চৌগাছায় সরকারি বিল দখল, গ্রামবাসীর ধাওয়ায় গুলিসহ ম্যাগজিন ফেলে পালিয়েছে সন্ত্রাসীরা

0
113

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের চৌগাছায় একটি সরকারি বিলে অবৈধভাবে মাছ ছাড়তে গিয়ে এলাকাবাসির ধাওয়ায় গুলিসহ ম্যাগাজিন ফেলে পালিয়েছে সন্ত্রাসীরা। গত সোমবার উপজেলার পাশাপোল ইউনিয়নের কালিয়াকুন্ডি গ্রামে সরকারি এড়োলের বিলে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় চৌগাছা থানায় অস্ত্র আইনে একটি মালা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজীব।
গ্রামের মইনুর হোসেন, ওমর ফারুক, জাফর আলী ও আয়ুব আলী জানান এড়োলের বিলে সরকারি জমি দখল করে মাছ চাষ করে আসছিল স্থানীয় নারী ইউপি সদস্য মোমেনার স্বামী জুল হোসেন ও তার ছেলেরা। সরকারি বিলে ভেঁড়ি বাধ দিয়ে মাছ চাষ করায় এলাকার গোপিনাথপুর, বড়-কুলি, দশপাকিয়া, রঘুনাথপুর, মৎস্যরাঙ্গা ও বুড়িন্দিয়া গ্রামের কয়েকশ একর জমির ফসল বর্ষা মৌসুমে পানির নিচে তলিয়ে যায়। প্রতিকার চেয়ে এলাকাবাসী সরকারি বিল অবমুক্তকরনের জন্য গত ১ জুলাই চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও যশোর জেলা প্রশাসকের নিকট স্মারকলিপি দেয়। তৎকালিন উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলাম ও এসিল্যান্ড নারায়ণ চন্দ্র পাল ২৩ জুলাই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ৩০ জুলাই বিলটি অবমুক্ত ঘোষনা করেন। সেই থেকে সরকারি বিলটি অবমুক্ত ছিল।
গত সোমবার (৩০ নভেম্বর) দুপুর ২টার দিকে জুল হোসেন ও তার বড় ছেলে মজনুর নেতৃত্বে ৫০/৬০টি মটরসাইকেলে এক/দেড়শ বহিরাগত সন্ত্রাসী ওই বিলে মাছ ছাড়তে যায়। স্থানীয়রা বিষয়টি জানতে পেরে মসজিদের মাইকে ঘোষনা দিয়ে একত্রিত হয়ে তাদেরকে প্রতিরোধের চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে উত্তেজিত হয়ে জুল হোসেনের ছেলে মজনু পিস্তল বের করে গ্রামবাসীকে গুলি করতে উদ্যত হয়। তখন গ্রামের আহম্মদ আলী পিছন থেকে মজনুর হাতে লাঠি দিয়ে আঘাত করলে মজনুর পিস্তলের একটি গুলিসহ ম্যাগাজিন ছিটকে পড়ে। গ্রামবাসীর ধাওয়ায় সন্ত্রাসীরা পালিয়ে গেলে গ্রামবাসী গুলি ও ম্যাগাজিন হেফাজতে নেয়। এসময় উত্তেজিত গ্রামবাসী জুল হোসেনের বাড়ি আক্রমন করতে উদ্যত হয়। সংবাদ পেয়ে দশপাকিয়া ফাড়ির আইসি এসআই আব্দুল জলিলের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে এবং সন্ত্রাসীদের ফেলে যাওয়া গুলিসহ ম্যাগাজিন ও একটি নম্বরবিহীন পালসার মটরসাইকেল নিজেদের হেফাজতে নেয়।
এবিষয়ে পাশাপোল ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অবাইদুল ইসলাম সবুজ বলেন, বিলের জমি নিয়ে মামলা চলছে। মামলা শেষ না পর্যন্ত উভয় পক্ষকে শান্ত থাকতে বলা হয়েছিল। গত সোমবার জুল হোসেন হঠাৎই প্রশাসনকে না জানিয়ে নিজ ইচ্ছায় বিলে মাছ ছাড়তে গেলে এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।
চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রকৌশলী এনামুল হক বলেন, সে সময় কি হয়েছিল ফাইল না দেখে কিছু বলতে পারছিনা।
তবে সহকারী কমিশনার (ভুমি) নারায়ণ চন্দ্র পাল বলেন, বিলটি তৎকালিন উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলাম ও আমি নিজে গিয়ে বিলটি অবমুক্ত ঘোষনা করি।
চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজীব বলেন, গুলিসহ ম্যাগাজিন ও মটরসাইকেল উদ্ধারের ঘটনায় ৬ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ৩০/৩৫জনের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা হয়েছে। অস্ত্রটি উদ্ধার এবং আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।
অভিযুক্ত জুল হোসেন বলেন, আমি মাছ ছাড়তে যায়নি। সলুয়ার কেউ আমার ভেঁড়িতে মাছ ছাড়তে গিয়েছে শুনে আমি ও আমার ছেলেরা সেখানে দেখতে গিয়েছিলাম।