চৌগাছায় রাজনৈতিক পদধারি সুদে ব্যবসায়ির কারনে নিঃস্ব হয়েছেন অনেকে

0
1193

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় সুদের রমরমা ব্যবসা করছেন রাজনৈতিক নেতাসহ বিভিন্ন ব্যক্তিরা। এ ব্যবসায় উপজেলা বিএনপির শীর্ষ নেতারা যেমন আছেন, তেমনি আছে আওয়ামী লীগ নামধারী সুবিধাবাদিরা।
এই সকল সুদে ব্যবসায়ির কাছ থেকে সুদে টাকা নিতে জমা দিতে হয় ব্যাংকের তারিখ বিহীন স্ব-স্বাক্ষরিত চেক। সুদের হার ১০% থেকে শুরু করে উর্দ্ধমুখি। সেই সুদের ঘানি টানতে টানতে সহায়-সম্বল হারিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন উপজেলার অনেকে।
বিভিন্ন নামে চলে এই সুদের ব্যবসা। কখনো জমি লিজের নামে, কখনো ফসলের হিসেবে কখনো বা নগদ লেনদেনে। ব্যক্তি পর্যায়ের এই সুদে ব্যবসার কাছে হার মেনেছে সকল মাইক্রো ক্রেডিট বা ক্ষুদ্র ঋন প্রকল্প।
এই সুদের বোঝা টানতে টানতে ভুক্তভোগিদের কেউ নিজ ভিটে বাড়ি কেউবা পৈত্রিক জমি বিক্রি করে আসল টাকা শোধ করলেও জামানত হিসেবে চেকের পাতাটিও ফেরৎ পাননি। কিন্তু সেই চেকের কারনে চেক ডিজঅনারের মামলায় ফেসেছেন অনেকে। কোনো কোনো সুদে ব্যবসায়ি আবার ৮ লাখ টাকার চেক নিজ কারসাজিতে করেছেন ১৮ লাখ। এভাবে সব হারিয়ে কেউ মৃত্যুবরন করেছেন, কেউ বা গ্রাম ছেড়েছেন আর বাকিরা মানবেতর জীবন যাপন করছেন। কোনো কোনো আদায়কারি আবার অপহরনে শিকারও হয়েছেন। তারপরেও সুদে কারবারির হাত থেকে বাচতে নিস্তার নেই ভূক্তভোগিদের।
সরেজমিন তদন্তে কথা হয় হায়দার,মিজান,নজরুল ইসলামসহ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভুক্তভোগিদের সাথে।
উপজেলার বিখ্যাত সুদে ব্যবসায়ি আমজেদ হাজির ছেলে সুদে মিঠুর সুদের ঘানি টানতে গিয়ে ভিটে বিক্রি করেছেন চৌগাছার ব্যবসায়ি হায়দার। তারপরেও মিঠু হায়দারের নামে করেছে চেক ডিজঅনারের মামলা। এ ঘটনায় হায়দার চৌগাছা প্রেসক্লাবে সংবাদ সন্মেলন করেছিলেন।
ঢাকায় পরিচ্ছন্নতা কর্মীর কাজ করেন উপজেলার রোস্তমপুর গ্রামের মিজানুর রহমান। তিনি জানালেন, প্রায় ৫/৭ বছর আগে মফেজ ধনীর ছেলে মান্নান ও কালামের (আপন দুই ভাই) কাছ থেকে ৬ লাখ টাকা নিয়েছিলাম। সেই টাকায় প্রতি মাসে ৩৬ হাজার টাকা (লাখে ৬ হাজার) সুদ দিতে হতো। ১ থেকে দেড় বছর সুদের ঘানি টেনে ঢাকা পালিয়ে আসি। এদিকে টাকার জন্য পরিবারের উপর চাপ দিতে থাকে সুদে ব্যবসায়ি মান্নান ও কালাম। টাকা শোধ করার জন্য ৫০ হাজার টাকা মাফ করতে বলেছিলাম কিন্তু সুদে মান্নানের এক কথা “একটি টাকাও কম নেওয়া হবে না”। শেষমেশ ২ বিঘা জমি বিক্রি করে পিতা বদিয়ার রহমানের মাধ্যমে তাদের টাকা শোধ করি। টাকা শোধ হলেও সোনালী ব্যাংকের সেই তারিখ বিহীন চেকটি আজও ফেরৎ পায়নি।
উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক আহ্বায়ক নজরুল ইসলামের ছেলে মরহুম তরিকুল ইসলাম। ব্যবসায়িক প্রয়োজনে উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও বর্তমান যুগ্ম-আহবায়ক এমএ সালামের কাছ থেকে ৮ লাখ টাকা নিয়েছিলেন। পরবর্তীতে সেই ৮ লাখ টাকার চেক ওভার রাইটিং করে ১৮ লাখ টাকা করে নেন সালাম। সেই টাকার জন্যে তিনি কোর্টে মামলাও করেন।। পরবর্তীতে ২০১৮/১৯ সালে চৌগাছা থানায় সালাম ও তরিকুল বিষয়টি সমাধান করেন বলে জানিয়েছেন নজরুল ইসলাম। এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সেই সময়ের চৌগাছা থানার সেকেন্ড অফিসার বর্তমান ওসি এসএম আকিকুল ইসলাম। তিনি বলেন,একটি অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনাটি মিমাংসা হয়েছিল।
কথা বলার জন্য মুঠো ফোনে (শনিবার ১.৩৬ মিনিট) উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও বর্তমান যুগ্ম-আহবায়ক এমএ সালামের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। এ প্রতিবেদকের কল অপেক্ষায় থাকলেও কল রিসিভ বা ফিরতি কল করেননি তিনি।
এ সকল বিষয়ে কথা হয় উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি, যুবদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমানে উপজেলা যুবদলের সভাপতি প্রার্থী আব্দুল মান্নান ওরফে মান্নান ধনীর সাথে। মান্নান এমএ সালামের আপন ছোট ভাই। তিনি বলেন,“ আমি সুদের ব্যবসা করিনা। তবে মিজানের কাছে আমি ৪লাখ টাকা পেতাম। ওর কাছে আমার ইট কিনা ছিল। সেই টাকা পেতাম। টাকা কি শোধ হয়েছে উত্তরে তিনি বলেন “টাকা শোধ হয়েছে”। তাহলে চেক ফেরৎ দিলেন না কেনো উত্তরে তিনি বলেন “মিজান তো আমার কাছে চেক ফেরৎ চাইনি”। মরহুম তরিকুলের সাথে আপনার ভাই এমএ সালামের ৮ লাখ টাকার চেক ১৮ লাখ টাকা হওয়ার ঝামেলাটা কি, উত্তরে তিনি বলেন ওটা ১৮ না ৮ লাখ টাকার চেক। আমিই ওটার বিচার করেছিলাম। ” চৌগাছার আলোচিত সুদে ব্যবসায়ি মিঠুর সাথে কি আপনার ব্যবসা ছিল উত্তরে তিনি বলেন,“ না,তবে ওর ওখানে আমি বসতাম।”
শুধু মিজান নয় নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যবসায়ি (যিনি ইটের ব্যবসায়ি না) জানালেন, ৪ বছর আগে মান্নানের কাছ থেকে ১০% সুদে ২ লাখ টাকা নিয়েছিলাম। সেই টাকা ২ বছর আগে শোধ করেছি। যে টাকা মান্নান নিজে স্বাক্ষর করে ইসলামি ব্যাংক চৌগাছা শাখা থেকে নিয়েছেন। কিন্তু আজও আমার চেক ফেরৎ পাইনি। উল্টো ৫০ হাজার টাকা দাবী করে মান্নান। তার ম্যানেজার আকুল মান্নানের সুদের টাকা কালেকশন করে। স্বরুপদা ইউনিয়নের দিরাজ মন্ডলের ছেলে মান্নানের ম্যানেজার আকুল বলেন, আগে মিঠুর সাথে থাকাকালীন টাকা পয়সা নাড়াচাড়া করতাম। আপনি মান্নান ধনীর ম্যানেজার হিসেবে কাজ করেন কিনা উত্তরে তিনি বলেন, “না আমি ওর সাথে মিশি কিন্তু ম্যানেজার না।”
শুধু মান্নানরা না উপজেলাতে সুদে মিঠুসহ ইছাপুর দেওয়ান পাড়ার উল্লেখযোগ্য সুনামধন্য ব্যক্তিবর্গসহ বিভিন্ন ইউনিয়নের মাথাধরা ব্যক্তিরা সুদে ব্যবসার সাথে সরাসরি জড়িত।
এ প্রতিবেদন লিখতে লিখতে প্রতিবেদকের সাথে (শনিবার ১.৪১ মিনিটে) হঠাৎ মুঠো ফোনে কথা বলেন ভুক্তভোগি মিজানুর। তিনি বলেন, “ভাই, মান্নান আমাকে ফোন দিয়েছিল। সে বললো,“ আপনি সাংবাদিকের কাছে কি বলেছেন” উত্তরে তিনি বলেন যা সত্যি তাই বলেছি। মিজানুর বলেন, মান্নান আমাকে বলতে বলছে যে ওসব কথা সত্যি না। তখন আমি মান্নানকে বললাম, আমি তো শেষ। আমি আর আমার বাপ তোমাদের হাত পায়ে ধরেছি কিন্তু তোমরা মাফ করোনি। ভাই, মান্নান এখনো আমার চেক ফেরৎ দেয়নি।”
এ বিষয়ে জানতে চাইলে চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ বলেন এ সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ আমার কাছে আসেনি। অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।