চৌগাছায় স্ত্রী ও কন্যাকে বাচাতে বাড়ি থেকে পালিয়েছে অসহায় কাঠ মিস্ত্রি আকতারুল

0
59

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোর চৌগাছার শীর্ষ সন্ত্রাসী কিলার শামীমের লালসা থেকে মেয়ে ও বউকে বাচাতে পরিবার নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে আকতারুল (৪২) নামে এক কাঠ মিস্ত্রি। কিন্তু তাতেও রেহাই নেই ভূক্তভোগী পরিবারের। আকতারুলকে না পেয়ে তার শ্বশুর, শ্বাশুরি, চাচা শ্বশুরসহ বিভিন্ন আত্নীয় স্বজনদের উপর অত্যাচার চালাচ্ছে ওই সন্ত্রাসী ও তার বাহিনী।

কাঠু গাজাীর ছেলে ভুক্তভোগী আকতারুল উপজেলার জাহাঙ্গীরপুর গ্রামের আব্দুস সামাদের জামাই। বিয়ের পরে আকতারুল ওই গ্রামেই স্থায়ীভাবে বসবাস করতেন।

অন্যদিকে একই গ্রামের মৃত শামসুল হকের ছেলে গোয়েন্দা পুলিশের তালিকাভূক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী শামীম কবির ওরফে কিলার শামীম একটি অস্ত্র মামলায় ১৭ বছর সাজাপ্রাপ্ত এবং ৫টি হত্যাসহ ১৪টি মামলার আসামী।

বৃহস্পতিবার (২১ এপ্রিল) মুঠোফোনে আকতারুল ও তার স্ত্রী বলেন, দীর্ঘ দিন এই কিলার শামীমের অত্যাচারে খুব কষ্টে জীবনযাপন করছি। প্রায় বছর দেড়েক আগে জেল থেকে বেরিয়ে গ্রামে এসে লেদুর ছেলে বিল্লাল ওরফে বাঙ্গাল বিল্লাল ও তুহিনের সহযোগিতায় পাশের গ্রাম হুদা-ফতেপুরের বিএনপি কর্মী ভ্যান চালক বাবুর ছেলে ইয়াসিন ওরফে শান্ত, রহমানের ছেলে ইউসুফ, অন্য এক বাবুর ছেলে তৌহিদুলসহ বেশ কিছু উঠতি বয়সি তরুনদের নিয়ে সন্ত্রাসী বাহিনী গড়ে তোলে। বিভিন্ন আগ্নেয়াস্ত্রে সজ্জিত সেই বাহিনী নিয়ে শামীম প্রায় আমার বাড়িতে এসে আমার স্কুল পড়ুয়া মেয়ে ও আমার স্ত্রীর উপর বিভিন্ন ধরনের ঝামেলা করতো। একদিন আমি বাধা দিলে শর্টগান দিয়ে আমার সামনে ফাকা গুলি করে ভয় দেখায়। পরের দিন আমি গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে আসি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় গ্রামবাসি এবং সাবেক এক জনপ্রতিনিধি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন আকতারুল ও তার মেয়ে বউকে না পেয়ে শামীম তার শ্বশুর, চাচা শ্বশুরসহ বিভিন্ন আত্নীয়স্বজনকে মারধোর করে। আকতারুল বলেন, প্রথমে আমি, পরে আমার স্ত্রী,কন্যা গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে আসে। এরপরে শামীমের সেকেন্ড ইন কমান্ড বাঙ্গাল বিল্লাল ও শামীম নিজে আমাকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন নাম্বার থেকে ফোন করে বউ মেয়ে নিয়ে গ্রামে যেতে বলে। গ্রামে না গেলে তাকে ৫ লাখ টাকা আর তিন কাঠা জমি লিখে দিতে হবে। না হলে মেরে ফেলবে বলে হুমকি দিচ্ছে খুনে শামীম।

স্থানীয়দের দাবী যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জিল্লুর রহমান মিন্টুসহ বিভিন্ন হত্যাকান্ডে ব্যবহ্নত কিলার শামীমের সেই অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র আজো উদ্ধার না হওয়ায় সকলেই তাকে ভয় পেয়ে চলে। আর নারী নির্যাতন তার নতুন কোনো ঘটনা নয়। ২০০৯ সালে এই কিলার শামীম নিজ গ্রামের অন্য এক মেয়েকে ধর্ষনের চেষ্টা করেছিল। তখন সেই মেয়ে তার হাতে থাকা দা দিয়ে শামীমের মুখে কোপ মারে। সেই দাগ তার মুখে এখনো বিদ্যমান।

এ বিষয়ে চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ বলেন, ভূক্তভোগীরা এ বিষয়ে কোনো অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলেই আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।