ছাত্রলীগনেতার বিরুদ্ধে আওয়ামীলীগনেতার বউ ভাগিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

0
76

যশোর অফিস : যশোরের চৌগাছায় ছাত্রলীগনেতার বিরুদ্ধে স্ত্রীকে ভাগিয়ে নিয়ে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগনেতা সোলাইমান হোসেন।
তিনি দাবি করছেন, উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা সাদেকুর রহমানের (২৭) বিরুদ্ধে মামলা করায় এখন তাকে হত্যার হুমকি দেওয়া হচ্ছে।
অবশ্য. সাদেকুর তার বিরুদ্ধে আনীত সব অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবি করেছেন।
আজ রবিবার দুপুরে যশোর প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে চৌগাছা উপজেলার স্বরূপদাহ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সোলাইমান হোসেন লিখিত বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
সোলাইমান হোসেন বলেন, চৌগাছা উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ছোট দিঘড়ী গ্রামের আইজেল হকের ছেলে সাদেকুর রহমান পরীক্ষার ফরম পুরণ ও ফির টাকা নেওয়াসহ বিভিন্ন অজুহাতে আমার বাড়িতে আসতো। এভাবে সে আমার ছেলে আবু বক্কার সিদ্দিকীর (১১) মা সালমা খাতুনের সাথে পরকীয়া সম্পর্ক তৈরি করে। এ নিয়ে সংসারে অশান্তি লেগে থাকতো। ২০১৭ সালের ৩১ জুলাই আমার শাশুড়ি রাবেয়া খাতুন ও তার দুই ছেলে মুছা ও ইব্রাহিম আমার বাড়ি আসে। তাদের জন্য বাজার থেকে কেনাকাটা করে ফেরার পর জানতে পারি- ছেলেকে ফেলে সালমা খাতুন ও তার পরিবারের সবাই ছাত্রলীগ নেতা সাদেকুরের সাথে চলে গেছে। এসময় তারা আমার নগদ ৩ লাখ ৭৫ হাজার টাকাসহ প্রায় ৭ লাখ টাকার সোনার গহনা নিয়ে যায়। এ ঘটনার পর স্ত্রীকে ফেরত আনতে শ্বশুর বাড়ি গেলে আমাকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে তাদের বাড়ি থেকে বের করে দেয়। এ ব্যাপারে ২০১৮ সালে সালের ৩ সেপ্টেম্বর আমি জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করি।
তিনি জানান, এরপর আসামি সাদেকুর মামলার খবর পেয়ে তাকে খুন করার হুমকি দিতে থাকে। এমন অবস্থায় ২০১৮ সালের ২২ সেপ্টেম্বর কোটচাঁদপুর যাওয়ার সময় সাদেকুর তার সহযোগীদের নিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাকে আটকায়। এসময় তারা ১০ লাখ টাকা দাবি করে। টাকা না দেয়ায় তারা মারপিট করে এক লাখ ২০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। এ ঘটনায়ও ২০১৮ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর আদালতে মামলা করেন তিনি। বর্তমানে সাদেকুর বিভিন্ন মাধ্যমে তাকে হত্যাসহ হাত-পা ভেঙ্গে দেওয়ার হুমকি দিচ্ছে। পাশাপাশি উপজেলা ছাত্রলীগের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করছে। তিনি এসবের প্রতিকার পেতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
এ বিষয়ে সাদেকুর রহমান তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন দাবি করে বলেন, সোলাইমান প্রায়ই তার দ্বিতীয় স্ত্রীকে মারধর করতেন। এ কারণে সালমা তাকে ২০১৭ সালে তালাক দেন। পরের বছর আমি পারিবারিকভাবেই তাকে বিয়ে করি। আমি তার বউকে বভাগিয়ে নিয়ে যাইনি; তালাক হওয়া এক নারীকে বিয়ে করেছি। তাছাড়া সেলালাইমানের বিরুদ্ধে এরকম আরও অভিযোগ রয়েছে। বিষয়টি দলের নেতাকর্মীরা সবাই অবহিত।