ছাগল কাহিনী : চরমপন্থী ক্যাডার নব্য আওয়ামীলীগ হাইব্রিড নেতা কথিত সাংবাদিক সুব্রত

0
292

খুলনা অফিস : খুলনার সাংবাদিক আবদুল লতিফ মোড়লের বিরুদ্ধে তথ্য ও প্রযুক্তি (আইসিটি) আইনের ৫৭ ধারায় করা মামলার বাদী সুব্রত ফৌজদারের অজানা তথ্য বের হতে শুরু করেছে। খুলনাসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের এক সময়ের আতঙ্ক চরমপন্থী নেতা মৃণালের আস্থাভাজন ছিলেন তিনি। এমনকি নিজেকে সাংবাদিক হিসেবে যে পরিচয় সুব্রত দিতেন সেটাও ‘ভুয়া’ বলে জানা গেছে। ডুমুরিয়ার স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ডুমুরিয়ার একাধিক ব্যক্তি জানান,খুলনা অঞ্চলে এক সময়ের মূর্তিমান আতঙ্ক ছিল নিউ বিপ্লবী কমিউনিস্ট পার্টির প্রধান মনোরঞ্জন গোসাই ওরফে মৃণাল। মৃণাল বাহিনীর হাতে খুলনা জেলা যুবদলের নেতা মোল্লা সিরাজুল ইসলাম,সাংবাদিক সরদার শুকুর হোসেনসহ অর্ধশতাধিক মানুষ খুন হয়।

এলাকাবাসী জানিয়েছেন, ওই সময় সুব্রত মৃণাল বাহিনীর ক্যাডার হিসেবে এলাকায় পরিচিত ছিল। তার বিরুদ্ধে অসংখ্য লোকজনকে নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে। সুব্রত মৃণালের কচা বাহিনীর অন্যতম সক্রিয় সদস্য ছিল বলেও তারা জানান। ভারতে মৃণাল নিহত হওয়ার পর সে কচা বাহিনী ছেড়ে দেয়।

স্থানীয়রা আরও জানান, সুব্রত এক সময় একটি বাম সংগঠনের সঙ্গেও জড়িত ছিল। বর্তমান সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ’র হাত ধরে সে আওয়ামী লীগের সঙ্গে যুক্ত হয়। ডুমুরিয়া সদরে একটি ফটোস্ট্যাটের দোকানও ছিল তার।

সুব্রত ফৌজদার খুলনার দৈনিক প্রবর্তনের প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতেন। তবে তার কর্মকাণ্ড সন্তোষজনক না হওয়ায় পত্রিকা কর্তৃপক্ষ তাকে চাকরিচ্যুত করে। পরে যশোর থেকে প্রকাশিত দৈনিক স্পন্দনের ডুমুরিয়া প্রতিনিধি কাজ শুরু করেন।

সুব্রত ফৌজদারের বিরুদ্ধে সাংবাদিকের ‘ভুয়া’ পরিচয় ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে। তার ফেসবুক আইডিতে দৈনিক স্পন্দনের পাশাপাশি নিজেকে ‘দৈনিক জনকণ্ঠ’ ও ‘দৈনিক ইনকিলাব’ এর ডুমুরিয়া প্রতিনিধি হিসেবে নিজের পরিচয় দিতেন। তার এ পরিচয় সঠিক নয় বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে দৈনিক জনকণ্ঠ’র খুলনা ব্যুরো প্রধান অমল সাহা বলেন,‘আমাদের কোনও উপজেলা প্রতিনিধি নেই।’ সুব্রত ফেসবুক অ্যাকাউন্টে জনকণ্ঠের পরিচয় দেখে বিস্ময় প্রকাশ করেন। দৈনিক ইনকিলাবের খুলনা ব্যুরো’র স্টাফ রিপোর্টার আশরাফুল ইসলাম নূর বলেন, ‘সুব্রত ফৌজদার নামে ডুমুরিয়ায় কেউ কখনও-ই ইনকিলাবের প্রতিনিধি ছিল না। সে ভুয়া পরিচয় ব্যবহার করেছে।’

এ ব্যাপারে জানতে রাতে একাধিকবার সুব্রতর মোবাইল ফোনে কল দিলেও তা বন্ধ পাওয়া যায়। বৃহস্পতিবার সকালেও তার ফোন বন্ধ পাওয়া গেছে।

এদিকে যশোর থেকে প্রকাশিত দৈনিক স্পন্দন পত্রিকা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা না বলে সাংবাদিক পরিচয় ব্যবহার করে ৫৭ ধারায় মামলা করার কারণে সুব্রতকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। সুব্রত পত্রিকাটির ডুমুরিয়া প্রতিনিধি। বুধবার বিকালে এই পদক্ষেপ নিয়েছেন বলে জানান দৈনিক স্পন্দনের বার্তা সম্পাদক শিকদার খালিদ। তিন দিনের মধ্যে তাকে জবাব পাঠাতে বলা হয়েছে।

জানা যায়, সুব্রত’র বাবা মনোরঞ্জন ফৌজদার একটি ডাকাতি মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি। পরে অবশ্য তিনি জামিনে মুক্তিও পেয়েছিলেন। এছাড়া তার শ্বশুর খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলার আনন্দ মণ্ডলও একটি মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি।

প্রসঙ্গত, মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ ২৯ জুলাই ভূমিহীনদের ছাগল বিতরণ করেন। এদের মধ্যে জুলফিকার আলীর ছাগলটি ওইদিন রাতে মারা যায়। এ ঘটনা নিয়ে দৈনিক প্রবাহের ডুমুরিয়া প্রতিনিধি আবদুল লতিফ মোড়ল ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন। সেখানে প্রতিমন্ত্রীর পাসপোর্ট ছবি ব্যবহার করার কারণে সুব্রত ক্ষুব্ধ হয়ে ৩১ জুলাই ডুমুরিয়া থানায় ৫৭ ধারার মামলাটি দায়ের করেন। পুলিশ ওইদিন রাতে সাংবাদিক লাতিফকে গ্রেফতার করে এবং ১ আগস্ট আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠায়। বুধবার তিনি এই মামলায় জামিনে মুক্তি পান। ৫৭ ধারার এ মামলা নিয়ে দেশব্যাপী সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here