জঙ্গিরা মুসলমানদের প্রতিনিধিত্ব করে না: টিউলিপ সিদ্দিক

0
209

ম্যাগপাই নিউজ ডেক্স : লন্ডনে পার্লামেন্ট ভবনের বাইরে বুধবারের হামলায় নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ এমপি’রা। যুক্তরাজ্যের রাজধানী লন্ডনের হ্যাম্পস্টেড ও কিলবার্ন আসনের এমপি টিউলিপ সিদ্দিক বলেছেন, জঙ্গিরা মুসলিমদের প্রতিনিধিত্ব করে না।

বৃহস্পতিবার হাউস অব কমন্সে এ বিষয়ে কথা বলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাগ্নি টিউলিপ সিদ্দিক। তিনি বলেন, ইসলামের নামে যারা এদেশে সন্ত্রাসী তৎপরতা চালায় তারা এই শহরে মুসলমানদের প্রতিনিধিত্ব করে না। দুনিয়ার কোথাও তারা মুসলিমদের প্রতিনিধিত্ব করে না।

বৃহস্পতিবার হাউস অব কমন্সে দেওয়া বক্তব্যে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে বলেন, হামলাকারী ব্যক্তি একজন ব্রিটিশ নাগরিক। পুলিশ ও গোয়েন্দা বিভাগ তাকে চিনতো এবং কয়েক বছর আগে সহিংস উগ্রপন্থার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে তদন্তও করা হয়েছিল। সে ইসলামি দর্শন দ্বারা অনুপ্রাণিত ছিল।

এমপিদের উদ্দেশে থেরেসা মে বলেন, ‘গতকাল সন্ত্রাসবাদী কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে আমাদের গণতন্ত্রকে নীরব করার চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু একটি বার্তা দিতে আজ আমরা স্বাভাবিকভাবে একত্রিত হয়েছি। যেভাবে আমাদের পূর্ববর্তী প্রজন্ম একত্রিত হয়েছিলেন এবং যা পরবর্তী প্রজন্ম বজায় রাখবে। বার্তাটি হলো: আমরা ভীত নই এবং সন্ত্রাসবাদ দিয়ে আমাদেরকে সংকল্প থেকে সরিয়ে আনা যাবে না।’

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর ওই বক্তব্যের পরই সন্ত্রাসী-জঙ্গিদের ব্যাপারে নিজের অবস্থানের জানান দেন টিউলিপ সিদ্দিক।

সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের মুখে পার্লামেন্টের কর্মী এবং নিরাপত্তা বাহিনীগুলোর সদস্যদের দৃষ্টান্তমূলক আচরণের প্রশংসা করেন টিউলিপ সিদ্দিক। তিনি বলেন, ‘ঘটনাস্থলে কিছুসংখ্যক ছোট শিশুও ছিল। কিন্তু স্টাফরা শান্তভাবে পরিস্থিতি সামাল দিয়েছে।

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত আরেক এমপি রুশনারা আলীও এ হামলার ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন। এ ধরনের হামলা প্রতিরোধে তিনি মুসলিম সম্প্রদায়কে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার তাগিদ দেন।

এদিকে লন্ডনে ব্রিটিশ পার্লামেন্টের বাইরে হামলা উদযাপন করছেন মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন আইএস-এর সমর্থকরা। তারা দাবি করছে, আইএস এর পক্ষ থেকেই এই হামলা চালানো হয়েছে। হামলাকে ইরাক এবং সিরিয়ায় ব্রিটিশ সামরিক বাহিনীর হামলার ‘বদলা’ বলেও দাবি করছে আইএস সমর্থকরা।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টেলিগ্রামের আইএস-সমর্থক চ্যানেলগুলোতে ছুরি হাতে থাকা সন্দেহভাজনের ছবি প্রকাশ করেছে। আইএসের মুখপাত্র আবু মোহাম্মদ এক অডিওবার্তায় ইউরোপীয় সমর্থকদের হামলা চালানোর আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘আপনাদের কাছে যদি বন্দুক বা গুলি না থাকে, তাহলে মার্কিনিদের অথবা তাদের মিত্রদের পাথর দিয়ে মাথায় আঘাত করে হত্যা করুন কিংবা ছুরি ব্যবহার করুন। কিংবা তাদের উপর গাড়ি চালিয়ে দিন।’

২০১৬ সালে ফ্রান্সের নিসে ও জার্মানির বার্লিনেও এ রকম হামলা হয়েছে। গত ১৮ মাস ধরে ব্রিটেনে হামলার হুমকি দিয়ে আসছে আইএস। ২০১৫ সালের নভেম্বরে প্যারিস হামলার পর এক ভিডিওতে আইএস বলেছিলো তাদের পরবর্তী টার্গেট লন্ডন। সিরিয়া ও ইরাকে ফ্রান্সের পর ব্রিটেনেরই সবচেয়ে বেশি সৈন্য দায়িত্বপালন করছে। হ্যারি সারফো নামে এক জার্মান আইএস সেনা বলেন, যুক্তরাজ্যে হামলার জন্য তাদের জঙ্গি নিয়োগ করতে সমস্যা হচ্ছিল। বর্তমানে সাজা ভোগ করা এই জঙ্গি নিউইয়র্ক টাইমসকে বলেন, ইউরোপের দেশগুলোতে তাদের অবস্থান শক্তিশালী হলেও ব্রিটেন ও জার্মানিতে তাদের আলাদা করে নিয়োগ দিতে হচ্ছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here