জমির টাকা দেওয়ার পর রেজিস্ট্রির জন্য ২৮ বছর ঘুরছেন মুক্তিযোদ্ধা হারুনার রশিদ

0
267

সাংবাদিক সম্মেলনে অভিযোগ

বিশেষ প্রতিনিধি : ভবনসহ জমি কিনতে টাকা পরিশোধ করেও রেজিস্ট্রির জন্য ২৮ বছর ধরে ঘুরছেন যশোরের হারুনার রশিদ বাদশা নামে এক মুক্তিযোদ্ধা। এজন্য শালিস বৈঠক হলেও টাকা গ্রহীতা জমি রেজিস্ট্রি করে দিতে চেয়েও দেননি বলে তিনি অভিযোগ করেছেন। শেষ পর্যন্ত ভুক্তভোগী মুক্তিযোদ্ধা হারুনার রশিদ বাদশা আদালতের স্মরনাপন্ন হয়ে মামলা করেন। শনিবার যশোর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে তিনি এ কথা জানান।

লিখিত বক্তব্যে হারুনার রশিদ বাদশা বলেন, যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের সাবেক বেনাপোল বাসস্ট্যান্ডে ৫৭৯ দাগের ১১ দশমিক ৬৯ শতকের উপর ভবনটির নাম হোটেল শাহরিয়ার। ভবন ও জমির মালিক ১৯৮৮ সালে আবদুল মজিদ খান তার পিতার চিকিৎসা ও হাউজ বিল্ডিং কর্পোরেশনের লোন পরিশোধের জন্য ৫ লাখ টাকায় বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নেন। তিনি সম্মত হয়ে ১৯৮৮ সালের ২০ নভেম্বর থেকে ১৯৯০ সালের মধ্যে তাকে ৪ লাখ ৩ হাজার ৫শ’ টাকা প্রদান করেন। অবশিষ্ট ৯৬ হাজার ৫শ’ টাকা জমি রেজিস্ট্রির দিন রাজী হন। কিন্তু জমি রেজিস্ট্রি করে দিতে টালবাহানা করেন জমির মালিক জামাল। মাসের পর মাস তার পিছু ঘুরেছি। এই পরিস্থিতিতে ১৯৯৫ সালের ১০ ডিসেম্বর এলাকায় শালিস বৈঠক ডাকা হয়। সেখানে জামাল অতিরিক্ত টাকা দাবি করলে শালিসের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বকেয়া ৯৬ হাজার ৫শ’ টাকারসহ অতিরিক্ত সাড়ে ৮ হাজার টাকা অর্থ্যাৎ ১ লাখ ৫ হাজার টাকা দিয়ে জমি রেজিস্ট্রি করে নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। সেই অনুযায়ী পর্যায়ক্রমে ১ লাখ ৪ হাজার টাকা দেয়া হয়। তারপরও জমি রেজিস্ট্রি করে দেয়নি। তখন ২০০৮ সালের ১৮ জুন আদালতে মামলা করি। সেই থেকে মামলা পরিচালনা করে আসছি। এরই মধ্যে জামাল খান মারা যায় এবং এখন মামলার দেখভাল করছেন তার স্ত্রী ও সন্তানরা। তারা এখন আমার বিরুদ্ধে জমি দখলের মিথ্যা অভিযোগ করে সমাজে আমার সম্মানক্ষুন্নের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক জেলা কমান্ডার আবদুর রাজ্জাক, মুক্তিযোদ্ধা ও সমাজসেবক হাসানুর করিম কামাল, তার হোটেলের ম্যানেজার সিরাজুল ইসলাম, যশোর পৌর ৩ নাম্বার ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নূর ইসলাম, জেলা যুবলীগ নেতা কামরুজ্জামান মামুন, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মেসবাহ উদ্দিন প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here