চৌগাছায় ১৭ বছর ধরে স্বামীর অপেক্ষায় স্ত্রী

0
471

বিশেষ প্রতিনিধি

নিখোজের ১৭ বছরেও সন্ধান মেলেনি সেদিনের ২৮ বছরের যুবক চৌগাছার আব্দুল মান্নানের। দুসন্তানের জনক মান্নান ২০০৪ সালে বন্ধু সলেমানের সাথে বেরিয়ে নিখোজ হন। মান্নান নিখোজের কয়েকদিন পরে সেই সলেমানেরও কোনো হদিস নেই বলে জানাগেছে।
মান্নান উপজেলার গরীবপুর গ্রামের মৃত সায়েদ আলীর ছেলে এবং সলেমান একই গ্রামের মৃত জাহা বক্সের ছেলে।

মান্নানের স্ত্রী চায়না বেগম জানিয়েছেন, “সেদিন (কোরবানী ঈদের কয়েক দিন পরে) দুপুরের দিকে সলেমানের সাথে বাড়ি থেকে বেরিয়েছিলেন মান্নান”।

মান্নান নিখোজের কাহিনী–

২০০৪ সালের কোরবানি ঈদের সপ্তাহখানেক পরে ৮ ফেব্রুয়ারি দুপুর দেড়টার দিকে সলেমান মান্নানকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। ঘটনার কয়েকদিন পরে সলেমান গ্রামে ফিরে আসেন। তখন মান্নানের খোজে তার পিতা সায়েদ আলী সলেমানের পরিবারের উপর চাপ সৃষ্টি করেন। এর আগে তিনি থানায় একটি জিডি করেন। সলেমানের ভাই সুলতান ওরফে ভাদুড়ি এবং মান্নানের স্ত্রী চায়না বেগম জিডির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
ভাদুড়ি বলেন,মান্নান হারানোর ৫/৭ দিন পরে আমাদের উপর খুব চাপ হচ্ছিল। সেকারনে আমি স্থানীয় বিএনপি নেতাদের কাছে সলেমানকে হাজির করি।
এবিষয়ে উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারন সম্পাদক ও ওই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ইউনুচ আলী,সহ-সভাপতি শামসুল আরেফিন শান্তি এবং সাংগঠনিক সম্পাদক হুসাইন আহমেদ বলেন, সেসময় গরীবপুর গ্রামে মান্নান সংক্রান্ত বিষয়ে একটা মিটিং হয়েছিল, তবে সেখানে সলেমান ছিলনা।
সেদিনের মিটিংএ থাকা গ্রাম পুলিশ (দফাদার) শাহাজাহান আলীও বলেন, সে মিটিংএ সলেমান ছিলনা।

মান্নান নিখোজের ঘটনায় মামলা–

ছেলেকে দীর্ঘ ২মাসের বেশি খুজাখুজি করে নাপেয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান ইউনুচ আলীকে সাথে নিয়ে ২০০৪ সালের ২৩ এপ্রিল সলেমানসহ তার কয়েকজন সঙ্গীর বিরুদ্ধে মান্নানের পিতা সায়েদ আলী বাদী হয়ে চৌগাছা থানায় ৩৬৪ ধারায় (খুন করার উদ্দেশ্যে প্রলুব্ধ করিয়া অপহরন) একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ১৫।
মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০০৪ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি রবিবার আনুমানিক দুপুর দেড়টার দিকে মান্নানকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায় সলেমান।
ঘটনার কয়েকদিন পরে সলেমান একা গ্রামে ফিরে আসেন। তখন মান্নানের খোজে তার পিতা সায়েদ আলী মল্লিক এবং স্থানীয় চেয়ারম্যান ইউনুচ আলী সলেমানকে মান্নানের কথা জিজ্ঞাসা করলে সলেমান বলে হয়তো সে তার শ্বশুর বাড়ি গেছে। দীর্ঘ ২মাসের বেশি খুজাখুজি করে ছেলেকে না পেয়ে তিনি চেয়ারম্যান ইউনুচ আলীকে সাথে করে চৌগাছা থানায় মামলা করেন।
এজাহারের মান্নানের পিতা উল্লেখ করেন মান্নানকে তার বন্ধু সলেমানের সাথে সীমান্ত এলাকায় (ধূলিয়ানীর হাটে) চলাফেরা করতে দেখেছে বলে লোকমুখে শুনেছেন। পরবর্তীতে মামলা তদন্তকালে কুষ্টিয়া গ্রামের মোমেন আলীর ছেলে আজিজুর রহমান, গরীবপুরের সুলতান সর্দারের ছেলে আশরাফুল ইসলাম কেতু এবং শার্শা উপজেলার তেবাড়িয়া গ্রামের এরফান সর্দারের ছেলে হানেফ সর্দারের নাম আসলেও পরে চার্শীটে তাদের নাম বাদ দেওয়া হয়।

২০২০ সালে ওই মামলায় জাহা বক্সের ছেলে সলেমান ৫ বছর সশ্রমকারাদন্ড ও ১ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ১ মাসের সশ্রমকারাদন্ডে দন্ডিত হন।

২০০৪ সালে মান্নান অপহরনের মামলায় সলেমানের সাজা হলেও আজ পর্যন্ত মান্নান বা সলেমানকে খুজে পায়নি পুলিশ। তবে কি হলো মান্নানের আর কোথায় গেলো সেই সলেমান ??

চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ বলেন,মান্নান ও সলেমানের নামে ২০০৩ সালের একটি মারামারি মামলার গ্রেফতারি পরোয়ানা আছে এবং সলেমানের নামে সাজা মামলার আরো একটি গ্রেফতারি পরোয়ানাও আছে। তবে দীর্ঘদিন আগের ঘটনা হওয়ায় আমি এ বিষয়ে তেমন জানিনা।

(চলবে)