চৌগাছায় স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষন চেষ্টা !

0
61

চৌগাছা যশোর প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছায় সপ্তম শ্রেনীর এক ছাত্রীকে (১৪) ধর্ষনের চেষ্টার ঘটনা ঘটেছে। একই গ্রামের আলতাফের ছেলে মাঝ বয়েসি মশিয়ার (৫০) ছাত্রীটিকে ধর্ষনের চেষ্টা করেছে বলে জানিয়েছে ভুক্তভোগী পরিবার। ঘটনার পরপরই ওই ছাত্রীটি বিষ খেয়ে আত্নহত্যার চেষ্টা করে।
গত শুক্রবার উপজেলার নিয়ামতপুর গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে। ৩দিন চিকিৎসা শেষে রবিবার দুপুরে নিজ বাড়িতে ফিরেছে ছাত্রীটি।
রবিবার সরেজমিনে গেলে ছাত্রীটির মা জানিয়েছেন,শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে তিনি এবং তার বাড়ির শাশুড়িসহ অন্যান্যরা চালের গুড়ো কুটতে (বানাতে) পাশেই এক বাড়িতে যান। তখন বাড়িতে ছাত্রীটি খেলা করছিল। তার অসুস্থ্য বাবা ঘরে শুয়ে ছিলেন। কিছুক্ষন পরে ছাত্রীটি বাড়ি থেকে একটু দূরে শৌচাগারে যায়। এমন সময় একই গ্রামের মশিয়ার তার শৌচাগারে জোর করে প্রবেশ করে। ঘটনাটি ছাত্রীটির চাচাত দাদি দেখে ফেলে। তিনি গর্ভবতী হওয়ায় ছাত্রীটির আপন সেজ দাদীকে বলেন। উল্লেখ্য ছাত্রীটির পরিবারের সকলেই প্রায় এক উঠানেই বাড়ি করে থাকে।
কথা হয় ছাত্রীটির সেই সেজ দাদির সাথে। তিনি বলেন,কথাটি শুনেই আমি ওই শৌচাগারে গিয়ে দরজা খোলার চেষ্টা করি। সেসময় শৌচাগার থেকে ছাত্রীটির বোবা আওয়াজ শুনতে পাই। আমার দরজা ধাক্কাধাক্কিতে মশিয়ার শৌচাগারের দরজা খুলে দৌড়ে পালায়।
ছাত্রীটির বাবা জানান, আমি জ্বরে অসুস্থ তাই ঘরে শুয়ে ছিলাম। আমার মেয়ে যখন শৌচাগারে যাচ্ছে তখন যেন আমি মশিয়ারের গলা শুনতে পেলাম। তারপরে হইচইতে শুনে ঘরের বাইরে বের হয়ে এসে ঘটনা শুনেছি।
স্কুল ছাত্রীটির আত্নহত্যার কারন অনুসন্ধানে থাকা চৌগাছা থানার এসআই বাচ্চু শেখ বলেন, ধর্ষন প্রচেষ্টার ঘটনা সত্য। কিন্তু সেই মশিয়ারের কোনো সন্ধান এখনো পায়নি এবং এখনো ভুক্তভোগী পরিবার থেকে থানায় লিখিত কোনো অভিযোগ দেওয়া হয়নি।
তবে এসংবাদ লিখা পর্যন্ত (সন্ধ্যা ৭.৪২ ) ছাত্রীটির দাদা ও বাবা জানিয়েছেন, তারা অভিযোগ করতে থানার উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন।