চৌগাাছায় দূর্নীতি প্রকাশ করায় সাংবাদিক লাঞ্চিত! থানায় জিডি

0
101

বিশেষ প্রতিনিধি

যশোর চৌগাছা বেড়গোবিন্দপুর বাওড় ব্যবস্থাপক রিয়াজউদ্দিনের দূর্নীতি প্রকাশ করায় রায়হান হোসেন নামে এক সাংবাদিককে লাঞ্চিত করেছে সন্ত্রাসীরা। এবং পরবর্তীতে আর কোনো সংবাদ প্রকাশ করলে জানে মেরে ফেলারও হুমকি দিয়েছে সন্ত্রাসীরা। গত বুধবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার ধনী প্লাজা মার্কেটের সামনে এই ঘটনা ঘটে। এবিষয়ে রায়হান রাতেই চৌগাছা থানায় একটি জিডি করেছেন। রায়হান হোসেন যশোর থেকে প্রকাশিত “দৈনিক যশোর” সংবাদপত্রের চৌগাছা পৌর প্রতিনিধি এবং চৌগাছা প্রেসক্লাবের সদস্য।
রায়হানকে লাঞ্চিত করার বিভিন্ন মূহুর্ত–


রায়হান হোসেন জানিয়েছেন, বেড়গোবিন্দপুর বাওড় ব্যবস্থাপক রিয়াজউদ্দিন যোগদানের পর থেকেই স্থানীয় সন্ত্রাসীদের সাথে যোগসাজশ্যে একের পর এক অনিয়ম ও দূর্নীতি করে চলেছেন। সেই সকল সংবাদ স্থানীয় বিভিন্ন সংবাদপত্রে ফলাও করে প্রচারিত হয়। সেই রেশ ধরেই তিনি এই আক্রমনের শিকার হন বলে জানিয়েছেন রায়হান।


নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানাযায়, বেড়গোবিন্দপুর বাওড় সরকারি মৎস্য প্রকল্প থেকে অবৈধ অর্থ উপার্জন করতে বাওড় ব্যবস্থাপক রিয়াজউদ্দিন পুলিশের তালিকাভ’ক্ত কুখ্যাত পেশাদার খুনি ও শীর্ষ সন্ত্রাসী কিলার শামীমসহ হত্যা,মাদক মিলিয়ে ১৪টি মামলার আসামী ইমরান হোসেনদের সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলেন। রিয়াজউদ্দিন সরকারি ডায়নার বিল (মাঝের বিল) কিলার শামীম,ইমরান এবং ইউনুচদের কাছে এবং মূল বাওড় মৎস্যজীবিদের দোহাই দিয়ে অন্যদের কাছে প্রায় এক কোটি টাকা ব্যক্তিগত চুক্তিতে অবৈধভাবে লিজ দিয়েছেন। সেই ডায়নার বিলের পাড় থেকে ওই সন্ত্রাসীরা সরকারি বিভিন্ন মূল্যবান গাছ অবৈধভাবে কেটে নিচ্ছেন। এ নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে স্থানীয় এক জনপ্রতিনিধিসহ অনেকে অভিযোগ করেছেন। বাওড়ের অবৈধ কর্মকান্ড নিয়ে উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভাতেও আলোচনা হয়েছে। অবৈধভাবে গাছকাটার বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার একটি তদন্তে প্রমানিত হয়েছে। এসকল বিষয়ে গত ২১ জুন যশোরের প্রকল্প পরিচালক (পিডি) আলফাজ উদ্দিন শেখ এবং চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইরুফা সুলতানা এই বাওড় ও বিলের অবৈধ লিজ এবং গাছকাটার বিষয়ে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলবেন বলেও সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন।
সেই সংবাদ প্রকাশে ক্ষিপ্ত হয়ে বাওড় ব্যবস্থাপকের পালিত সন্ত্রাসী ইমরান,ইব্রাহিম হোসেন এবং মিঠুন ২২জুন সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সাংবাদিক রায়হান হোসেনকে শারিরিকভাবে লাঞ্চিত ও প্রাননাশের হুমকি দেয়। সিসিটিভি ফুটেজে এবং রায়হানের বক্তব্য অনুযায়ি, ঘটনার সময় রায়হান ধনী প্লাজা মার্কেটের সামনে মটর সাইকেলে বসেছিল। হঠাৎ মিঠুন রায়হানের মটরসাইকেলের সামনে দাড়িয়ে পথ আটকায়। এরপর ঘটনাস্থলে ইমরান দৌড়ে আসে। এসেই রায়হানকে ধাক্কা দিয়ে গালাগাল করতে করতে আমার বার্মিজটা দে,বার্মিজটা দে (ধারাল চাকু) বলতে বলতে এদিক ওদিক ছুটতে থাকে। এরমধ্যে ঘটনাস্থলে ইব্রাহিম আসে। তারা তিনজনে রায়হানকে লাঞ্চিত করতে থাকে। একসময় ইমরান রায়হানের মাথার হেলমেট খুলে নিয়ে ধাক্কাতে থাকে। তারা গালাগাল করতে করতে বলে আর নিউজ করলে তোকে জানে মেরে ফেলবো। সাংবাদিক রায়হান হোসেনকে লাঞ্চিত করার ঘটনায় চৌগাছা প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দ ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তারা অনতিবিলম্বে হামলার ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রশাসনের প্রতি দাবী জানিয়েছেন।
চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ জিডির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
উল্লেখ্য ২০১৩ সালে ২৬ সেপ্টেম্বর এই বেড়গোবিন্দপুর বাওড়কে কেন্দ্র করে যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও উপজেলার ৩নং সিংহঝুলি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান মিন্টুকে কিলার শামীম ও তার বাহিনী প্রকাশ্য দিবালোকে গুলি করে হত্যা করে।