চৌগাছায় ভয় দেখিয়ে শিশুকে ধর্ষণ ওয়েল্ডিং

0
28

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় খেলতে থাকা এক শিশু শিক্ষার্থীকে (৭) তুলে নিয়ে ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ করেছে বলে নাসিম (১৫) নামে এক ওয়েল্ডিং কর্মচারী কিশোরের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। ধর্ষিতা উপজেলার একটি গ্রামের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২য় শ্রেণির শিক্ষার্থী। ধর্ষক একই গ্রামের হাসানুজ্জামানের ছেলে এবং চৌগাছা শহরের দামোদর বটতলায় একটি ওয়েল্ডিংয়ের দোকানের কর্মচারী। এবিষয়ে সোমবার দুপুরে চৌগাছা থানায় ধর্ষিতার মা একটি মামলা করেছেন।
চৌগাছা উপজেলা হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক জানিয়েছেন শিশুটি ধর্ষণ হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা হওয়ায় বিষয়টি থানা-পুলিশকে জানানো হয়। শিশুটিকে ধর্ষণ করা হয়েছে কিনা সেটি পরীক্ষার পর সঠিকভাবে বলা যাবে। তবে তার শরীরের বাইরের অংশে ফিজিক্যাল এ্যাসাল্ট হয়েছে।
রোববার (৬ অক্টোবর) বিকাল পাঁচটার পরে গ্রামে খেলার সময় পাশের একটি পাটক্ষেতে নিয়ে ভয়-ভীতি দেখিয়ে শিশুটিকে ধর্ষণ করে নাসিম। তবে সোমবার শিশুটিকে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিলে বিষয়টি জানাজানি হয়।
শিশুটির মা’র বরাত দিয়ে চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজীব বলেন, রোববার বিকেলে পর শিশুটি বাড়ির পাশের অন্য শিশুদের সাথে বাড়ির পাশেই খেলা করছিল। পাঁচটার কিছু পরে গ্রামের বখাটে নাসিম তাকে কৌশলে পাশের পাটক্ষেতে নিয়ে গিয়ে ভয়-ভীতি দেখিয়ে ধর্ষণ করে। মেয়েটি বাড়ি ফিরেও ভয়ে কাউকে কিছু বলেনি। পরে প্রশ্রাবের সময় শিশুটি গোপনাঙ্গে ব্যাথার বিষয়ে মাকে বলে। শিশুটির মা কেন ব্যাথা হয়েছে জানতে চাইলে শিশুটি মাকে বিষয়টি খুলে বলে। সোমবার বেলা ১১ টার দিকে শিশুটিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে সেখান থেকে বিষয়টি চৌগাছা থানায় জানানো হয়। পরে চৌগাছা থানা পুলিশ শিশুটি ও তার মা’কে থানায় নেয়। সেখানে শিশুটির মা মামলা করেন।
ওসি রিফাত খান রাজীব আরো বলেন এ বিষয়ে মামলা হয়েছে। শিশুটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
স্থানীয়রা বলছেন ওই কিশোর বখে গিয়েছে। সে একটি ওয়েল্ডিংয়ের দোকানে কাজ করলেও সেই দোকানে গিয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে দোকান থেকে গত শুক্রবার পাওনা টাকা নিয়ে চলে গেছে। আর কাজে আসেনি। স্থানীয়রা আরো জানান ওই কিশোর গ্রামে নেশাগ্রস্থ হিসেবে পরিচিত।