চৌগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের ১৩ নেতা বহিষ্কার

0
196

নিজস্ব প্রতিনিধি

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করায় যশোরের চৌগাছা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের ১৩নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার করেছে চৌগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগ।
দলীয় গঠনতন্ত্রের ৪৭ এর ১১ ধারা অনুযায়ি তাদেরকে বহিষ্কার করা হয়। ১নং ফুলসারা ইউনিয়নের নৌকা প্রতিকের প্রার্থী এবং বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচীত চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মেহেদী মাসুদ চৌধূরী তার নিজস্ব ফেসবুক আইডিতে বুধবার সন্ধ্যা ৭.০৮ মিনিটে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ চৌগাছা উপজেলা শাখার প্যাডে এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এসএম হাবিবুর রহমান ও সাধারন সম্পাদক মেহেদী মাসুদ চৌধূরীর ২ নভেম্বর তারিখে স্বাক্ষরিত একটি বহিস্কার আদেশ আপলোড করেছেন।
বহিস্কারাদেশের সত্যতা নিশ্চিত করে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী মাসুদ চৌধুরী বলেন,বিদ্রোহী প্রার্থীদেরকে কারন দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছিল এবং বারং বার তাদেরকে নির্বাচন থেকে সরে আসতে বলা হয়েছিল। কিন্তু বিদ্রোহীরা আমাদের কোনো কথা শোনেনি। তাই কেন্দ্র এবং জেলা আওয়ামী লীগের সাথে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিয়েই তাদেরকে বহিস্কার করা হয়েছে।
বহিস্কার হওয়া ১৩ নেতাদের মধ্যে পাশাপোল ইউনিয়নের আব্দুল মোতালেব হোসেন ও সাবেক চেয়ারম্যান শাহিনুর রহমান শাহিন,সিংহঝুলি ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ইব্রাহিম খলিল বাদল ও হামিদ মল্লিক,ধুলিয়ানি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন ও মোমিনুর রহমান,জগদিশপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মাস্টার সিরাজুল ইসলাম ও আজাদুর রহমান খান, স্বরুপদাহ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল কদর,ও বর্তমান চেয়ারম্যান শেখ আনোয়ার হোসেন ও রফিকুল ইসলাম খোকন,সুখপুকুরিয়া ইউনিয়নের নুরুল ইসলাম মাস্টার, ও নারায়ণ পুর ইউনিয়নের আবু হেনা মোস্তফা কামাল বিদ্যুতের নাম রয়েছে। বহিস্কৃত নেতাদের মধ্যে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক ও উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ৩নং সিংহঝুলি ইউনিয়নের বিদ্রোহী প্রার্থী হামিদ মল্লিক এবং উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ও ৬নং জগদিশপুর ইউনিয়নের বিদ্রোহী প্রার্থী আজাদুর রহমান খানও রয়েছেন।
উল্লেখ্য একই কারনে গত ৩১ অক্টোবর হামিদ মল্লিককে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ থেকেও বহিস্কার করেছিল যশোর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ।
আদেশে উল্লেখিত বহিস্কৃত ব্যাক্তিবর্গের সাথে সাংগঠনিক কোনো কাজ না করার জন্য সংগঠনের সকল নেতৃবৃন্দকে বলা হয়েছে।