চৌগাছায় মাদ্রাসা সুপারের বিরুদ্ধে এমপির স্বাক্ষর ও ডিও লেটার জালিয়াতির অভিযোগ

0
206

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় এক আলিম মাদ্রাসার সুপারের বিরুদ্ধে স্থানীয় এমপির ডিও লেটার ও স্বাক্ষর জাল করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ডিও লেটার ও স্বাক্ষর জালিয়াতি করে সুপার নিজের মদদপুষ্ট ব্যাক্তিকে পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও অন্যদের সদস্য প্রস্তাব করে বাংলাদেশ মাদ্রাসা বোর্ডে অনুমোদনের জন্য জমা দিয়েছেন।
জানাগেছে আগামী ৭ জানুয়ারি উপজেলার ডি.এম.সি.ইউ আলিম মাদ্রাসার এডহক কমিটির মেয়াদ শেষ হবে। তারআগেই নতুন কমিটি অনুমোদনের জন্য মাদ্রাসার সুপার মাও. হাফিজুর রহমান একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটির নামের তালিকা তৈরি করে ১৩ ডিসেম্বর মাদ্রাসা বোর্ডে জমা দিয়েছেন। সভাপতি পদে সুপারিশের জন্য স্থানীয় এমপির যে ডিওলেটার তিনি ব্যবহার করেছেন তা সঠিক নয় বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর জেনারেল (অব) অধ্যাপক ডা. নাসির উদ্দিন। নতুন কমিটিতে সুপারের পছন্দের ব্যাক্তি তবিবর রহমান খানকে সভাপতির পদে প্রস্তাব করেছেন। অভিযোগ রয়েছে সেই কমিটিতে প্রতিষ্ঠানের দাতা সদস্যের নামও বাদ দেওয়া হয়েছে। কমিটির অন্যান্য সদস্য পদেও প্রতিষ্ঠান প্রধানের মদতপুষ্ট ব্যাক্তিদের নাম পাঠানো হয়েছে।
অন্যদিকে মাদ্রাসার অভিভাবক মোকাব্বর হোসেন, লাল্টু, শাহাজান আলীসহ আরো অনেকেই জানিয়েছেন, মাদ্রাসার সুপার নিয়োগ বাণিজ্যের মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়াসহ নানা ধরনের অনিয়ম করে আসছে।এমনকি ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দবিসের সূবর্নজয়ন্তীতে প্রধানমন্ত্রীর শপথ বাক্য পাঠে অংশগ্রহনের জন্য প্রতিষ্ঠানে কোনো আয়োজন করা হয়নি। এসব অনিয়ম ও দূূর্ণীতি করার জন্য সুপার তার মদদপুষ্টদের নিয়ে নতুন কমিটি করার পায়তারা করছেন।
মৃত করিম বকসের ছেলে শাহাজান আলী অভিযোগ করেন, আমি দাতা সদস্য। আমার বাবার জমিতে মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠিত হয়। আমরা মাদ্রাসার জন্য জমি দান করেছি। কিন্তু নতুন কমিটিতে কোনো দাতা সদস্য রাখা হয়নি।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আবু কামাল রফিকুজ্জামান বলেন, ‘বিষয়টি সম্পর্কে আমি জানতে চাইলে মাদ্রাসার সুপার জানিয়েছেন পূর্বের একটি ডিও তার কাছে ছিলো সেটি তিনি ব্যবহার করেছেন’।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউরুফা সুলতানা বলেন, ১৯ ডিসেম্বর মাদ্রাসার সুপার আমার কাছে এসেছিলেন। তাকে আমি কমিটি সংক্রান্ত সকল কাগজপত্র নিয়ে ২০ ডিসেম্বর বিকালে আমার দপ্তরে আসতে বলেছি। কাগজপত্র দেখার পরে বিস্তারিত বলতে পারবো।
সংসদসদস্য মেজর জেনারেল (অব.) ডা. নাসির উদ্দীন বলেন, ‘বর্তমান যে কমিটি রয়েছে সেই কমিটির সভাপতির জন্য ডিও দিয়েছিলাম। এই কমিটির মেয়াদ ২০২২ সালের জানুয়ারী মাসে শেষ হবে। পরবর্তী নতুন কমিটির সভাপতির জন্য মাষ্টার সিরাজুল ইসলামকে ডিও লেটার দিয়েছি। তিনি আরো বলেন, মাদ্রাসা বোর্ডে আমি খোজ নিয়েছি। সুপার সাহেব আমার স্বাক্ষরিত একটি ডিও জালিয়াতি করে নতুন কমিটির জন্য আবেদ করেছেন। তিনি বলেন, ডিও এবং আমার স্বাক্ষর জালিয়াতির জন্য আমি সুপারের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেবো।
ডি.এম.সি.ইউ. মাদ্রাসার সুপার মাও. হাফিজুর রহমান বলেন, কমিটি নিয়ে কি হচ্ছে আমিও তো কিছু বুঝতে পারছিনা। আমার কাছে মাদ্রাসা বোর্ড থেকে ফোন দিয়ে বলেছে কমিটির জন্য আমি যে ডিও ব্যবহার করেছি তা নাকি সঠিক নয়। নতুন কমিটির জন্য ডিও লেটার নিয়ে দিয়েছেন তবিবর রহমান। তিনিই ভালো জানেন। আপনি মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের কাছে বলেছেন ‘আমার কাছে পুরাতন ডিও ছিলো’। দুইরকম উত্তরের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি চুপ থাকেন।