চৌগাছায় সরকারি সম্পত্তি রক্ষায় আগ্রহ নেই সংশ্লিষ্ট নায়েবদের ??

0
150

বিশেষ প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় জমির অভাবে বন্ধ হতে যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশ্রায়ন-২ প্রকল্প। এদিকে উপজেলার কোটি কোটি টাকার সরকারি জমি অবৈধভাবে রেকর্ড করে ভোগ করছে এক শ্রেনীর ভূমি দস্যু। অথচ জানা সত্ত্বেও এসকল সরকারি সম্পত্তি রক্ষায় ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা বা নায়েবদের যেনো কোনো আগ্রহ নেই। উল্টো তাদের কারসাজিতেই সরকারি এসকল সম্পত্তি ব্যক্তি নামে রেকর্ড হচ্ছে বলে অভিযোগ আছে।
এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত ও মৌখিকভাবে একাধিক অভিযোগ রয়েছে।
জানা যায়, উপজেলার মশ্মমপুর মৌজার সাবেক ৬৯০ এবং হাল ৮৩৫ নং দাগের ৭ একর ৫৬ শতক জমি এখন ব্যক্তিগত সম্পত্তি। ১ নং বা খাস খতিয়ানের বিল শ্রেনীর এই জমির অধিকাংশ এখন ব্যক্তিগত রেকর্ডকৃত সম্পত্তি।
চৌগাছা পৌর ও ইউনিয়ন নায়েব আবু সাঈদ জানিয়েছেন,“এই জমির ৪ একর ৪৬ শতক সরকারের দখলে রয়েছে বাকি ২ একর ৮০ শতক জমি দুজন রাজনৈতিক নেতাসহ বিভিন্ন নামে ৯০ সালে রেকর্ড হয়েছে ”।
পিতম্বরপুর গ্রামের গরীবপুর মৌজায় অবস্থাশালীরা নিজেদের নামে সরকারি জমি বন্দোবস্তো নিয়ে দখল করে রেখেছেন বলে অভিযোগ আছে। এছাড়া বিভিন্ন ইউনিয়নে এধরনের (১/১ এবং ১নং বা খাস খতিয়ানের) জমির অভাব না থাকলেও শুধুমাত্র জমির জন্য গরীব ও অসহায়দের জন্য প্রধানমন্ত্রীর মহৎ উদ্যোগ,“ যার জমি নেই ঘরও নেই তাদের জন্য জমিসহ বাড়” প্রদান বন্ধ হতে যাচ্ছে।
রাস্তার পাশের সরকারি গাছ রক্ষা করাও নায়েবদের দায়িত্ব। গত ঈদুল ফিতরের আগের দিন উপজেলার ধূলিয়ানি গ্রামের এক ব্যক্তি রাস্তার পাশের ৪/৫ লাখ টাকা মূল্যের কয়েকটি মেহগনি গাছ কেটে নিয়েছেন বলে স্থানীয়রা ছবিসহ অভিযোগ করেছিলেন।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ নায়েবকেও ছবিসহ জানানো হয়েছিল। কিন্তু নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশ সত্ত্বেও নায়েব রেজাউল ইসলাম আজ পর্যন্ত সেবিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেননি। ৭জুন নায়েব রেজাউল ইসলামের সাথে সর্বশেষ কথা হলে তিনি বলেন,“দেখি সার্ভেয়ার পাই কিনা!”
অভিযোগ আছে উপজেলার স্বরুপদাহ ভূমি অফিসে ৪৪৮ টাকার কাজের জন্য নায়েবকে দেওয়া লেগেছে ৫ হাজার টাকা। নায়েব জাহাঙ্গীর আলমের এই কাজে ক্ষুদ্ধ সেবা গ্রহীতা এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে অভিযোগও দিয়েছিলেন।
এ সকল বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইরুফা সুলতানা বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশ্রায়ন-২ প্রকল্পের অধীনে আগামীতে ১০৯টি ঘরের তালিকা আছে। সেই ঘরের জন্য জমি সংকট। আর স্বরুপদাহ্ ইউনিয়নের নায়েবের বিরুদ্ধে অভিযোগটিপ্রমান হয়নি। মশ্মমপুরের সরকারি জমি ব্যক্তি নামে রেকর্ডের বিষয়ে তিনি বলেন,“ নায়েবকে আমি রেকর্ড সংশোধণী মামলা করতে বলবো ”। এবং ধূলিয়ানির গাছের বিষেয়ে নায়েব তাকে কিছু জানাননি বলেও জানান তিনি।