জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে কেশবপুর চারুপীঠ আর্ট স্কুল

0
892

ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি : সোনামণিরা রং পেন্সিল সোজা করে ধরতে হয়। তার পর কাগজে দাগদিলে যে চিহ্ন হয় তাকে ছবি আঁকা বলে। তোমরা নিজে চেষ্টা কর পারবে। এমন ভাবেই কোমলমতি শিশুদে ছবি আঁকা শেখাচ্ছিলেন কেশবপুর চারুপীঠ আর্ট স্কুলের এক শিক্ষক। এ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা খুব যত্নসহকারে ছোট্ট ছোট্ট শিশুদের ছবি আঁকানো শেখান। অঙ্কনের উপর আগ্রহ বৃিদ্ধর কারণে এ স্কুল দিনে দিনে বাড়ছে শিক্ষার্থীর সংখা। ইতিমধ্যে সুনাম কুড়িয়ে বিভিন্ন পুরষ্কার ঘরে তুলছে প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার্থীরা। কেশবপুর চারুকারু শিক্ষার প্রসারে ২০১৩ সালে ১২ জন শিক্ষার্থী নিয়ে কেশবপুর চারুপীঠ আর্ট স্কুলের যাত্রা শুরু। সাংস্কৃতিক কর্মী উৎপল দে নিজে উদ্যোগে প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তোলেন। প্রতিষ্ঠানটি নিজেস্ব না থাকায় শহরের মেইন রোডে সড়কের একটি ভবনে ক্লাস নেওয়া হয়। এলাকায় এ বিষয়ের শিক্ষক না থাকায় বিপাকে পড়েন এ উদ্যোগতার। যশোর থেকে অভিজ্ঞ শিক্ষক এনে কার্যক্রম চালাতে হচ্ছে। ফলে একটি প্রতিষ্ঠানের জন্য দূরুহ হলেও অঙ্কনে পারদর্শী হয়ে উঠছে শিক্ষার্থীরা। ২০১৪ সালে ধ্রুব পরিষদ বাংলাদেশ থেকে প্রতিষ্ঠানটি অনুমোদন লাভ করে। এখন প্রাই ১শ’৭৪ জন শিক্ষার্থী এ স্কুলে অধ্যায়নরত। ব্যতিক্রমী এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অভিভাকরা অঙ্কন শিকছেন। শিক্ষার্থীরা জানায়, তারা বর্তমান যে কোন চিত্র অঙ্কনে পারদর্শী হয়ে উঠেছে।
চারুপীঠ আর্ট স্কুলের শিক্ষক ওবায়েদ জাকির রাশু জানান, চারুকলা ও চিত্র অঙ্কন প্রশিক্ষনের প্রতি গুরুত্ব দিয়ে অভিভাবকরা সন্তানদের এ প্রতিষ্ঠানে ভর্তী করছেন। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সুবিধার্থে ভিন্ন ভিন্ন কেন্দ্রে প্রশিক্ষন প্রদান করা হয়।
তিনি আরো জানান, প্রতি শুক্রবার ও রবিবার কেশবপুর পাইলট স্কুল এন্ড কলেজ, কেশবপুরে পাইলট বালিকা বিদ্যালয় ও রবীন্দ্র-নজরুল সাংকৃতিক একাডেমি ও চারুপীঠ স্কুলে প্রশিক্ষন প্রদান করা হয়। এ চারটি কেন্দ্রে ১শ’ ৫৬ জন শিক্ষার্থী অঙ্কন শিখছে। তাদের শেখাতে রয়েছে ৪ জন অভিজ্ঞ শিক্ষক। ৪ বছর মেয়াদি চারুকারু কোর্স সম্পান্নের পর শিক্ষার্থীদের মাঝে সনদ বিতরণ করা হয়। শিক্ষার্থী জান্নাতুল মাওয়া ও জায়ীতা দত্ত বলেন পাঠদান, ব্যাবহারিক থেকে শুরু করে শিক্ষার্থীদের সার্বীক বিষয় খোঁজ খবর রাখবেন শিক্ষকরা। এখানে শুরু প্রতিষ্ঠানিক শিক্ষা ন্যায় সামাজিক মূল্যবোধেরও শিক্ষা দেন শিক্ষকরা।
অভিভাবক লেখক তাপস মজুমদার জানান, প্রতিষ্ঠানটির মান খুবই ভালো। আমাদের সন্তানেরা এ প্রতিষ্ঠান থেকে চিত্র শিল্প অঙ্কনের পারদর্শী হয়ে উঠছে। পরিচালনার সভাপতি মদন সাহা অপু জানান, শিশুদের মনোনশীল চিন্তা মেধাশক্তির বিকাশের পাশাপাশি সত্য, সুন্দর ও মানবতার সমাজ গড়ার লক্ষ্যে তারা নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাচ্ছেন। প্রতিষ্ঠানে প্রতিষ্ঠাতা উৎপল দে জানান, অভিজ্ঞ শিক্ষক দ্বারা প্রশিক্ষন প্রদান শিক্ষার্থীদের অধ্যবসয় ও অভিভাবকদের সহযোগিতায় প্রতিষ্ঠানটি ধীরে ধীরে সাফল্যে দিকে এগিয়ে চলছে। প্রতিষ্ঠানের পরিচালকের দাবি সরকারি বা বেসকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেলে মডেল রুপ নেবে প্রতিষ্ঠানটি।া তিনি আরো বলেন, ২১ ফেব্রুয়ারি, বঙ্গবন্ধু জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস, জাতীয় দূর্যোগ প্রস্তুতি দিবস, খেলাঘর, আন্তজাতিক নারী দিবস,৭ই মার্চ চিত্রাংকনসহ উপলক্ষে আয়োজিত চিত্র অঙ্কনে সাফল্যের শীষে ছিল প্রতিষ্ঠানটি। এ ছাড়াও চলতি বছর ২১ ফেব্রুয়ারি, ও ২৬ মার্চ, জাতীয় শোক,শিশু দিবস, প্রতিষ্ঠানে ২১ জন শিক্ষার্থী চারুকারুতে বিজয়ী হন। যশোরের চলতি বছরে অত্র প্রতিষ্ঠানটি শিক্ষার্থীদের মধ্যে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে যশোর শিল্প কলা একাডেমীর আয়োজনে চিত্র প্রদর্শণীতে জয়ীতার ছবি স্থান পায়, যশোর আঁকতে শেখা প্রতিযোগীতায় ( জয়ীতা, উপমা,অহনা ও তপস্যা) চারজন বিজয়ী হয় এবং যশোর চারুতীর্খ এর আয়োজনে চিত্র প্রদর্শণী ও প্রতিযোগীতায় বিজয়ী হয় সমৃদ্ধি মজুমদার । এছাড়া ও ২০১৬ সালে ধ্রব পরিষদ বাংলাদেশ প্রদত্ত চারকারু বিষয়ক বোর্ড পরীক্ষায় ফলাফলে চারুপীঠ আর্ট স্কুল সাফাল্যে অর্জন করে। ১ জন বোর্ড স্ট্যানাড সহ ২৭ জনই পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সকলেই প্রথম বিভাগে পাস করে ।কেশবপুর সম্মলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি ডা.গোলাম মোস্তফা বলেন, জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল কেশবপুরের চারুপীঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠার সর্বস্তরের মানুষের কাছে গ্রহন যোগ্যতা পেয়েছে। শিশু থেকে শুরু করে দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থীরাও প্রতিষ্ঠানটিতে আঁকা শিখছে। প্রতিষ্ঠানটি এ ধারা অব্যাহত রাখুক এই কামনাই করি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here