চৌগাছায় সেচ লাইসেন্স নিয়ে বিএডিসির কর্মকর্তা ও প্রতিনিধির অর্থ বানিজ্যের অভিযোগ

0
231

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় সেচ লাইসেন্স পেতে অর্থবানিজ্য ও গ্রাহক ভোগান্তির অভিযোগ উঠেছে। অবৈধ উপায়ে সেচ লাইসেন্স দেওয়া এবং টাকা না দিলে লাইসেন্স না দেওয়া এমনকি বৈধ লাইসেন্স নবায়ন না করে বাতিল করার মতো অভিযোগ উঠেছে যশোর বিএডিসির সহকারি প্রকৌশলি জাকির হোসেন ও তার প্রতিনিধি (ইলেকট্রিশিয়ান) নিয়াজুলের বিরুদ্ধে।

ভূক্তভোগি কৃষকদের অভিযোগের ভিত্তিতে উপজেলার বেশ কয়েকটি সেচ স্কিম সরেজমিনে এবং স্থানীয় কৃষকদের সাথে কথা বলে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়। এছাড়া একটি ভিডিও ফুটেজে দেখা যায় বিএডিসির প্রতিনিধি নিয়াজুল একজন লাইসেন্স পেতে আগ্রহী কৃষকের কাছ থেকে টাকা নিচ্ছেন (সবগুলো ১ হাজার টাকার নোট)। কিন্তু পরবর্তী আরো টাকা না দেওয়ায় তাকে সেই লাইসেন্স দেওয়া হয়নি এমনকি বেশি টাকার বিনিময়ে অন্য একজনকে সেই লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ করেছেন ওই ভূক্তভোগী।

উপজেলার সুখপুকুরিয়া, আড়শিংড়েপুকুরিয়া, মাধবপুর,ইন্দ্রপুর, বাঘারদাড়ি, মাকাপুরসহ বেশ কয়েকটি গ্রামের সেচ প্রকল্পগুলো দেখলে বোঝা যায় সেখানে সরকারি নিয়ম মানা হয়নি। স্থানীয়রা বলছেন লাইসেন্স পেতে ১ থেকে দেড় লাখ টাকা করে খরচ হয়।

সরকারি নিয়মে দুটি অগভীর নলকূপের মধ্যে দূরত্ব হবে ৮০০ ফুট, দুটি গভীর নলকূপের মধ্যে ২৫০০ ফুট এবং একটি গভীর নলকূপ হতে অপর একটি অগভীর নলকূপের দূরত্ব হবে ৮০০ ফুট। কিন্তু সেচ কমিটি প্রদত্ত বিভিন্ন লাইসেন্সের নলকূপগুলো দেখলে দেখা যায় একটি অগভীর নলকূপ থেকে অন্যটির দূরত্ব ৩৫০ থেকে সর্বোচ্চ ৬০০ ফুট। এছাড়াও বিএডিসির এই দূর্নীতিগ্রস্ত কর্মকর্তাদের কারনে দীর্ঘদিন আবেদন করা কৃষকরাও শুধু টাকা দিতে নাপারার কারনে সেচ লাইসেন্স পাচ্ছেন না বলেও অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি ভগবানপুর গ্রামে একটি অগভীর নলকূপ থাকা সত্বেও সেটি থেকে ১৩০০ ফুটের মধ্যে একটি গভীর নলকূপের লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে। আড়কান্দি গ্রামের আবু তাহের ২০২১ সালের জুন / জুলাই মাসে তার কৃষি জমিতে অগভীর নলকূপের লাইসেন্সর জন্য নীতিমালা অনুযায়ী সব শর্ত মেনে সেচ কমিটি বরাবর আবেদন করেন।। কিন্তু আজ পর্যন্ত তার লাইসেন্স দেওয়া হয়নি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা সেচ কমিটির সদ্য সচিব ও যশোর বিএডিসির সহকারি প্রকৌশলি জাকির হোসেনকে ফোনে পাওয়া যায়নি। তবে তার প্রতিনিধি (ইলেকট্রিশিয়ান) নিয়াজুলকে বলেন, কমিটির সকলে মিলে লাইসেন্স দেয়। আমার একার কোনো দোষ নেই।

সেচ লাইসেন্স সংক্রান্ত বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান ড.মোস্তানিছুর রহমান বলেন,আপনাদের কোনো অভিযোগ থাকলে বলেন। তখন তাকে এই সকল বিষয়ে জানানো হলে তিনি দেখবেন বলে জানান।

উপজেলা সেচ কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইরুফা সুলতানা বলেন, এবিষয়ে কোনো অভিযোগ পাইনি। তবে অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।