চৌগাছায় স্কুল ছাত্রীর শ্লীলতাহানির বিচার দাবিতে মানববন্ধন ও সাংবাদিক সম্মেলন

0
410

বিশেষ প্রতিনিধি: যশোরের চৌগাছা উপজেলার কাটগড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীর শ্লীলতাহানির অভিযোগে অভিযুক্ত (সাময়িক বহিস্কৃত) বিজ্ঞান বিভাগের (পদার্থ বিজ্ঞান) শিক্ষক ইসমাইল হোসেনের বিচার দাবিতে মানববন্ধন ও সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা চৌগাছা প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধনের আয়োজন করে চৌগাছার সচেতন নাগরিক সমাজ। মানববন্ধন শেষে চৌগাছা প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য রাখেন, নির্যাতিত শিক্ষার্থীর পিতা মিজানুর রহমান। লিখিত বক্তব্যে তিনি জানান, গত  ২৮ মার্চ অভিযুক্ত শিক্ষক আমার স্কুল পড়–য়া মেয়েকে স্কুল ছুটির পর জোর পূর্বক শ্লীলতাহানি করে। এ ঘটনায় আমরা ২৯ মার্চ চৌগাছা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। মামলাটির আইও এসআই জামাল হোসেন। এখনও পর্যন্ত তাকে আটক করেনি। লম্পট শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি তাকে সাময়িক বহিস্কার করে। এরপরও বিচার না করে হঠাৎ করেই  শিক্ষক ইসমাইলকে পুনঃযোগদান করিয়েছে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আমিনুর রহমান। লিখিত বক্তব্যে তিনি আরো বলেন, এর পূর্বেও ওই শিক্ষক আরো দু’বার এমন অভিযোগে অভিযুক্ত হলেও একই সভাপতি এর আগেও তাকে জরিমানা নিয়ে চাকরিতে বহাল করে। শিক্ষার্থীর মা সেলিনা রহমান বলেন,উপজেলা নির্বাহী অফিসার  তাকে বলেছিলেন এ ঘটনার সুষ্ঠ বিচার হবে। ওই শিক্ষক আর স্কুলে যাবে না। এ আশ্বাসে ইউএনওর নির্দেশে ম্যানেজিং কমিটি আমার মেয়েকে আবারো স্কুলে নিয়ে যায়। মেয়েটিও স্কুলে ক্লাস করছিল। এমনি অবস্থায় ওই শিক্ষককে আবারো স্কুলে বহাল করেছেন ম্যানেজিং কমিটি। তিনি বলেন,  ২৫ মে ওই শিক্ষক স্কুলে ক্লাস নিতে গেলে নবম শ্রেণীর সকল শিক্ষার্থী ক্লাস বয়কট করে প্রতিবাদ জানায়। এখন ওইসব শিক্ষার্থীদের ম্যানেজিং কমিটির লোকজন নানা ধরনের হুমকি দিচ্ছে। এখন ইউএনও বলছেন ওই শিক্ষকও স্কুলে থাকবেন, আপনার মেয়েও স্কুলে যাবে। আপনারাই বলুন যে অত্যাচারকারীকে দেখেই আমার মেয়ে আৎকে উঠছে।  ক্লাস সে করবে কিভাবে? আমার মেয়ে ৮ম শ্রেণীতে বৃত্তি পেয়েছে, সে বিজ্ঞান বিভাগে পড়ে। ম্যানেজিং কমিটি, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও প্রশাসনের এমন টালবাহানায় আমার মেয়ের শিক্ষা জীবন আজ হুমকির মুখে। কান্না জড়িত কন্ঠে তিনি বলেন, আমি আপনাদের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট সকল কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।  আমি লিখিত অভিযোগ চৌগাছা থানায় দিলেও ইউএনও ও থানা প্রশাসন বলছেন ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর উপজেলায় মামলা করতে। আমাদের বাড়ি চৌগাছা উপজেলার বর্ণি গ্রামে। স্কুলটি চৌগাছার মধ্যে তারপরও কেন আমি মহেশপুর থানায় মামলা করবো?
মানববন্ধনও সাংবাদিক সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চৌগাছা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক দেবাশীষ মিশ্র জয়, পাশাপোল ইউপি চেয়ারম্যান ওবাইদুল ইসলাম সবুজ, স্বরুপদাহ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও স্বরুপদাহ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি সানোয়ার হোসেন বকুল, মাকাপুর-বল্লভপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নূরুল ইসলাম, সুখপুকুরিয়া ইউপির পুড়াপাড়া ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য কামাল হোসেন, চৌগাছা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আওরঙ্গজেব চুন্নু, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম আহব্বায়ক সোহেল কবীর, নির্যাতিত ছাত্রীটির সহপাঠি ও অভিভাবকবৃন্দ।
সংবাদ সম্মেলনে চৌগাছা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান দেবাশীষ মিশ্র জয় বলেন পুনঃরায় যে তদন্ত কমিটি করা হয়েছে সে কমিটির উপরও আমাদের বিশ্বাস নেই। কারন এই কমিটির অনেকেই অনৈতিক সুবিধা নিয়ে ওই শিক্ষককে স্কুলে বহাল করার চেষ্টা করে যাচ্ছে। এমনকি আমাকে এই তদন্ত কমিটির একজন সদস্য প্রস্তাব দিয়েছেন ওই শিক্ষকও স্কুলে যাবে ছাত্রীটিও স্কুলে যাবে। আপনারাই বলুন এটা কিভাবে সম্ভব?   জয় বলেন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ঘটনাটির দায়সারা তদন্ত রিপোর্ট দিয়ে ওই শিক্ষককে বাঁচাতে চাচ্ছেন। তিনি তার রিপোর্টে বলেছিন অভিযোগ সত্য প্রমানিত হয়েছে। আবার সুপারিশ করেছেন ওই শিক্ষক আভ্যন্তরীন রাজনীতির শিকার। রিপোর্ট দিয়েই মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এক মাসের ছুটি নিয়ে ভারতে চলে গেছেন। তিনি বলেন শিক্ষা কর্মকর্তা অনৈতিক সুবিধা নিয়ে ওই শিক্ষকের পক্ষে দাড়াচ্ছেন। এছাড়া ওই স্কুলের সভাপতির বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন, তার সময়েই এই শিক্ষক আরো দুবার অভিযুক্ত হয়েও বেঁচে গেছেন। সেই সভাপতি এই ঘটনার সুষ্ঠ বিচার করবেন কিভাবে? আবার ইউএনও, শিক্ষা অফিসার বলছেন সভাপতির একচ্ছত্র ক্ষমতার কারনেই এমনটি হচ্ছে। তিনি প্রশ্ন রাখেন সভাপতি পদ কি এতই ক্ষমতাবান যে নৈতিক লঙ্খন জনিত কারনেও তাকে অপসারন করা যাবে না?
নির্যাতনের শিকার বিদ্যালয়টির বিজ্ঞান বিভাগের নবম শ্রেণীর এক ছাত্রী গত ২৯ মার্চ প্রধান শিক্ষক বরাবর লিখিত অভিযোগে জানায়, ‘২৮ মার্চ মঙ্গলবার দুপুরে স্কুল ছুটির পর কৌশলে অফিস কক্ষে ডেকে নিয়ে স্কুলের বিএসসি শিক্ষক ইসমাঈল হোসেন তাকে শ্লীলতাহানি করে। এ সময় তার চিৎকারে স্কুলের ঝাড়–দার কল্পনা রাণী ও আয়া সুখতারা বেগম এসে ছাত্রীটিকে উদ্ধার করেন।’ অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রধান শিক্ষক ৩০ মার্চ বিষয়টি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে জানালে তিনি তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেন। এরপর ১ এপ্রিল বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির জরুরী মিটিংয়ে তাকে ৩ (তিন) দিনের মধ্যে ‘কারণ দর্শানো’ নোটিশ দেয়া হয়। ৪ এপ্রিল ইসমাইল হোসেন লিখিত জবাব দেন। অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হওয়ায় ও শিক্ষকের জবাব সন্তোষজনক না হওয়ায় ম্যানেজিং কমিটি ৫ এপ্রিল তাকে সাময়িকভাবে বহিস্কার করেন।
অভিযুক্ত শিক্ষক ইসমাঈল হোসেনের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের বিষয়ে পুনঃতদন্তপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও চাকরি থেকে স্থায়ীভাবে বহিস্কারের দাবি জানিয়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ৫৬ জন অভিভাবক চৌগাছা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের নিকট গণস্বাক্ষর করে একটি আবেদন করেছেন। ১৫ মে অভিভাবকরা এই আবেদনের অনুলিপি শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ, উপ-পরিচালক, মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর, খুলনা, যশোরের জেলা প্রশাসক, যশোর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ও চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট রেজিষ্ট্রি ডাকের মাধ্যমে পাঠিয়েছেন। যে বিষয়টিরও কোন সুরাহা করা হচ্ছে না বলে অভিভাবকরা জানিয়েছেন। এবিষয়ে চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নার্গিস পারভীন সাংবাদিকদের বলেন, আমার নির্দেশেই ওই শিক্ষককে সাময়িক বহিস্কার করা হয়েছিল। ম্যানেজিং কমিটি তাদের ক্ষমতাবলে তাকে পূর্নঃবহাল করেছে। শিক্ষার্থীরা তাকে বয়কট করার খবর পত্রিকার মাধ্যমে জেনে এবং অভিভাবকদের গণস্বাক্ষর পেয়ে আবার তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি সর্বোচ্চ সততার সাথে ঘটনার তদন্ত করে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here