জনগণের স্বপ্ন পূরণের পথে বাংলাদেশ

0
246

ড. আতিউর রহমান : ১মার্চ ২০১৭। গণভবন থেকে ডিজিটাল পদ্ধতিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ‘মায়ের হাসি’ নামের প্রাথমিক শিক্ষা উপবৃত্তি বিতরণ কর্মসূচি উদ্বোধন করেন। টেলিটকের হিসাবে এ উপবৃত্তি নিয়মিত পাঠানো হবে রূপালী ব্যাংকের অংশীদার শিউরক্যাশ মোবাইল ব্যাংকিং প্ল্যাটফরম থেকে। ঐদিন ১ কোটি ৩০ লাখ মায়েদের প্রত্যেককে ৬০০ করে টাকা পাঠানো হয়েছে। এই কর্মসূচির আওতায় প্রতি তিন মাস পরপর প্রতি মা প্রাথমিক শিক্ষার্থীর জন্য ৩০০ টাকা করে পাবেন। দুটো সন্তান পড়লে পাবেন ৬০০ টাকা। সরকার নিজেই এই লেনদেনের সার্ভিস চার্জ বহন করবে। মায়েদের কিছুই দিতে হবে না। যেসব মায়ের (প্রায় ২০ লক্ষ) মোবাইল ফোন নেই, তাদের বিনামূল্যে সিম সরবরাহ করেছে টেলিটক। তাছাড়া প্রত্যেক মাসে তারা ২০ টাকা বিনামূল্যে কথা বলারও সুযোগ পাবেন। শিক্ষার্থীদের স্কুলে না আসা ও ঝরে পড়াকে নিরুত্সাহিত করার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একান্ত ইচ্ছাতেই চালু হয় এ কর্মসূচি।

আমাদের প্রধানমন্ত্রী একজন সংবেদনশীল মা। তাই মায়েদের দুঃখ, বেদনা, হাসি, কান্না ঠিকই অনুভব করতে পারেন। এতদিন বড় কষ্টে মায়েদের এ অর্থ সংগ্রহ করতে হতো। দূর-দূরান্ত থেকে মায়েদের নির্দিষ্ট দিনে জড়ো হতে হতো। শিক্ষা অফিসার ও ব্যাংক কর্মকর্তাদের পক্ষে এত মাকে সুষ্ঠুভাবে এ উপবৃত্তির নগদ অর্থ পৌঁছে দেয়া কী ঝক্কির ব্যাপার ছিল, তা বলাই বাহুল্য। আর এখন মোবাইল ব্যাংকিংয়ের কল্যাণে নিমিষেই স্বচ্ছতার সঙ্গে এ অর্থ মায়েদের মোবাইল হিসাবে চলে যাচ্ছে। তাদের পছন্দমতো ধারেকাছেই থাকা শিউরক্যাশ এজেন্টের কাছ থেকে এ অর্থ তারা তুলতে পারবেন। বলা হয়েছে শিউরক্যাশের ৪ হাজার ১শ এজেন্ট এই অর্থ বিতরণ করবে। পত্রপত্রিকা থেকে জানতে পারলাম, শিউরক্যাশের ৬শ ৫০টি লেনদেন পার্টনার রয়েছে। শিক্ষা ক্ষেত্রেই তারা বেশি সক্রিয়। ঢাকা কলেজ, ইডেন কলেজ, তিতুমীর কলেজ, আজিজুল হক কলেজ, সরকারি ল্যাবেরেটরি স্কুলসহ প্রায় চারশ স্কুল/কলেজের পাঁচ লাখেরও বেশি ছাত্র-ছাত্রী শিউরক্যাশের মোবাইল ব্যাংকিং সুবিধা গ্রহণ করে থাকে। নিজস্ব সফটওয়্যার ব্যবহার করে তারা এ মোবাইল ব্যাংকিং সেবা দিয়ে থাকে। এ সেবা সুষ্ঠুভাবে দেয়ার জন্য তারা গড়ে তুলেছেন বিরাট এক ডাটা ভাণ্ডার।

শিক্ষাখাত ছাড়াও আরও অনেক ক্ষেত্রে তারা এ সেবা সম্প্রসারিত করতে সক্ষম হয়েছে। বাংলাদেশ সুগার অ্যান্ড ফুড ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশনের ১৫টি মিলের তালিকাভুক্ত কৃষকরা এ লেনদেনের সেবা পাচ্ছেন। তাছাড়া ঢাকা ওয়াসা, খুলনা ওয়াসা, ডেসকো, ডিপিডিসি ও ২৩টি মিউনিসিপ্যালিটির গ্রাহকরা নিয়মিতভাবে বিল দেওয়ার সময় এ মোবাইল ব্যাংকিং সেবা গ্রহণ করছেন। বেসরকারি ও অলাভজনক অনেক প্রতিষ্ঠান এই প্ল্যাটফরম ব্যবহার করে দূর-দূরান্তে অবস্থিত তাদের শাখা অফিসে কর্মরত কর্মীদের নিয়মিত বেতন দিচ্ছে। ই-কমার্সের অনেক গ্রাহকেরও রয়েছে এদের ই-ওয়ালেট যার মাধ্যমে তারা ঘরে বসে কেনাকাটা করছেন। অনেকেই মোবাইল ফোন রিচার্জ করছেন। আর একজন আরেকজনকে নিয়মিত অর্থ পাঠানোর কাজ তো হচ্ছেই। আগামীতে ‘শিউরক্যাশ’ সরকারি ভাতা, সেবা ও বেতন সংশ্লিষ্ট জনদের পাঠানোর পরিকল্পনা করছে। বিদেশে কর্মরত প্রবাসী শ্রমিকদের পাঠানো অর্থ তাদের আত্মীয়স্বজনদের মোবাইল ওয়ালেটে পাঠানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে। ব্যাংক, ইন্সিওরেন্স কোম্পানির লেনদেনের ভাবনাও এ মোবাইল ব্যাংকিং প্ল্যাটফর্মটির রয়েছে। মোট পাঁচটি ব্যাংকের সঙ্গে তারা অংশীদারিত্ব গড়ে তুলেছে। এসবের মধ্যে সরকার মালিকানাধীন রূপালী ব্যাংকও রয়েছে।

আমি এতটা বিস্তারিতভাবে ‘শিউরক্যাশে’র মোবাইল ব্যাংকিং সেবা নিয়ে লিখলাম এ কারণে যে, এই প্রথম একটি পাবলিক ব্যাংক তাদের অংশীদারিত্বে এক কোটি ৩০ লাখ মায়ের হাতে এমন স্বচ্ছতার সঙ্গে সরকারি একটি সেবা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মাধ্যমে বিতরণ করতে সক্ষম হয়েছে। ব্যাংকটির প্রধান নির্বাহী আতাউর রহমান প্রধান যথার্থই বলেছেন, ‘এটি একটি বিপ্লব’ এবং তিনি সরকারের অন্যান্য ভাতা বিতরণেও এভাবে এগিয়ে আসতে চান। প্রান্তজনের স্বার্থে এমন করে ব্যাংকিং সেবা প্রযুক্তির মাধ্যমে পৌঁছে দেওয়ার স্বপ্ন বুকে নিয়েই আমরা ২০১১ সালে বাংলাদেশ ব্যাংকের ‘পেমেন্ট সিস্টেম বিভাগ’ থেকে একটি ‘মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস’ গাইডলাইন চালু করেছিলাম। দুই ডজনের মতো ব্যাংক এই সেবা প্রদানের অনুমতি নিলেও কয়েকটি লেনদেন প্ল্যাটফর্মের সাফল্যের সঙ্গে উদ্ভাবনমুখী সেবা প্রদান করছে। ব্যাংক সরাসরি (যেমন ডাচ-বাংলা ব্যাংকের ‘রকেট’), সাবসিডিয়ারি ( যেমন ‘বিকাশ’) এবং অংশীদারিত্বের (যেমন ‘রূপালি ব্যাংক ও শিউরক্যাশ’) মডেলে এই মোবাইল আর্থিক সেবা প্রদানের উদ্যোগ নিয়েছে।

সারা বিশ্বে বাংলাদেশেই এ সেবা সবচেয়ে দ্রুত গতিতে বেড়ে চলেছে। মাত্র পাঁচ বছর সময় পেরিয়ে ২০১৬ সালেই মোট ৩ হাজার কোটি ডলার মূল্যের লেনদেন হয়েছে এই নয়া আর্ির্থক সেবার মাধ্যমে। এর ৯০ শতাংশই এজেন্টের মাধ্যমে ব্যক্তি থেকে ব্যক্তির কাছে লেনদেন হয়েছে। অনুমান করা হচ্ছে ২০২১ সাল নাগাদ মোবাইলে আর্থিক লেনদেনের পরিমাণ ১৫ হাজার কোটি ডলার ছাড়িয়ে যাবে। বর্তমানে চার কোটি মানুষ এই সেবা পাচ্ছেন। সেবাগ্রহীতাদের বড় অংশই প্রান্তের মানুষ। রিকশাওয়ালা, গার্মেন্টস কর্মী, গৃহকর্মী, ক্ষুদে ব্যবসায়ী, দ্রুত বিকাশমান ই-কমার্স ব্যবসায়ী ও তাদের গ্রাহকরাই সাধারণত এই লেনদেন ব্যবস্থাকে সবার আগে লুফে নিয়েছেন। লাখ লাখ এজেন্টের মাধ্যমে এই সেবা দেয়া হচ্ছে। মূলত যারা সহজেই ব্যাংকে যেতে পারেন না, বা ব্যাংক যাদের স্বাগত জানায় না, যে-সব কর্মব্যস্ত মানুষের হাতে ব্যাংকে যাবার মতো পর্যাপ্ত সময় বা সুযোগ নেই তারাই বেশি করে এই সেবা গ্রহণ করছেন।

বিভিন্ন ব্যবসায়ী ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এই সেবা নিজ দায়িত্বে চালু করেছে এবং তারা গ্রাহকদের কাছ থেকে সার্ভিস চার্জ কাটে না। অনেক গার্মেন্টস কারখানা স্ব-উদ্যোগে এই সেবার মাধ্যমে তাদের কর্মীদের বেতন দিচ্ছে। কর্মীদের কাছ থেকে তারা কোনো পয়সা দাবি করে না। আগে নিরাপত্তাকর্মীসহ ভ্যানে করে টাকা এনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ব্যয় করে নানা ঝুঁকি মাথায় নিয়ে নগদ টাকায় বেতন দিত এসব প্রতিষ্ঠান। কর্মীরাও নগদ টাকা কোথায় রাখবেন, কেমন করে বাড়িতে পাঠাবেন, কদ্দিনে সেই টাকা বাড়িতে পৌঁছবে সেসব নিয়ে তাদের উদ্বেগের শেষ ছিল না। এই সেবা চালু হবার পর তাদের সেসব দুঃশ্চিন্তার অবসান ঘটেছে। এই সেবাটি চালু করতে পেরে আমি এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের সহকর্মীরা খুবই সন্তুষ্ট। প্রান্তজনকে ব্যাংকিং সেবায় যুক্ত করার এই আনন্দ ভিন্ন রকমের। ‘তেলে মাথায় তেল’ ঢেলে আমাদের রেগুলেটরি দৃষ্টিভঙ্গি বরাবরই একপেশে ছিল। প্রান্তজনের চাওয়া-পাওয়ার বিষয়টিকে উপেক্ষা করাটা স্বাভাবিক বলেই ধরে নেয়া হয়েছিল। তাই শুকনো মাথায় তেল ঢালার এই সুযোগ আমি কিছুতেই হেলায় হারাতে চাইনি। খুবই আনন্দের কথা যে অল্প সময়ের মধ্য আর্থিক অন্তর্ভুক্তি ত্বরান্বিত করার এই সেবাটি অনেক কারণেই আজ সফলতার মাইলফলক হিসেবে স্পষ্টতর হতে শুরু করেছে।

এক. এটি ব্যাংক-লেড একটি মডেল। বাংলাদেশ ব্যাংকের লেনদেন নীতিমালার অধীনে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো প্রয়োজনীয় অনুমতি নিয়েই এই আর্থিক সেবাটি পরিচালনা করছে।

দুই. মোবাইল আর্থিক সেবা মূলত একটি পেমেন্ট পদ্ধতি। দ্রুত ও সহজে অর্থ লেনদেনের এই ব্যবস্থাটি এরই মধ্যে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। একক সেবার এই ব্যবস্থাটি যাতে কার্যকর থাকে সেদিকে সকলেরই খেয়াল রাখা জরুরি। আমরা আগেভাগে শুরু করলেও ভারত সরকার ‘ডিমনিটাইজেশনে’র চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার সময় এই সেবার ব্যাপক প্রসারে মনোযোগী হয়েছে এবং সাফল্য অর্জন করেছে। আমাদেরও এর সুফল ভালোভাবে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে আরো সক্রিয় হতে হবে।

তিন. এরই মধ্যে এই আর্থিক সেবা সাধারণ মানুষসহ সকলেরই আস্থা অর্জনে সক্ষম হয়েছে। কিছু অনিয়মও ধরা পড়েছে। তবে বাংলাদেশ ব্যাংক ও সংশ্লিষ্ট সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান দ্রুতই এসব অনিয়ম দূর করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। ফলে, ব্যবস্থাটির প্রতি জনমনে আস্থা অটুট রয়েছে।

চার. লক্ষ লক্ষ এজেন্টের স্বকর্মের সংস্থান, ই-কমার্সের আওতায় ক্ষুদে ও মধ্যম উদ্যোক্তাদের মাধ্যমে যে বিপুল কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছে এই লেনদেন ব্যবস্থাটি তা দারিদ্র্য নিরসনে বড় ধরনের ভূমিকা রাখছে। প্রযুক্তি যে গরিবের বন্ধু হতে পারে এই ব্যবস্থাটি তার বড় প্রমাণ।

পাঁচ. এই ব্যবস্থাটির ব্যাপ্তি ও বহুমুখীনতা সত্যি আগ্রহ উদ্দীপক। আগেই যেমনটি উল্লেখ করেছি শহরের গৃহকর্মী, গাড়িচালক, বৈদ্যুতিক মিস্ত্রি, সবজি ও ফুল বিক্রেতা, মাছ বিক্রেতা, রিকশাচালক, দিনমজুর, ক্ষুদে ব্যবসায়ী, শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবক, শিক্ষক, আইনজীবী, গার্মেন্টস কর্মীসহ অসংখ্য পেশার মানুষ হরহামেশাই এ সেবা গ্রহণ করছেন। গ্রাম থেকে শহর, শহর থেকে গ্রাম সর্বত্রই এ সেবার উপস্থিতি চোখে পড়ে। আমি একবার কিশোরগঞ্জের হাওড়ে মহামান্য রাষ্ট্রপতির এলাকায় গিয়েছিলাম। সেখানেও এই সেবার প্রাধান্য আমাকে অবাক করেছে। এই প্রান্ত অঞ্চলে ব্যাংকের উপস্থিতি সামান্য। কিন্তু মোবাইল আর্থিক সেবা সর্বত্র। বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাব মতে দিনে প্রায় ৮শ কোটি টাকা ক্যাশ-ইন ও ক্যাশ-আউট হচ্ছে। বেশিরভাগ টাকাই শহর থেকে গ্রামে যাচ্ছে। এর ফলে আমাদের অনানুষ্ঠানিক অর্থনীতিকে আমরা সহজেই আনুষ্ঠানিক মূলস্রোতে আনতে সক্ষম হয়েছি। এই ধারার লেনদেনের মাধ্যমে মানুষের অর্থনৈতিক অবদান ও কর্মকাণ্ডের প্রতিফলন ঘটছে সার্বিক অর্থনীতিতে। গতি পাচ্ছে মুদ্রার সঞ্চালনে। সফলভাবে বাস্তবায়ন করা যাচ্ছে মুদ্রানীতি।

ছয়. এমএফএস’র মাধ্যমে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে সঞ্চয়, ঋণ, অন্যান্য ভাতা প্রদানের সুযোগ বৃদ্ধির লক্ষ্যেও তাদের আলাদা হিসাব খুলতে উত্সাহী করে তোলা উচিত। আর তা করা গেলে আমাদের শিক্ষকদের বেতন, সামাজিক নিরাপত্তাভোগীদের নানারকম ভাতা, কৃষকদের সাবসিডিসহ নানা ধরনের আর্থিক সেবা প্রদানের নয়া দিগন্ত খুলে যাবে।

মোবাইল আর্থিক সেবা আর্থিক অন্তর্ভুক্তির মাত্র একটি দিক। বাংলাদেশ ব্যাংক বিগত ৭-৮ বছরে আরো অনেকগুলো সৃজনশীল উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। দশ টাকার হিসাব, ৫০ ও ১০০ টাকার হিসাব খোলা, স্কুল ব্যাংকিং হিসাব, পথশিশু ও কর্মজীবী শিশু/কিশোরদের ব্যাংক হিসাব খোলা, এজেন্ট ব্যাংকের সুযোগ সৃষ্টি করা সহ আর্থিক অন্তর্ভুক্তির নানা দুয়ার খুলতে বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক উদ্যোগী হয়েছে। ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত কৃষকদের ৯০ লক্ষ ৪৩ হাজার, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি সুবিধাভোগীদের ৪২ লক্ষ ৫২ হাজার, অতিদরিদ্রদের কর্মসংস্থান কর্মসূচির সুবিধাভোগীদের জন্য ২২ লক্ষ ১২ হাজার, মুক্তিযোদ্ধাদের ২ লক্ষ ১৮ হাজার ও অন্যদের জন্য ১০ লক্ষ ২৮ হাজার হিসাব খুলেছে বাংলাদেশের ব্যাংকগুলো। এছাড়া স্কুল ব্যাংকিং এর হিসাব সংখ্যা ১২ লক্ষ ৫৭ হাজার, পথশিশুদের হিসাব সংখ্যা ৩ হাজার ৭২৫। এসব হিসাবে সব মিলে কয়েক হাজার কোটি টাকা লেনদেন হয়েছে। এসব হিসাবে সঞ্চয়ের পরিমাণ বিশাল। শুধু কৃষকরাই দশ টাকার হিসাবে ২৩০ কোটি টাকা সঞ্চয় করেছে। শিক্ষার্থীদের সঞ্চয় হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। এর বাইরে কৃষি (বর্গাচাষীসহ) ঋণ, ক্ষুদে ও মাঝারি ঋণ, সিএসআর কর্মকাণ্ড হিসাবে নিলে প্রান্তজনের পক্ষে ব্যাংকগুলো ব্যাপক অবদান রেখেছে।

বাংলাদেশের মতো আর্থিক অন্তর্ভুক্তির এমন বহুমুখী উদ্যোগ খুব কম দেশই নিতে পেরেছে। এর ফলে গরিব ও বঞ্চিতজনের ভাগ্যোন্নয়নে বড় ধরনের অবদান রাখতে সক্ষম হয়েছে আমাদের ব্যাংকগুলো। এর সঙ্গে সরকারের নানামুখী গরিব-হিতৈষী কর্মসূচি যোগ করলে সহজেই অনুমান করা যায় কেন বাংলাদেশের দারিদ্র্য এতো দ্রুত হারে কমছে, জীবনের গড় আয়ু এতোটা বেড়েছে, জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার কমেছে, মায়েদের ও শিশুদের মৃত্যুর হার দ্রুত কমেছে। কর্মসংস্থান সৃষ্টিকারী শিল্পায়নের গতিও বেড়েছে। এ সব ক্ষেত্রেই ব্যাংকিং খাতের অবদান অনেক।

এসব কিছুর ফলে গরিব মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে রাজনৈতিক নেতৃত্বের এক অভাবনীয় সমঝোতা সৃষ্টি হয়েছে। এই সামাজিক চুক্তি অটুট থাকলে ‘মায়ের হাসি’, ‘শিশুর আনন্দ’ এবং সাধারণ মানুষের স্বাধীনতার স্বাদ গ্রহণের সুযোগ উত্তর উত্তর আরো বাড়বে। তখন সমাজে তাপ ও চাপ আরো কমবে। আর আমরা হাঁটতে থাকবো ‘সোনার বাংলা’র মৌল আকাঙ্ক্ষা পূরণের মহাসড়ক ধরে। যে আকাঙ্ক্ষার পরশমণি আমাদের অন্তরে ছুঁয়েছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। (সংক্ষেপিত)

n লেখক :উন্নয়ন অর্থনীতিবিদ, গবেষক ও অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং সাবেক গভর্নর, বাংলাদেশ ব্যাংক

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here