জঙ্গি আক্রমণে দমকলকর্মী হত্যা: পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন

0
279

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে জঙ্গিবিরোধী অভিযানের সময় জঙ্গি নারীর ফায়ার সার্ভিসের কর্মী আবদুল মতিনকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন নিহতের স্বজনরা। এই ঘটনায় প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা যায় নারী ‘জঙ্গি’ দৌঁড়ে এসে যখন ফায়ার সার্ভিস কর্মীকে কোপাচ্ছে তখন আশেপাশে থাকা পুলিশ সদস্যরা তাকে বাঁচানোর চেষ্টা না করে দৌঁড়ে ‘নিরাপদ আশ্রয়’ খুঁজেছেন।

ভিডিওতে দেখা যায়, এক নারী অস্ত্র হাতে দৌঁড়ে এসে ঝাঁপিয়ে পড়ে দমকল বাহিনীর সদস্য আবদুল মতিনের ওপর। তাকে কোপানো হয় এলোপাতাড়ি। যদিও পুলিশ দাবি করছে, মতিন মারা গেছে বোমার স্প্লিন্টারে। আবার দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগও উড়িয়ে দিয়েছেন বাহিনীটির কর্মকর্তারা। মতিনের স্বজনদেরকে ১০ লাখ টাকা অনুদান দেয়ার ঘোষণাও দিয়েছে বাহিনীটি।

বৃহস্পতিবার রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলায় সন্দেহভাজন জঙ্গি আস্তানায় অভিযানে যায় পুলিশ। এ সময় তারা সঙ্গে নেয় ফায়ার সার্ভিসকেও। সকালের দিকে সন্দেহভাজন বাড়িটিতে থাকা ব্যক্তিদের পুলিশ আত্মসমর্পণের আহ্বান জানায়। তারা তা অগ্রাহ্য করলে ফায়ার সার্ভিসকে বাড়িটিতে পানি স্প্রে করার নির্দেশনা দেয়া হয়। দমকল কর্মীরা এই দায়িত্ব পালন করলেও পুলিশ দাঁড়িয়ে ছিল অনেকটাই নিরাপদ দূরত্বে।

এই অভিযানের প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা যায়, পানি স্প্রে করার পর বাড়িটি থেকে বের হয়ে একজন নারী হাতে ধারালো অস্ত্র নিয়ে দৌঁড়ে আসছেন ফায়ার সার্ভিস কর্মী মতিনের দিকে। কিন্তু মতিন তাকে দেখতে পাননি। ওই নারীকে গুলি করার মত দূরত্বে পুলিশ অবস্থান করলেও তাকে গুলি করার চেষ্টাও করেনি তারা।

ওই নারী দৌঁড়ে এসে যখন অতর্কিতে মতিনের ওপর ঝাঁপিয়ে তাকে উন্মত্তের মত কোপাতে থাকে, তখনও পুলিশ সদস্যরা কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। তখনও তারা ওই নারীকে গুলি করেনি। বরং নিরাপদ দূরত্বে থাকা সদস্যরা আরও দূরে সরে যেতে ছুটাছুটি করতে থাকেন। কেউ কেউ আশ্রয় নেন খড়ের গাদার পেছনে।

নিহত মতিনের ছোট ভাই সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘পুলিশের গাফিলতিতেই আমার ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘ওই জঙ্গি যখন আমার ভাইকে কোপাচ্ছিল তখন পুলিশ দূর থেকে দাঁড়িয়ে ওই দৃশ্য না দেখে গুলি করতে পারত, কিন্তু করেনি। চিকিৎসক বলেছেন অতিরিক্ত রক্তক্ষরণেই আমার ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু পুলিশ তাকে সময়মত উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে হয়ত আমার ভাই বেঁচে যেত।’

আবদুল মতিনের ছোট ভাই সাদ্দাম হোসেন জানান, তারা চার ভাই। মতিন ছিলেন সবার বড়। ভাইদের মধ্যে একমাত্র চাকরিজীবীও ছিলেন তিনি। অন্যরা সবাই কৃষিকাজ ও ব্যবসা করেন। এ জন্য সব ভাই মতিনকে খুব সম্মান করতেন। বাবা মারা যাওয়া পর মতিনই সব ভাইদের প্রতি খেয়াল রাখতেন।

সাদ্দামের পাশেই থাকা আবদুল মতিনের ভাগ্নে লুৎফর রহমান বললেন, ‘অভিযানের যে ভিডিও দেখছি, তাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন আছে। সেসব কথা বলতে চাই না। শুধু বলতে চাই- এমন বড় অভিযানের সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে যেন মেডিকেল টিমও প্রস্তুত থাকে। তাৎক্ষণিক চিকিৎসা পেলে হয়তো মামা মরতেন না।’

মতিনের ভাগ্নে আরও বলেন, ‘ভিডিওটা আমি দেখেছি। প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গেও কথা বলেছি। হামলার সময় পুলিশ আমার মামাকে ফেলে পালিয়ে গেছে। পুলিশের উচিত ছিল পানির পাইপ ধরানোর আগে তার নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা।’

তবে মতিনের বিষয়টিতে পুলিশ দায়িত্বে অবহেলা করেছে-এমন অভিযোগ মানতে নারাজ রাজশাহীর পুলিশ সুপার মোয়াজ্জেম হোসেন। বিষয়টি নিয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, ‘আপনারা ভিডিওতে কী দেখেছেন তা আমার জানা নেই। তবে পুলিশের ওই সময়ে যা করা প্রয়োজন ছিল পুলিশ তাই করেছে। এখানে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে কোন প্রশ্ন তোলার সুযোগ নেই।’

ভিডিওতে পুলিশের ভূমিকা স্পষ্ট-এমন মন্তব্যের জবাব না দিয়ে এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘আমি অসুস্থ, এর চেয়ে বেশি কথা বলার সুযোগ নেই আমার।’

গোদাগাড়ীতে জঙ্গিবিরোধী অভিযানের নেতৃত্ব দেয়া রাজশাহী জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুমিত চৌধুরীও একই ধরনের কথা বলেছেন। তিনিও  বলেন, ‘এখানে পুলিশের কোন গাফিলতি নেই। ওই সময়ে পুলিশ যদি গুলি করত তাহলে তো ওই গুলি আবদুল মতিনের শরীরেও লাগতে পারত। তবে পুলিশ যে একেবারেই গুলি করেনি তা কিন্তু নয়। পরিস্থিতি অনুযায়ী পুলিশের যা করা উচিত ছিল পুলিশ তাই করেছে।’

বৃহস্পতিবার দিনভর অভিযান চলার পর সন্ধ্যায় তা স্থগিত করার ঘোষণা দেয়ার সময় পুলিশের রাজশাহী রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি মাসুদুর রহমানের কাছেও বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন করেন চান সাংবাদিকরা। জবাবে তিনি বলেন, ‘এখানে পুলিশের দায়িত্বে কোনো অবহেলা নেই। আত্মঘাতী বোমার বিস্ফোরণে ঘাড়ে স্প্লিন্টারবিদ্ধ হয়ে মারা গেছেন তিনি, কোপে মারা যাননি।’

পুলিশ দায়িত্ব অস্বীকার করলেও ফায়ার সার্ভিস স্পষ্টতই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীটির ওপর অসন্তুষ্ট। মতিনের মৃত্যুর ঘটনা তদন্তে রাজশাহী ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপ-পরিচালক নুরুল ইসলামকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে কমিটি তাদের প্রতিবেদন দেবে।

মতিনের মৃত্যুর পর ঘটনাস্থলে যান ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক (অপারেশন) এ কে এম শাকিল নেওয়াজ। পুলিশের ভূমিকা নিয়ে উঠা প্রশ্নের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা যে তদন্ত কমিটি গঠন করেছি, তারা তা খতিয়ে দেখবে।’

মাটিকাটা ভাটা গ্রামের এহসান আলীর ছেলে আবদুল মতিন এইচএসসি পাস করে ১৯৯৩ সালে ফায়ার সার্ভিসে যোগ দিয়েছিলেন। বিবাহিত জীবনে তিনি দুই সন্তানের বাবা। বড় মেয়ে জেসমিন আক্তার রেশমি গোদাগাড়ীর মইশালবাড়ির গার্লস স্কুলের নবম শ্রেণিতে পড়ে। আর ছোট ছেলে মারুফ হোসেন আল ইসলাম একাডেমির ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র।

নিহত আবদুল মতিনকে বৃহষ্পতিবার রাত আটটায় স্থানীয় কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। জঙ্গিবিরোধী ওই অভিযানে পাঁচ সন্দেহভাজন জঙ্গিও নিহত হয়েছে। এদের মধ্যে মতিনের ওপর হামলাকারীসহ দুই নারীও

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here