চৌগাছায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের গ্রেডবিমের কাজে অনিয়ম, কাজ বন্ধ করে দিল গ্রামবাসি

0
106

 চৌগাছা ( যশোর) প্রতিনিধিঃযশোরের চৌগাছা উপজেলা প্রকৌশল অধিদফতরের অধীন কমলাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণ কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগে কাজ বন্ধ করে দিয়েছে গ্রামবাসী। কাজে উপ-সহকারী প্রকৌশলী সাইদুর রহমানের চরম গাফিলতি রয়েছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। গ্রামবাসির অভিযোগ ঠিকাদারের সাথে প্রকৌশল অফিসের যোগসাজশে এই অনিয়ম করা হয়েছে।
আজ রবিবার দুপুরে পাশ্ববর্তী মহেশপুর উপজেলার কমলাপুর গ্রামের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এই ঘটনা ঘটে।
 সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গেলে দেখা যায় বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণ কাজের গ্রেটবিম ঢালাই সম্পন্ন হয়েছে। সম্পূর্ণ বিল্ডিংয়ের গ্রেডবিম ঢালাই ও গ্রেডবিমের নিচের সাইড ওয়ালের ঢালাইয়ে চরম অনিয়ম হয়েছে। গ্রেডবিমের সেন্টারিংয়ের কাজের বাঁকা ও দুর্বল কাঠ ব্যবহার করায় প্রতিটি গ্রেডবিম ট্যারাবাঁকা হয়ে রয়েছে। এছাড়া নিচের সাইডওয়াল ঢালাইয়ে স্থানে স্থানে ক্ষত চিহ্নের মত হয়ে রয়েছে। সেখানে কোন রকম খোয়া-সিমেন্ট না থাকায় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। শুধুমাত্র সেন্টারিংয়ের রড দেখা যাচ্ছে। বারান্দার একপাশে একটি বড় জানালার মত জায়গায় মোটেই ঢালাই করা হয় নি। সেটিতেও শুধুমাত্র সেন্টারিংয়ের রড দেখা যাচ্ছে।
স্থানীয়রা জানান, রবিবার সকাল থেকে কাজের সাইডের শ্রমিকরা গ্রেডবিম ও তার নিচের সাইডওয়ালের সেন্টারিং খুলে তড়িঘড়ি করে মাটি ভরাটের চেষ্টা করছিল। এসময় গ্রামের বাচ্চারা দেখে সম্পূর্ণ বিল্ডিংয়ের গ্রেডবিমের নিচের সাইডওয়ালের বিভিন্নস্থানে ঢালাই হয়নি। সেখানে বড় বড় গর্তের মত। বারান্দার একপাশের সাইডওয়ালে কোন রকম ঢালাই হয়নি। শুধুমাত্র সেন্টারিংয়ের রড বের হয়ে রয়েছে। এসময় বাচ্চারা তাদের অভিভাবকদের খবর দিলে ঘটনা জানাজানি হয়। তখন গ্রামের মেম্বার বিল্টু মিয়ার নেতৃত্বে স্থানীয়রা এসে কাজ বন্ধ করে দেন। এরপরও গ্রামের লোকজন চলে গেলে শ্রমিকরা আবার মাটি ভরাট করেন। পরে সাংবাদিকরা ঘটনাস্থলে গিয়ে এর সত্যতা দেখতে পান। এসময় উত্তেজিত গ্রামবাসি কাজের সাইডের শ্রমিকদের প্রতি মারমুখি অবস্থান নেয়।
 স্থানীয় মান্দারবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের কমলাপুর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য বিল্টু মিয়া জানান, আমি নিজে এসে এখানকার ঠিকাদার ও শ্রমিকদের বলে গিয়েছিলাম এখানে কাজে আপনাদের কেউ কোনভাবে ডিস্টার্ব করবে না। তবে কাজ ভাল করে করতে হবে। আমি তাদের এও বলেছিলাম কেউ যদি পাঁচটাকাও চাঁদা বা কোন কিছু দাবি করে তাহলে আমাকে বলবেন। আমি এসে বুঝবো। তবে কাজে কোন ফাঁকি দেবেন না। কিন্তু তারা আমাদের ভালোমানুষিকে দুর্বলতা ভেবে যেমন ইচ্ছা তেমন কাজ করেছে। তিনি কাজের গর্তগুলো এবং গ্রেডবিময়ের ত্রুটি দেখিয়ে বলেন এটা কোন বিল্ডিংয়ের কাজ হলো? ঠিকাদারকে বারবার কল করলেও তিনি কাজের সাইডে আসেন নি। তিনি বলেন এই ত্রুটিপূর্ণ কাজ কোন ভাবেই আমরা মেনে নেব না। এই কাজ সম্পূর্ণ নতুন করে করতে হবে। তিনি বলেন বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আমিনুর রহমানকেও আমরা জানিয়েছি। তিনিও বলেছেন কাজটি বন্ধ রাখতে। তবুও শ্রমিকরা ভরাট করেই চলেছিল। পরে স্থানীয়রা এসে সেটা বন্ধ করে। স্থানীয় সোনা মিয়া, সাজ্জাদ খান সাজুসহ গ্রামবাসিরা মেম্বারের কথার সমর্থন করেন।
এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী মুনছুর রহমানের কাছে মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি অসুস্থ থাকায় অফিসে যেতে পারিনি। অভিযোগ পেয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে বলেছি স্কুলটিতে গিয়ে সরেজমিনে অবস্থা দেখতে। যদি অবস্থা খারাপ হয় তাহলে কাজটি বন্ধ করে দিতে। আমি নিজে গিয়ে দেখার আগ পর্যন্ত কাজটি বন্ধ থাকবে। তবে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে কল করলে সেটি বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।
এদিকে স্কুলটিতে গিয়ে দেখা যায় কাজের সাইডের শ্রমিকদের জন্য ঠিকাদার কোন শেড তৈরি করেন নি। স্কুলের সম্প্রতি রংচংকরা একটি বিল্ডিংয়ের মধ্যে শ্রমিকরা থেকে অপরিস্কার করে রেখেছেন। ভবনটির বারান্দায় ঠিকাদার সিমেন্ট রেখে বিল্ডিংটিকে একেবারে নোংরা করে রেখেছেন। স্থানীয়রা বলেছেন মধ্য ফেব্রুয়ারি বা মার্চের শুরুতে যদি স্কুল খোলা হয় তাহলে বাচ্চারা কোথায় ক্লাস করবে? আর এই ভাবে নোংরা করে রাখলে কিছুদিন আগেই ভবনটি রংচং করারই বা প্রয়োজন কি ছিল? আর শ্রমিকদের শেড করার জন্য যে টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে সে টাকাই বা কোথায় গেল? তারা বলেন প্রকৌশল অফিসের লোকজনকে এ বিষয়ে বারবার বলা সত্বেও এ বিষয়ে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।