতেই চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজীবের নির্দেশে রায়হানকে তার নিজ গ্রাম থেকে উদ্ধার করে চৌগাছা উপজেলা মডেল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে থানা পুলিশের একটি দল। কিন্ত তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে কর্তব্যরত চিকিৎসক রায়হানকে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য রেফার করেন। রায়হান গরীবপুর গ্রামের শরিফুল ইসলামের ছেলে ও পাশাপোল কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র।

রায়হান ও তার মা জানিয়েছেন,শনিবার দিবাগত রাত ১টার দিকে উপজেলার গরীবপুর গ্রামে নিজ বাড়িতে ঘুমিয়ে ছিল রায়হান। এমন সময় তার বাড়িতে ৫টি হত্যা ১৭ বছরের জেলসহ ১৪টি মামলার আসামী,পুলিশের তালিকাভূক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী ও পেশাদার খুনি শামীম কবির ওরফে কিলার শামীম, রেজাউল করিম সাগর, সালাম, ইয়াসিন, বোরহান, ইউসুফসহ ১০/১২ জন সন্ত্রাসী শর্টগানসহ বিভিন্ন অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে রায়হানের বাড়িতে আসে।সন্ত্রাসীরা নিজেদেরকে থানা পুলিশের পরিচয় দিয়ে রায়হানকে ডাকতে থাকে। এক পর্যায়ে তারা রায়হানের ঘরের দরজা ভেঙ্গে ভিতরে ঢুকে পড়লে রায়হানের মা কিলার শামীমরে পা জড়িয়ে ধরে। তখন কিলার শামীম রায়হানের মায়ের বুকে লাথি মেরে তাকে ফেলে দিয়ে রায়হানকে ধরে ঘরের বাইরে নিয়ে আসে। বাড়ির উঠনে ফেলে সন্ত্রাসীরা রায়হানকে বেধড়ক মারপিট করতে থাকে। মেখান থেকে তাকে উঠিয়ে বাড়ির বাইরে নিয়ে আসে। সেখানেও লোকজনের সামনে তাকে মারতে থাকে। সেখান থেকে রায়হানকে গ্রামের ফেলা মেম্বরের বাড়ির সামনে নিয়ে এসে তার বুকে শর্টগান ঠেকিয়ে গুলি করতে উদ্যত হয় কিলার শামীম। সেখানে রায়হানকে চারজনে ধরে মাটিতে শুইয়ে ডান পায়ে চাপাতির উল্টোপিঠ দিয়ে পিটাতে থাকে। অত্যাচারের রায়হানের চিৎকারে গ্রামের মানুষজন ঠেকাতে আসলে কিলার শামীম তাদেরকে গুলি করার হুমকি দেয়। এক পর্যায়ে রায়হান অজ্ঞান হয়েগেলে সন্ত্রাসীরা তাকে মৃত ভেবে ফেলে চলে যায়। এদিকে খবর পেয়ে থানা পুলিশ তার গ্রামে গিয়ে পৌছানোর আগে সন্ত্রাসীরা এলাকা ত্যাগ করে চলে যায়।
কেনো রায়হানকে মারা হলো উত্তরে তার মা বলেন, ওই সন্ত্রাসী শামীমের সাথে মিশে না চলার কারনেই আমার ছেলের উপর এই আক্রমন।
উল্লেখ্য এই কিলার শামীম চাঞ্চল্যকর যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও ৩নং সিংহঝুলি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান মিন্টু , শিশু সৌরভসহ ৫টি হত্যাকান্ডে সরাসরি জড়িত। তার নামে একটি অস্ত্র মামলায় ১৭ বছরের সাজাসহ ডজনের অধিক মামলা আছে। যে শর্টগান দিয়ে কিলার শামীম জিল্লুর রহমান মিন্টুকে হত্যা করেছিল সেই শর্টগানটা পুলিশ আজও উদ্ধার করতে না পারলেও কিলার শামীম সেটি নিয়মিতই ব্যভহার কওে আসছে। এছাড়াও কিভাবে এই শীর্ষ সন্ত্রাসী নিজ গ্রামে অবস্থান করে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করে সেটিও একটি আশ্চর্যের বিষয় বলেই জানিয়েছেন উপজেলার সাধারন জনগন।
যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের ডাক্তার মাশরাফি বলেন, রায়হানের মাথা, ডান হাত ও ডান পায়ের অবস্থা আশঙ্কাজনক। নাকের অবস্থাটাও ভালনা। ২৪ ঘন্টা না গেলে কিছু বলা যাচ্ছেনা।
এ বিষয়ে চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজীব ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এখন কোন অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলেই আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
সন্ত্রাসী কিলার শামীম ও তার সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের ব্যাপারে যশোর-২ (চৌগাছা-ঝিকরগাছা) আসনের এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর জেনারেল (অব) অধ্যাপক ডা.নাসির উদ্দিন বলেন,আমি বার বার এসপি ওসিকে বলা সত্বেও কিভাবে এই সন্ত্রাসী এলাকায় অবস্থান করে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করে আমি বুঝি না। প্রায় শুনি চৌগাছাতে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ঘটে। এই যদি অবস্থা হয় তাহলে ওসি কি করেন প্রশ্ন করলেন তিনি।