জনপ্রতিনিধি নয় অপরাধীদের আটক করা হয়েছে : যশোর পুলিশ সুপার

0
52

গত ৩ দিনে ৬৫ জন আটক, মামলা ৩২ ।। দেড় মাসে ১২ হত্যা আর ৩০ ছুরিকাঘাত

ডি এইচ দিলসান : আইনের দৃষ্টিতে সবাই সমান। এখানে ছাড় দেয়ার কোন সুযোগ নেই। অপরাধ করলে অপরাধী হিসেবে বিবেচিত হবে। তা সে জনপ্রতিনিধি হোক আর আইনজীবী হোক, কারো ছাড় দেওয়ার সুযোগ নেই। কাউকে ব্যক্তিগতভাবে প্রতিপক্ষ পুলিশ মনে করছে না। সাধারণ মানুষকে ভাল রাখার জন্য পুলিশ তার উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করছে। এমনটাই বলছিলেন যশোরের পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার।
রোববার যশোর পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে প্রলয় কুমার জোয়ারদার আরো বলেন চিহ্নিত সন্ত্রাসী, মাদকের গডফাদার ও চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে জেলা পুলিশের সুস্পষ্ট অবস্থান থাকবে, এক কথায় যশোর জেলা পুলিশ সকল প্রকার অন্যায়ের বিরুদ্ধে শূন্য সহিষ্ণ নীতিতে কাজ করবে। এক্ষেত্রে কোন ব্যক্তিকে বিন্দুমাত্র ছাড় দেয়া হবেনা
যশোরবাসীর জানমালের নিরাপত্তার দায়িত্ব জেলা পুলিশের। পুলিশের উপর অর্পিত দায়িত্ব পেশাদারিত্ব, সততা ও সহসিকতার সাথে পালন করা হচ্ছে। অপরাধীদের সাথে কোন কম্প্রোমাইজিং করা হবে না। অপরাধী যে পরিচয়ই থাকুক না কেন, আইনের দৃষ্টিতে অপরাধী অপরাধীই। তাদের কোন ধরণের ছাড় হবে না। জনগণের নিরাপত্তা, শান্তি ও স্বস্তির জন্য অপরাধীকে অপরাধী হিসেবেই বিবেচনা করার বিকল্প নেই। সেইজন্য পুলিশের বিশেষ অভিযান শুরুহয়েছে। এই অভিযান চলমান থাকবে। তিনি আরো বলেন কিশোর অপরাধ, চাকু, ছিনতাইকারীসহ শহর থেকে বিভিন্ন ধরণের অপরাধীদের দমন করা হচ্ছে। এতে চিহ্নিত অপরাধী, মাদক ব্যবসায়ী, অস্ত্রবাজী, চোরাকারবারীদের ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হবে। কোন ধরণের নিরঅপরাধী বেকায়দায় ফেলা হবে না। যশোরকে অপরাধীমুক্ত করার জন্য সবার সহযোগিতা প্রয়োজন। যশোর অপরাধমুক্ত হলে আগামী প্রজন্ম ভাল থাকবে। নিরাপদ, নিশ্চিত ও সুস্থভাবে জীবনযাপন করতে পারবে।
মতবিনিময় অনুষ্ঠানে এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলাল হুসাইন, প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, সম্পাদক এস এম তৌহিদুর রহমান, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মনোতোষ বসু, সম্পাদক এইচ আর তুহিনসহ যশোরে বিভিন্ন মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকবৃন্দ।
উল্লেখ্য যশোর জেলা পুলিশের গত ৩ দিনে লাগাতার অভিযানে অস্ত্র ও মাদকদ্রব্যসহ ৬৫ জন ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলাল হোসাইন বলেন, ‘পুলিশের অভিযান কোন ব্যক্তি বা জন প্রতিনিধির বিরুদ্ধে নয়। সন্ত্রাস, চাদাবাজ, মাদক ও অস্ত্র ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে এবং থাকবে। আমরা অপরাধীকে অপরাধী হিসেবে বিবেচনা করছি। তার অন্য কোন পরিচয় আমাদের কাছে মুখ্য নয়। অবৈধ অস্ত্র ও মাদকের বিরুদ্ধে জেলা পুলিশ শুন্য সহিষ্ণুতার ভিত্তিতে কাজ করে যাচ্ছে। আমরা যে শুদ্ধি অভিযান করে যাচ্ছি, সেই অভিযান অব্যাহত থাকবে। আমাদের এই শুদ্ধি অভিযানকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য কতিপয় ব্যক্তি যে অপচেষ্টা চালাচ্ছে সে বিষয়ে আমরা সচেতন আছি। আমাদের এই শুদ্ধি অভিযান অব্যাহত আছে ও থাকবে’। তিনি আরও বলেন, গত ১৪ হতে ১৬ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত বিশেষ অভিযানে অস্ত্র ও মাদকদ্রব্যসহ সর্বমোট ৬৫ জন ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে পৃথক ৩২টি মামলা রুজু করে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। এ অভিযান চলমান থাকবে বলে জানান জেলা পুলিশের এ কর্মকর্তা বলেন।
এর আগে কাউন্সিলর জাহিদ হাসান টাক মিলন ও ম্যানসেলকে আটক করার পর গত বৃহস্পতিবার পৌরসভার সম্মেলন কক্ষে প্যানেল মেয়র-১ মোকসিমুল বারী অপুর নেতৃতে সংবাদ সম্মেলন পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলাল হোসেনকে অপসারনের দাবি করেন যশোর সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুল। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন হৈতবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সিদ্দিক, চুড়ামকাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দাউদ হোসেন দফাদার, লেবুতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলীমুজ্জামান মিলন, উপশহর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এহসানুর রহমান লিটু, হৈবতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ সোহরাব হোসেন, রামনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাহমুদ হাসান লাইফ, নরেন্দ্রপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাজু আহমেদ, যশোর পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সাহিদুর রহমান রিপন, ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রাজিবুল আলম, ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাহেদ হোসেন নয়ন ও ৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান বাবুল।
পুলিশের বিরুদ্ধে এলাকায় আতঙ্ক ছড়ানোর অভিযোগ করে ক্ষোভ প্রকাশ করে সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ ও মাদক ব্যবসায়ীদের আটকের নামে আওয়ামী লীগের একটি অংশের ইন্ধনে আরেক অংশের জনপ্রতিনিধিদের হয়রানি করছে পুলিশ। অপরদিকে, তাদের প্রতিপক্ষ শাহীন চাকলাদারের পক্ষের জনপ্রতিনিধি ও কর্মীদের কোনোরকম বাধা দিচ্ছে না পুলিশ।
যদিও পুলিশ বলছে গত দেড় মাসে যশোরে ১২টি হত্যাকান্ডো আর ৩০টির অধিক ছুরিকাঘাতের ঘটনার পর বিশেষ অভিযান পরিচালনা করছে তারা। আর এই অভিযানে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। অপরাধিকে অপরাধি হিসেবেই ট্রিট করা হবে।