চৌগাছায় বিএনপির সন্ত্রাসীদের হামলায় আ’লীগের দুই নেতা জখম

0
158

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় বিএনপির চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের হামলায় উপজেলা আওয়ামী লীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের দুই নেতা আহত হয়েছে।
রোববার বিকেল আনুমানিক আড়াইটার দিকে যশোর-চৌগাছা সড়কের উপজেলার সলুয়া ডিগ্রী কলেজের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

সন্ত্রাসী হামলায় আহতরা হলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও সদর ইউনিয়নের সাবেক মেম্বর মনমথপুর গ্রামের আওরঙ্গজেব চুন্নু (৬৫) এবং পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও তারনিবাস গ্রামের আসাদুল ইসলামের ছেলে হারুন অর রশিদ(৩৫)।

আহত আওরঙ্গজেব চুন্নু এবং হারুন অর রশিদ হাসপাতালে সাংবাদিকদের জানায়, আমরা যশোর থেকে চৌগাছায় ফিরছিলাম। ফেরার পথে চৌগাছার সলুয়া কলেজের সামনে পৌঁছালে চৌগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য নব্য আওয়ামী লীগার জসিম উদ্দীনের নেতৃত্বে যশোর চুড়ামনকাঠি বিএনপির চিহ্নিত ৭/৮ সন্ত্রাসীরা একটি মাইক্রোবাসে (জীপ) করে আমাদের বহনকারি মাইক্রোবাসটির গতিরোধ করে। এসম কিছু বুঝে উঠার হারুনকে গাড়ি থেকে নামিয়ে চৌগাছা শহরের ফুডল্যান্ড রেস্টুরেন্টের মালিক বিএনপির চিহ্নিত সন্ত্রাসী আবুল কালাম আজাদসহ মুখে মাষ্ক ও হেলমেট পরা ৭/৮ জন সন্ত্রাসী লোহার রড ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাকে এলোপাড়ি মারপিট করে। এসময় জসিম চিৎকার করে গাড়িতে বসে থাকা আওয়ামী লীগ নেতাকে ধরতে নির্দেশ দেয়। তখন সন্ত্রাসীরা আওরঙ্গজেব চুন্নুকে আক্রমন করে। হামলায় আমাদেরকে মরাপন্ন অবস্থা দেখে তারা দ্রুত চলে যায়। পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে আমাদেরকে চৌগাছা হাসপাতালে ভর্তি করে।

চৌগাছা হাসপাতালের জরুরী বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাজিন আহসান বলেন, আহতদের হাতে, পায়ে, পিঠেসহ শরিরের বিভিন্ন স্থানে কাটা ফোলা ও ভাঙ্গাসহ গুরুতর জখম হয়েছে। দুজনেরই অবস্থা গুরুতর। স্বজনদের ইচ্ছায় তাদের দুজনকেই যশোরে রেফার্ড করা হয়েছে।

১নং ফুলসারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও চৌগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মেহেদী মাসুদ চৌধূরী বলেন,যারা এই শোকের মাসে দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের উপর সন্ত্রাসী হামলা করে তারা আর যাই হোক আওয়ামী লীগের কেউ হতে পারে না।

চৌগাছা উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক জিয়াউর রহমান রিন্টু বলেন, শোকাবহ আগষ্টে যারা দলীয় নেতা কর্মীদের উপরে হামলা করে তারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের কেউ হতে পারেনা। তাদের যদি আওয়ামী লীগের দলীয় পদ থেকেও থাকে,তবে তারা জামায়াত বিএনপির প্রেতাত্মা, দলে অনুপ্রবেশকারি। আমি আশা করছি এ ঘটনায় দলীয় কেউ জড়িত থাকলে দল তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেবে এবং পুলিশ প্রশাসন দ্রুত দোষিদের আটক করে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির ব্যবস্থা করবে।

চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, অন্যায়কারি যেই হোক না কেনো, সে রেহায় পাবেনা। তাদেরকে খুব শিগরিই আটক করে আইনে সোপার্দ করা হবে।